Blog

All BCS Question Solution pdf Download

The Bangladesh Civil Service is a nationwide competitive examination in Bangladesh conducted by the Bangladesh Public Service Commission for recruitment to the various Bangladesh Civil Service cadres. Previous BCS question solution is very important for every BCS cadre recruitment exam, because many question will repeat from previous year question. So, I posted All BCS Question Solution pdf Download post under BCS Question Bank of bcsstudy.com.

So given bellow all BCS question solution pdf download file for helping BCS cadre recruitment examine. You can download all BCS question solution pdf  file from our BCS question bank. Click for download as pdf of all BCS question solution.

For BCS exam, The 200 marks multiple choice question (MCQ) exam will be held within two hour for compulsory subject like English Language and Literature; বাংলা ভাষা ও সাহিত্য; গাণিতিক যুক্তি; সাধারণ বিজ্ঞান; বাংলাদেশ বিষয়াবলি; আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি; কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি; নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসন; ভূগোল, পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা

Mark Distribution:

English Language and Literature: 35
বাংলা ভাষা ও সাহিত্য: 35
গাণিতিক যুক্তি: 30
সাধারণ বিজ্ঞান: 15
বাংলাদেশ বিষয়াবলি: 30
আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি: 20
কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি: 15
নৈতিকতা, মূল্যবোধ ও সুশাসন: 10
ভূগোল, পরিবেশ ও দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা: 10

BCS Question and Solution

So, Lets click all BCS exam question solution pdf download link from 10th BCS to 40th BCS. Here you can find all BCS question solution with accurate answer sheet.

40th BCS Question and Solution

39th BCS Question with Answer

38th BCS Question with Answer

37th BCS Question with Answer

36th BCS Question with Answer

35th BCS Question with Answer

34th BCS Question with Answer

33rd BCS Question with Answer

32nd BCS Question with Answer

31st BCS Question with Answer

30th BCS Question with Answer

29th BCS Question with Answer

28th BCS Question with Answer

27th BCS Question with Answer

26th BCS Question with Answer

25th BCS Question with Answer

24th BCS Question with Answer

24th BCS Question(Cancelled) with Answer

23rd BCS Question with Answer

22nd BCS Question with Answer

21st BCS Question with Answer

20th BCS Question with Answer

19th BCS Question with Answer

18th BCS Question with Answer

17th BCS Question with Answer

16th BCS Question with Answer

15th BCS Question with Answer

14th BCS Question with Answer

13th BCS Question with Answer

12th BCS Question with Answer

11th BCS Question with Answer

10th BCS Question with Answer

End of this post, if you have any queries/ question? about all BCS Question Solution pdf Download post, comment this post without any hesitation or message us through our official Facebook Page or Facebook  Group using bellow mentioned link. We will try to reply as soon as possible according to your problems or issues. Thanks for stay with bcsstudy.com

All Bank Question Solution pdf Download

All Officer, Senior Officer, Officer Cash and human resource recruitment process of All government bank like Sonali Bank, Janata Bank, Agrani bank, Bangladesh Krishi Bank is under Banker’s Selection Committee Secretariat(BSCS). Here is all bank question solution pdf download post for helping all examine of bank job examination of Bangladesh.

Previous bank question solution is very important for each bank job recruitment exam, because many question will repeat from previous year question. So, I have posted all bank question solution pdf download file.

So, Lets click all bank recruitment job exam question solution pdf download link of 2001 to till. Here you can find all bank recruitment job exam question solution with accurate answer sheet.

Bangladesh Bank AD Question Solution – 2001

End of this post, if you have any queries/ question? about
all bank question solution pdf download, comment bellow without any hesitation or message us through our Facebook Page or Facebook  Group using bellow mentioned link. We will try to reply as soon as possible according to your problems or issues. Thanks for stay with bcsstudy.com

HSC Result 2019 of All Education Board with Mark-sheet

HSC result 2019 of all education board will published by the authority of their website educationboardresults.gov.bd. In 2019, higher secondary school certificate examination and equivalent of HSC examination was started at 2nd April, 2019 and was ending at May 12, 2019. HSC Result 2019 Published Date is significant for the understudies who sit for the HSC, Dakhil, and Vocational Examination in 2019. In Bangladesh, optional school authentication test is critical for each understudy. Since understudies are concentrating hard to get a decent outcome in this board examination. Already it was the main board test after an understudy began their understudy life. Conceivable HSC result 2019 date is May 6, 2019

HSC Result 2019 Published Date

HSC, Dakhil, SSC Vocational and equivalent of HSC examination is very important part of every students. All of the examine of secondary school certificate were worry about HSC exam result. We will update the result as soon as possible after published by education of the government. HSC Result 2019 will published at 19 July 2019 according examination held date.
hsc result 2019

Alim Exam Result Published Date 2019

Alim examination was held under Bangladesh Madrasah Education Board. Alim examination result will published with higher secondary school certificate result 2019. All Student of dakhil examine will get their Alim  Exam Result 2019 at same time and same website educationboardresults.gov.bd.
hsc result 2019

Vocational Exam Result 2019

Vocational examination was held under Bangladesh technical education board. Vocational examination is also equivalent of secondary school certificate or HSC exam. All of the vocational students will gate their exam at same time with HSC result of all board in Bangladesh.

HSC, Alim and Vocational 2019 Result Publishing Procedure

In the wake of closure the examination of each subject every one of the contents submitted to the head office of each board the nation over. At that point the contents are dispersed to the chose inspectors and subsequent to checking the contents and they submitted again to the head office.
hsc result 2019
After these means finished the board put away the outcome on their online outcome distributing framework or individual site. Expert of every training board presented the outcome’s printed version to the instruction service and training service put away the outcome on the focal center point called educationboardresults.gov.bd server. After these means are finished then the service distributed the last date of HSC Result 2019 Date through the national paper just as on each legislature and non-government TV station too. So that, each native of Bangladesh would know the date of HSC, Alim and Vocational result 2019 distributed date just as each understudy who are sitting tight for their outcome.
ssc result 2019

Get School Wise HSC Result 2019

You can easily get your result school wise. It is very easy and faster system for getting your hsc result 2019.
hsc result 2019
Let’s check school wise result:
  1. Go to http://mail.educationboard.gov.bd/web/
  2. Select your board name
  3. Enter your EIIN number
  4. Select result type
  5. Get Institution Result
ssc result 2019

How to Get HSC Result 2019 From Internet by education board.

Internet is most quickest system to get your hsc result. Bangladesh education board assign a official domain for hsc result 2019. In case you face hassle in all reliable internet site then you could comply with your very own training board hsc result internet site. Board smart result internet site is more faster purpose particular students are visit this website. Observe the blow internet site for check hsc result 2019.
ssc result 2019
  1. www.educationboardsresult.gov.bd
  2. www.eboardresults.com
  3. www.barisalboard.gov.bd
  4. www.bise-ctg.portal.gov.bd
  5. www.comillaboard.portal.gov.bd
  6. www.dhakaeducationboard.gov.bd
  7. www.jessoreboard.gov.bd
  8. www.mymensingheducationboard.gov.bd
  9. www.rajshahieducationboard.gov.bd
  10. www.sylhetboard.gov.bd
  11. www.dinajpureducationboard.gov.bd
  12. www.bteb.gov.bd
  13. www.bmeb.gov.bd
ssc result 2019

Get Your HSC Result 2019 From Your Mobile.

hsc result 2019
When you have no phone or internet connection then don’t fear. There’s a simple way to check result. Go to your phone message option and type your ssc result layout sms and send it a specific quantity. After some instances you will get a back sms with your exam result. SMS System: HSC <SPACE> First three letters of your Board name <SPACE> Roll no<SPACE> 2019 and send to 16222 SMS Example: HSC DHA 24136274 2019 send 16222

Get HSC Exam Result 2019 with Mark sheet.

HSC Result mark sheet via Fast Server:

ssc result 2019
Click bellows link for getting your desired HSC result 2019.
ssc result 2019

Click Here to see HSC result 2019

To finish of HSC Result 2019, we trust in the best outcome for you. We wish to salute you for the achievement you accomplished in HSC examination. As we said before that, the consequence of HSC test will give you a chance to pick the school you need to concede for your higher auxiliary training. We’ll update the HSC admission preparation with a well ordered procedure to support you. Do tell us your outcome by leaving a remark alongside your outcome. So that, we can likewise commend the achievement you accomplished today. Keep us in your supplication.

প্রাথমিক সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষার পরিবর্তিত সময়সূচী

আগামী ২৪ ও ৩১ মে এবং ১৪ ও ২১ জুন সকাল ১০টায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। দেশের বিভিন্ন জেলায় যে তারিখে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে তার সিডিউল দেয়া হলো-

২৪ মে অনুষ্ঠিত হবে যেসব জেলায় পরীক্ষা

ভোলা, পবনা, জয়পুরহাট ও চাঁপাইনবাবগঞ্জ ও মানিকগঞ্জ জেলার সব উপজেলায় একযোগে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া গোপালগঞ্জের কোটালিপাড়া ও সদর উপজেলা; শরীয়তপুরের গোসাইরহাট, নড়িয়া ও ভেদরগঞ্জ উপজেলা; মাদারীপুরের সদর ও রাজৈর উপজেলা; ফরিদপুরের চরভদ্রাসন, আলফাডাঙ্গা, সদরপুর, সালথা ও সদর উপজেলা; নরংসিংদীর মনোহরদী, রায়পুরা ও বেলাবো উপজেলা; কিশোরগঞ্জের বাজিতপুর, অষ্টগ্রাম, করিমগঞ্জ, কাটিয়াদি, পাকুন্দিয়া ও তারাইল উপজেলা; জামালপুরের মেলান্দহ, বকশিগঞ্জ ও সদর উপজেলা; টাঙ্গাইলের মির্জাপুর, কালিহাতী, মধুপুর, নাগরপুর, ভুয়াপুর ও ধনবাড়ী উপজেলা; লক্ষ্মীপুরের কমলনগর ও সদর উপজেলা।

কক্সবাজারের উখিয়া, কুতুবদিয়া, পেকুয়া, টেকনাফ ও সদর উপজেলা; চাঁদপুরের শাহরাস্তি, ফরিদগঞ্জ, মতলব উত্তর, মতলব দক্ষিণ উপজেলা; হবিগঞ্জের বাহুবল, নবীগঞ্জ, লাখাই ও সদর উপজেলা; সুনামগঞ্জের দেলদুয়ারবাজার, বিশ্বম্বরপুর, ছাত্ক, সাল্লা ও সদর উপজেলা; সিলেটের কানাইঘাট, বালাগঞ্জ, বিশ্বনাথ, ফেন্সুগঞ্জ, জৈন্তাপুর ও সদর উপজেলা; পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া, নেছারাবাদ ও সদর উপজেলা; পটুয়াখালীর দুমকী, গলাচিপা ও সদর উপজেলা; সাতক্ষীরার আশাশুনি, শ্যামনগর ও সদর উপজেলা; নীলফামারীর ডোমার, সৈয়দপুর ও সদর উপজেলা; নাটোরের গুরুদাসপুর, সিংড়া ও সদর উপজেলা এবং মৌলভীবাজারের রাজনগর, কমলগঞ্জ, শ্রীমঙ্গল ও জুড়ি উপজেলায় প্রথম ধাপের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

৩১ মে অনুষ্ঠিত হবে যেসব জেলায় পরীক্ষা

মুন্সীগঞ্জ, লালমনিরহাট, ঠাকুরগাঁও, নারায়ণগঞ্জ, শেরপুর ও রাজবাড়ী জেলার সব উপজেলার পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া গোপালগঞ্জের কাশিয়ানি, টুঙ্গীপাড়া ও মকসুদপুর উপজেলা; শরীয়তপুরের জাজিরা, ডামুড্যা ও সদর উপজেলা; মাদারীপুরের কালকিনি ও শিবচর উপজেলা; ফরিদপুরের নগরকান্দা, বোয়ালমারী, ভাঙ্গা ও মধুখালী উপজেলা; নরসিংদীর পলাশ, শিবপুর ও সদর উপজেলা; জামালপুরের সরিষাবাড়ী, দেওয়ানগঞ্জ, ইসলামপুর ও মাদারগঞ্জ উপজেলা; টাঙ্গাইলের ঘাটাইল, সখিপুর, গোপালপুর, বাসাইল, দেলদুয়ার ও সদর উপজেলা; কিশোরগঞ্জের হোসেনপুর, নিকলী, কুলিয়ারচর, ইটনা, ভৈরব, মিঠামইন ও সদর উপজেলা।

লক্ষ্মীপুরের রায়পুর, রামগঞ্জ ও রামগতি উপজেলা; কক্সবাজারের চকোরিয়া, মহেশখালী ও রামু উপজেলা; চাঁদপুরের কচুয়া, হাজীগঞ্জ, হাইমচর ও সদর উপজেলা; হবিগঞ্জ জেলার বানিয়াচং, আজমিরিগঞ্জ, মাধবপুর, চুনারুঘাট উপজেলা; সুনামগঞ্জের তাহিরপুর, জামালগঞ্জ, ধর্মপাশা, দিরাই, জগন্নাথপুর ও দক্ষিণ সুনামগঞ্জ উপজেলা; সিলেটের গোয়াইনঘাট, গোলাপগঞ্জ, কোম্পানীগঞ্জ, জকিগঞ্জ, বিয়ানীবাজার, দক্ষিণ সুরামা উপজেলা; পিরোজপুর জেলার কাউখালী, নাজিরপুর, মঠবাড়িয়া ও ইন্দুরকানি উপজেলা; পটুয়াখালীর দশমিনা, বাউফল, মির্জাগঞ্জ, কলাপড়া ও রাঙ্গাবালী উপজেলা; সাতক্ষীরার দেবহাটা, কলারোয়া, কালিগঞ্জ ও তালা উপজেলা; নাটোরের নলডাঙ্গা, লালপুর, বড়াইগ্রাম ও বাগাতিপাড়া উপজেলা; নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ, জলঢাকা, ডিমলা উপজেলা এবং মৌলভীবাজারের বড়লেখা, কুলাউড়া ও সদর উপজেলায় এ ধাপে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

১৪ জুন অনুষ্ঠিত হবে যেসব জেলায় পরীক্ষা

ফেনী, ঝালকাঠি, বরগুনা, মাগুরা, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর ও পঞ্চগড় জেলার সব উপজেলায় একযোগে পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া নেত্রকোনার দুর্গাপুর, পূর্বধলা, বারহাট্টা, খালিয়াজুড়ি, মদন ও মোহনগঞ্জ উপজেলা; ময়মনসিংহের গফরগাঁও, ঈশ্বরগঞ্জ, ফুলবাড়িয়া, গৌরীপুর, ফুলপুর, ধোবাউড়া ও তারাকান্দা উপজেলা; ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নবীনগর, বাঞ্ছারামপুর, আখাউড়া ও সদর উপজেলা; কুমিল্লার লাকসাম, দেবীদ্বার, মুরাদনগর, দাউদকান্দি, চৌদ্দগ্রাম, হোমনা ও সদর উপজেলা; চট্টগ্রামের ডবলমুরিং, পাহাড়তলী, বন্দর, পাঁচশাইল, চান্দগাঁও, কোতোয়ালি, বাঁশখালী, রাউজান, সন্দ্বীপ, ফটিকছড়ি, আনোয়ারা, লোহাগড়া উপজেলা; নোয়াখালীর বেগমগঞ্জ।

কবিরহাট, সুবর্ণচর ও সদর উপজেলা; বরিশালের আগৈলঝাড়া, বাকেরগঞ্জ, গৌরনদী ও সদর উপজেলা; যশোরের ঝিকরগাছা, বাঘারপাড়া, মনিরামপুর ও শার্শা উপজেলা; খুলনার কয়রা, ডুমুরিয়া ও সদর উপজেলা; বাগেরহাটের মোল্লাহাট, মোংলা, মোরেলগঞ্জ, কচুয়া, শরণখোলা উপজেলা; ঝিনাইদহের মহেশপুর, শৈলকুপা ও হরিণাকুণ্ডু উপজেলা; কুষ্টিয়ার মিরপুর, খোকসা ও সদর উপজেলা; কুড়িগ্রামের উলিপুর, চিলমারী, ফুলবাড়ী, রাজীবপুর ও সদর উপজেলা; গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জ, পলাশবাড়ী ও সদর উপজেলা; রংপুরের কাউনিয়া, গঙ্গাচড়া, বদরগঞ্জ ও সদর উপজেলা; দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট, খানসামা, চিরিরবন্দর, হাকিমপুর, বীরগঞ্জ ও সদর উপজেলা; নওগাঁর বদলগাছি, মহাদেবপুর, মান্দা, রানীনগর ও সাপাহার উপজেলা; বগুড়ার আদমদীঘি, শিবগঞ্জ, শেরপুর, সোনাতলা, ধুনট ও শাহাজাহানপুর উপজেলা; রাজশাহীর গোদাগাড়ী, চারঘাট, বাগমারা ও সদর উপজেলা এবং সিরাজগঞ্জের কাজিপুর, চৌহালী, রায়গঞ্জ, বেলকুচি ও সদর উপজেলায় ১৪ জুন পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

২১ জুন অনুষ্ঠিত হবে যেসব জেলায় পরীক্ষা

ঢাকা, গাজীপুর ও নড়াইল জেলার সব উপজেলায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া নেত্রকোনার আটপাড়া, কমলাকান্দা, কেন্দুয়া ও সদর উপজেলা; ময়মনসিংহের মুক্তাগাছা, ত্রিশাল, ভালুকা, নান্দাইল ও সদর উপজেলা; ব্রাহ্মণবাড়িয়ার কসবা, সরাইল, নাসিরনগর, আশুগঞ্জ ও বিজয়নগর উপজেলা; কুমিল্লার ব্রাহ্মণপাড়া, বরুড়া, বুড়িচং, চান্দিনা, সদর দক্ষিণ, নাঙ্গলকোট, মেঘনা, মনোহরগঞ্জ, তিতাস ও লালমাই উপজেলা; চট্টগ্রামের পটিয়া, বোয়ালখালী, চন্দনাইশ, হাটহাজারী, রাঙ্গুনিয়া, মিরেরসরাই, সীতাকুণ্ডু ও সাতকানিয়া উপজেলা; নোয়াখালীর চাটখিল, কোম্পানীগঞ্জ, হাতিয়া, সোনাইমুড়ী ও সেনবাগ উপজেলা; বরিশালের উজিরপুর, বানারীপাড়া, বাবুগঞ্জ, মুলাদী, মেহেন্দীগঞ্জ ও হিজল উপজেলা; কুষ্টিয়ার দৌলতপুর, ভোড়ামারা ও কুমারখালী উপজেলা; যশোরের অভয়নগর, কেশবপুর, চৌগাছা ও সদর উপজেলা।

খুলনার তেরখাদা, দাকোপ, দিঘলিয়া, পাইকগাছা, ফুলতলা, বটিয়াঘাটা ও রূপসা উপজেলা; বাগেরহাটের চিতলমারী, রামপাল, ফকিরহাট ও সদর উপজেলা; ঝিনাইদহের কালিগঞ্জ, কোটচাঁদপুর ও সদর উপজেলা; কুড়িগ্রামের নাগেশ্বরী, ভুরুঙ্গামারী, রাজারহাট ও রৌমারী উপজেলা; গাইবান্ধার ফুলছড়ি, সাদুল্লাপুর, সাঘাটা ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলা; রংপুরের তারাগঞ্জ, পীরগঞ্জ, পীরগাছা ও মিঠাপুকুর উপজেলা; দিনাজপুরের নবাবগঞ্জ, পার্বতীপুর।

ফুলবাড়ী, বিরল, বিরামপুর, বোচাগঞ্জ ও কাহারোল উপজেলা; নওগাঁর আত্রাই, ধামুরহাট, নিয়ামতপুর, পত্নীতলা, পোরশা ও সদর উপজেলা; বগুড়ার কাহালু, গাবতলী, দুপচাঁচিয়া, নন্দীগ্রাম, সারিয়াকান্দি ও সদর উপজেলা; রাজশাহীর তানোর, দুর্গাপুর, পুঠিয়া, পবা, বাঘা ও মোহনপুর উপজেলা এবং সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়া, তাড়াশ, কামারখন্দ, শাহাজাদপুর উপজেলা।

সূত্রঃ যুগান্তর

Primary Assistant Teacher Exam Question Solution 2019 with Accurate Answer

Primary assistant teacher recruitment process is under Primary and Mass Education Ministry, Bangladesh. I’m writing here primary assistant teacher exam question solution 2019 with accurate answer. Previous exam question solution is one of the most important for primary school teacher recruitment preparation or any competitive job exams. This is primary assistant teacher exam question solution 2019 held in 2019. Accurate primary teacher’s recruitment MCQ Test questions and answers with accuracy as per our best try. So, I posted accurate primary assistant teacher question solution held in 2019 under primary question bank of bcsstudy.com.

All primary school teacher recruitment questions solution is available at bcsstudy.com. You can download all primary question solution pdf file from our website. Lets follow primary question solution held in 2019.

Primary Assistant Teacher Exam Question Solution 2019 with Accurate Answer

All primary assistant teacher exam question solution 2019 with accurate answer may be given in our website at Question Bank section. Primary and Mass Education Ministry, has been published primary assistant teacher recruitment circular in 2018 by the authority.

Primary assistant teacher recruitment exam examination will be start on May 17, 2019, step by step will taken all district primary assistant teacher recruitment examination.

After completed this exam we will be posted primary assistant teacher exam question solution 2019 with accurate answer. So if you want to interest this query can visit our website.

You can find also previous year primary assistant teacher exam question solution bellow.


Primary Exam Question Solution 14-06-2019
Primary Exam Question Solution 31-05-2019
Primary Exam Question Solution 24-05-2019
Primary Exam Question Solution 17-05-2019

Primary Question Solution 27-06-2015
Primary Question Solution 28-08-2015
Primary Question Solution 30-10-2015
Primary Question Solution 16-10-2015
Primary Question Solution 2014 – Delta
Primary Question Solution 2014 – Alfa
Primary Question Solution 2014 – Bita
Primary Question Solution 2014 – Gama
Primary Question Solution 2013 – Raein
Primary Question Solution 2013 – Micicipi
Primary Question Solution 2013 – Dajla
Primary Question Solution 2013 – Hoangho
Primary Question Solution 2013 – Jimla

In the ending of this post, if you have any queries/question? about primary assistant teacher exam question solution 2019, comment bellow without any hesitation or message us through our Facebook Page or Facebook  Group using mentioned link. We will try to reply as soon as possible according to your problems or issues. Thanks for stay with bcsstudy.com

15th NTRCA Exam Question Solution 2019

NTRCA is abbreviation of Non Government Teachers Registration and Certification Authority, is teachers requirement organization of Bangladesh. 15th NTRCA preliminary exam 2019 will held at April 19, 2019. You can download all NTRCA question solution pdf file from our NTRCA question bank. For download as pdf of all NTRCA question solution like School Level, School 2 Level and College Level click bellows mentioned questions link. So, Lets Checkout all NTRCA question solution of
School Level, School 2 Level and College Level.

15th NTRCA Preliminary Question Solution 2019

We will upload 15th NTRCA Preliminary Question Solution 2019 after ending the examination. Just follow our website for getting 15th NTRCA Preliminary Question Solution 2019 with accuracy.

15th NTRCA Question Solution 2019 For MCQ Will be Found at our website. 15th NTRCA examination of school level is held April 19, 2019 at 10:00AM-11:00AM. & college level held at 03:00PM-04:00PM. At this moment I am giving 15th NTRCA Exam Question Solution 2019 of school level Teachers Registration and Certification. You can Download 15th NTRCA MCQ Question Solution from our website.

15th NTRCA Exam Question Solve 2019

For school level and college level NTRCA exam, The 100 marks MCQ exam was held within one hour for compulsory subject like Bangla, English, Mathematics & General knowledge. 0.50 Marks will be deducted for each wrong answer or mistake.

Mark distributions of NTRCA exam:-
Bangla: 25
English: 25
Mathematics: 25
General Knowledge: 25

So, Lets checkout 15th NTRCA Question Solution of school level and college level.

15th NTRCA Question Solution – School

15th NTRCA Question Solution – College

download pdf file

Previous NTRCA question also listed bellow for all examine of 16th NTRCA examination.

14th NTRCA Question Solution – College
13th NTRCA Question Solution – College
12th NTRCA Question Solution – College
11th NTRCA Question Solution – College
10th NTRCA Question Solution – College
14th NTRCA Question Solution – School
13th NTRCA Question Solution – School
12th NTRCA Question Solution – School
11th NTRCA Question Solution – School
10th NTRCA Question Solution – School

SSC Result 2019 of All Education Board with Marksheet

SSC result 2019 of all education board will published by the authority of their website educationboardresults.gov.bd.
In 2019, Secondary school certificate examination and 
equivalent of SSC examination was started at 2nd February, 2019 and was ending at February 25, 2019.

SSC Result 2019 Published Date is significant for the understudies who sit for the SSC, Dakhil, and Vocational Examination in 2019. In Bangladesh, optional school authentication test is critical for each understudy. Since understudies are concentrating hard to get a decent outcome in this board examination. Already it was the main board test after an understudy began their understudy life. Conceivable SSC result 2019 date is May 6, 2019

SSC Result 2019 Published Date

SSC, Dakhil, SSC Vocational and equivalent of SSC examination is very important part of every students. All of the examine of secondary school certificate were worry about SSC exam result. We will update the result as soon as possible after published by education of the government. SSC Result 2019 will published at May 6, 2019 according examination held date.

ssc result 2019

Dakhil Exam Result Published Date 2019

Dakhil examination was held under Bangladesh Madrasah Education Board. Dakhil examination result will published with secondary school certificate result 2019. All Student of dakhil examine will get their Dakhil Exam Result 2019 at same time and same website educationboardresults.gov.bd.

SSC Result 2019

Vocational Exam Result 2019

Vocational examination was held under Bangladesh technical education board. Vocational examination is also equivalent of secondary school certificate or SSC exam. All of the vocational students will gate their exam at same time with SSC result of all board in Bangladesh.

SSC, Dakhil and Vocational 2019 Result Publishing Procedure

In the wake of closure the examination of each subject every one of the contents submitted to the head office of each board the nation over. At that point the contents are dispersed to the chose inspectors and subsequent to checking the contents and they submitted again to the head office.

ssc result 2019

After these means finished the board put away the outcome on their online outcome distributing framework or individual site. Expert of every training board presented the outcome’s printed version to the instruction service and training service put away the outcome on the focal center point called educationboardresults.gov.bd server. After these means are finished then the service distributed the last date of SSC Result 2019 Date through the national paper just as on each legislature and non-government TV station too. So that, each native of Bangladesh would know the date of SSC, Dakhil and Vocational result 2019 distributed date just as each understudy who are sitting tight for their outcome.

ssc result 2019


Get School Wise SSC Result 2019

You can easily get your result school wise. It is very easy and faster system for getting your ssc result 2019.

ssc result 2019

Let’s check school wise result:

  1. Go to http://mail.educationboard.gov.bd/web/
  2. Select your board name
  3. Enter your EIIN number
  4. Select result type
  5. Get Institution Result
ssc result 2019

How to Get SSC Result 2019 From Internet by education board.

Internet is most quickest system to get your ssc result. Bangladesh education board assign a official domain for ssc result 2019. In case you face hassle in all reliable internet site then you could comply with your very own training board ssc result internet site. Board smart result internet site is more faster purpose particular students are visit this website. Observe the blow internet site for check ssc result 2019.

SSC Result 2019
  1. www.educationboardsresult.gov.bd
  2. www.eboardresults.com
  3. www.barisalboard.gov.bd
  4. www.bise-ctg.portal.gov.bd
  5. www.comillaboard.portal.gov.bd
  6. www.dhakaeducationboard.gov.bd
  7. www.jessoreboard.gov.bd
  8. www.mymensingheducationboard.gov.bd
  9. www.rajshahieducationboard.gov.bd
  10. www.sylhetboard.gov.bd
  11. www.dinajpureducationboard.gov.bd
  12. www.bteb.gov.bd
  13. www.bmeb.gov.bd
ssc result 2019

Get Your SSC Result 2019 From Your Mobile.

ssc result 2019

When you have no phone or internet connection then don’t fear. There’s a simple way to check result. Go to your phone message option and type your ssc result layout sms and send it a specific quantity. After some instances you will get a back sms with your exam result.

SMS System:

SSC <SPACE> First three letters of your Board name <SPACE> Roll no<SPACE> 2019 and send to 16222

SMS Example:

SSC DHA 24136274 2019 send 16222

Get SSC Exam Result 2019 with Mark sheet.

SSC Result mark sheet via Fast Server:

ssc result 2019

Click bellows link for getting your desired SSC result 2019.

ssc result 2019

Click Here to see SSC result 2019

To finish of SSC Result 2019, we trust in the best outcome for you. We wish to salute you for the achievement you accomplished in SSC examination. As we said before that, the consequence of SSC test will give you a chance to pick the school you need to concede for your higher auxiliary training. We’ll update the HSC admission preparation with a well ordered procedure to support you. Do tell us your outcome by leaving a remark alongside your outcome. So that, we can likewise commend the achievement you accomplished today. Keep us in your supplication.

15th NTRCA Exam Date 2019 Published

15th NTRCA Exam Date 2019 Published. 15th NTRCA Exam Date 2019 Published circular has been published by the authority. It is better job opportunities for unemployment and job seekers.
15th NTRCA Exam Date 2019 preliminary test is 19th April, 2019 and written exam is 26th July, Friday, 2019 to 27th July, Saturday, 2019.
NTRCA Exam will held under the Ministry of Education. Given bellow 15th NTRCA Exam notice according to ntrca.gov.bd

Download 15th NTRCA exam notice 2019

15th NTRCA Exam Date 2019 circular has been published on official web portal/website: ntrca.gov.bd .

Download 15th NTRCA exam notice 2019

পাইপ এবং পানির ট্যাংক সংক্রান্ত সমস্যা

পাইপ এবং পানির ট্যাংক সংক্রান্ত গাণিতিক সমস্যা সমাধানের ক্ষেত্রে কিছু বিষয় মনে গেঁথে নেয়া উচিত। চলুন, এই অধ্যায়ের প্রাথমিক আলোচনায় যাওয়া যাক।ধরুন,একটি ট্যাংক রয়েছে যা পানি বা অন্যকোন তরল পদার্থ দিয়ে পূরণ করতে হবে।এতে ২টি Pipe বা নল আছে, যা দিয়ে পানি ট্যাংকের ভিতর প্রবেশ করে। আপনাকে বলা হয়েছে ১ম নল দিয়ে ট্যাংককে ১০ঘন্টায় ভর্তি করা যায় এবং ২য় নল দিয়ে দিয়েও ১০ঘণ্টায় ট্যাংকটি ভর্তি করা যায়। তাহলে, যদি দুটিনলকে একসাথে খুলে দেয়া হয়, তবে কতক্ষন সময় লাগবে ট্যাংকটি ভর্তি হতে।এবার তাহলে এর উত্তর বের করার চেষ্টা করা যাক।

প্রথমে লক্ষ্য করুন, ১ম নল ১০ ঘন্টায় ভর্তি করতে পারে। তাহলে তো বলা যায় যে ১ম নল ১ ঘন্টায় ভর্তি করে = ১/১০ অংশ
একই ভাবে, যে ২য় নল ১ ঘন্টায় ভর্তি কর=১/১০ অংশ
তাহলে নল ২টি একত্রে যখন খুলে দেয়া হয়, তখন ১ ঘণ্টায় ভর্তি করে = ১/১০ অংশ+ ১/১০ অংশ
=(১+১)/১০ অংশ
= ২/১০ অংশ
= ১/৫ অংশ
তাহলে তো বলা যায়, যেহেতু একত্রে ১/৫ অংশভর্তি করতে পারে ১ ঘন্টায়, তাহলে মোট ৫ঘন্টায় সম্পুর্ন ট্যাংকটি ভর্তি করতে পারবে।
এখানে খেয়াল করুন, ৫ঘন্টায় কী হচ্ছে।
১ম ঘণ্টায় = ১/৫ অংশ,২য় ঘণ্টায় = ১/৫ অংশ ,৩য় ঘণ্টায় = ১/৫ অংশ , ৪র্থ ঘণ্টায়= ১/৫ অংশ , ৫ম ঘন্টায় = ১/৫ অংশ
সবগুলোকে যোগ করলে আমরা পাই = (১+১+১+১+১)/৫ অংশ = ৫/৫ অংশ = ১ বা সম্পুর্ন অংশ।

বিদ্রঃ মনে রাখতে হবে, এখানে ভর্তি হওয়া বুঝাতে ১ বুঝানো হয়েছে। আরেকটি দিক খেয়াল করুন, ১ ঘণ্টায় যে অংশ ভর্তি করছে, অর্থাৎ ১/৫ অংশএর সাথে ৫দিয়ে গুন দিলে আমরা ১বা সম্পুর্ন অংশ পেয়ে যাচ্ছি। (১/৫ অংশ ×৫=১)

তাহলে আমরা একটি সূত্র পেয়ে গেলাম। যদি ১ম নল x ঘণ্টায় পূর্ণ করতে পারে এবং ২য় নল y ঘণ্টায় পূর্ণ করতে পারে একটি ট্যাংককে, তাহলে উভয়নল একত্রে ১ ঘণ্টায় পুর্ণ করতে পারে = ১/x+ ১/yঅংশ।তাহলে যদি বলা হয় তারা একত্রে a ঘণ্টায় ভর্তি করতে পারে তাহলে একটু ঘুরিয়ে বলা যায় = a(১/x+ ১/y) = ১

এবার আমরা আরেকটি সমস্যা দেখি।
ধরুন, আগের সমস্যাটির সাথে আরেকটি নলযুক্ত করা হয়েছে, যা কিনা ২০ঘণ্টায় ট্যাংকটি খালি করতে পারে।তাহলে যদি তিনটি নল একসাথে খুলে দেয়া হয়, তবে কি অবস্থা হবে।
এবার খেয়াল করুন, যেহেতু ৩য় নল খালি করে ২০ঘণ্টায়, তাহলে বলতে পারি, প্রতিঘণ্টায়১/২০অংশ খালি হবে।কিন্তু এই অংশটি কি যোগ হবে না কি বিয়োগ হবে আগের সমীকরণের সাথে! অবশ্যই বিয়োগ হবে কেননা আগের দুটি নল ভর্তি করছে, তাই যোগ করেছি, কিন্তু এটি খালি করছে।তাই বলা যায়, এখন ১ঘণ্টায় পুর্ণ হবে আগের চেয়ে কম।
অতএব, ১ঘণ্টায় ভর্তি হয় = ১/১০ অংশ+ ১/১০ অংশ-১/২০অংশ = (২+২-১)/২০অংশ = ৩/২০অংশ
তাহলে যেহেতু ১ঘণ্টায়৩/২০অংশ ভর্তি হবে, তাহলে বলা যায়২০/৩ঘণ্টায় সম্পুর্ন ট্যাংকটি ভর্তি হবে।
তাহলে আমরা আরেকটি সমীকরণ বের করতে পারি, নিচের প্রশ্ন থেকে।

যদি ১ম নল x ঘণ্টায় পূর্ণ করতে পারে ২য় নল y ঘণ্টায় পূর্ণ করতে পারে একটি ট্যাংককে এবং ৩য় নল খালি করে z ঘণ্টায় তাহলে ৩টি নল একত্রে ১ঘণ্টায় পুর্ণ করতে পারে = (১/x+ ১/y- ১/z)অংশ

এবার আসুন, আরেকটি মজার দিক আলোচনা করা যাক।ধরুন, ১ম নল ১০ঘণ্টায় ভর্তি করতে পারে একটি ট্যাংককে এবং ২য় নল খালি করতে পারে একই ট্যাংককে ২ঘণ্টায়।এবার যদি সম্পুর্ন ভর্তি থাকা অবস্থায় দুটি নল খুলে দেয়াহয়, তবে কী অবস্থা হবে?

খুব সহজেই বলা যায়, ১ঘণ্টায় ভর্তি হবে = ১/১০ – ১/২অংশ = (১-৫)/১০ = – ৪/১০অংশ = -২/৫অংশ

বলতে পারবেন, এখানে নেগেটিভ মান পেয়েছি কেন! আসলে একটু খেয়াল করলে দেখতে পারবেন, প্রতি ঘন্টায় যে অংশ ভর্তি হচ্ছে তার চেয়ে বেশি অংশ খালি হচ্ছে (১/২>১/১০), তাই এখানে নেগেটিভ মান এসেছে।তাহলে আমরা বলতে পারি, এখানে আসলে পানি ভর্তি হচ্ছে না বরং প্রতি ঘণ্টায়২/৫অংশ খালি হচ্ছে।তাই এখানে নেগেটিভ মান দিইয়ে মূলত খালি হচ্ছে বুঝানো হয়েছে।এবার তাহলে বলতে পারি, যেহেতু প্রতি ঘণ্টায়২/৫অংশ খালি হচ্ছে, তাহলে মোট৫/২বা২.৫ঘণ্টা লাগবে পুরো ট্যাংকটি খালি হতে।

এবার একটু ভিন্নধরনের সমস্যার দিকে যাওয়া যাক।নিচের সমস্যাটি লক্ষ্য করুন।

একটি ট্যাংকে ৩টি নল আছে।১ম নল ১০ঘন্টায় এবং২য় নল ১০ঘন্টায় ভর্তি করতে পারবে ট্যাংকটি।কিন্তু ৩য় নল দিয়ে প্রতি মিনিটে ৫লিটার করে পানি বের হয়ে যায়। যখন ৩টি নল একত্রে খুলে দেয়া হয় তখন ট্যাংকটি৬২/৩ঘণ্টায় ভর্তি হয়।তাহলে ট্যাংকের ধারণ ক্ষমতা নির্ণয় করতে হবে।

প্রথমে খেয়াল করুন, ৩য় নলটি কতক্ষনে সম্পুর্ন পানি বের করতে পারে, তা কিন্তু বলা হয়নি।তাহলে ধরে নেয়া যাক, ৩য় নলটি ক ঘণ্টায় খালি করতে পারে।তাহলে বলা যায়
৩টি নল একসাথে খুলে দিলে প্রতি ঘণ্টায় ভর্তি হবে = ১/১০ অংশ+ ১/১০ অংশ-১/(ক )অংশ = (ক+ক-১০)/১০কঅংশ
এখন প্রশ্ন থেকে আমরা জানি, ট্যাংকটি ভর্তি হয়৬২/৩ঘণ্টায় বা২০/৩ঘণ্টায়।
প্রশ্নমতে,
২০/৩ ((ক+ক-১০)/১০ক)=১বা সম্পুর্ন অংশ
বা, ((৪০ক-২০০)/৩০ক)=১
বা, ৪০ক – ২০০= ৩০ক
বা, ক = ২০
তাহলে বলতে পারি, ৩য় নল ২০ঘন্টায় খালি করতে পারে।যেহেতু ২০ঘণ্টায় খালি করবে তাহলে বলা যায়, যেমোট২০×৬০=১২০০ মিনিট লাগবে। প্রশ্নে বলা আছে, ৩য় নল দিয়ে প্রতি মিনিটে ৫ লিটার করে পানি বের হয়। তাহলে, যেহেতু ৩য় নল একা ১২০০ মিনিটে খালি করতে পারে, তাই বলা যায়, মোট = ১২০০×৫=৬০০০ লিটার পানি বের করবে।তার মানে হচ্ছে, ট্যাংকে ৬০০০লিটার পানি ধারণ করতে পারে।

এবার আরেকটি সমস্যা নিয়ে আলোচনা করা যাক। ধরুন, ১ম নল ১০ ঘণ্টায় একটি ট্যাংক ভর্তি করতে পারে এবং ২য় নলটি ১০ ঘন্টায় ভর্তি করতে পারে একই ট্যাংক। দুইটি নল একত্রে খুলে দেয়া হল যখন ট্যাংকটি সম্পুর্ন খালি ছিল। ২ ঘন্টা পর ২য় নলটি বন্ধ করে দেয়া হল কতক্ষন সময় লাগবে সম্পুর্ন ট্যাংকটি ভর্তি হতে?

উত্তরঃ যেহেতু, ২ ঘন্টা ২টি নল খোলা থাকবে, সেহেতু প্রথম ২ ঘণ্টার,
প্রতি ঘণ্টায় ভর্তি হবে= ১/১০ অংশ+ ১/১০ অংশ
= (১+১)/১০ অংশ
= ২/১০ অংশ
= ১/৫ অংশ
যেহেতু, প্রতিঘণ্টায়১/৫ অংশভর্তি হবে, সেহেতু ২ ঘণ্টায় ভর্তি হবে = ১/৫ অংশ ×২ = ২/৫ অংশ
এখন, ২য় নল বন্ধ করে দেয়া হবে। তাইএখন প্রতিঘণ্টায় ভর্তি হবে কেবল১/১০ অংশ এবং যেহেতু২/৫ অংশভর্তি হয়েছে, তাই খালি আছে = ১ – ২/৫ অংশ = ৩/৫ অংশ (যেহেতু, সম্পুর্ন বলতে ১ বুঝিয়েছি)
তাহলে বাকি অংশ ভর্তি হতে সময় লাগবে = (বাকিঅংশ)/(প্রতিঘণ্টায়ভর্তিহওয়াঅংশ) ঘণ্টা
= (৩/৫)/(১/১০) ঘণ্টা
= ৩/৫ × ১০ ঘণ্টা
= ৬ ঘণ্টা
তাহলে মোট সময় লাগবে = (৬+২) = ৮ ঘণ্টা

সময়কে কাজে লাগিয়ে পড়াশুনা চালিয়ে যান। সফলতা আসবেই।

লেখা সংক্রান্ত যেকোনো পরামর্শের জন্য আমার ইনবক্সে টেক্সট করতে পারেন। ফেইসবুক আইডি- Avizit Basak

“ Without your involvement you can`t succeed. With your involvement you can`t fail.” -A.P.J. Abdul Kalam

বি দ্রঃ লেখাটাতে শুধু আমার নিজের আইডিয়া অনুযায়ী ধারণা দেয়া হয়েছে। আপনি আপনার মত করেও প্রস্তুতি নিতে পারেন। সফল হবার জন্য যে প্রস্তুতি দরকার, সেটা সম্পন্ন করাটাই মুখ্য কাজ।আর ছোটখাটো ভুল থাকলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন দয়া করে।

দৃষ্টিভঙ্গি বদলান, জীবন বদলে যাবে

মাসুম ইবনে আব্দুন নূর

বর্তমানে চাকরির বাজার মানেই ইংরেজির জয় জয়কার। আর এই ইংরেজীতে দুর্বল হওয়া মানেই হাতের শুন্যস্থান দিয়ে চাকরিটা চলে যাওয়া। প্রতিনিয়ত চলছে নতুন নতুন পদ্ধতি আবিষ্কার, কিভাবে ইংরেজিটাকে ভালো করে শিখা যায়। শুধু আমাদের দেশে নয়,সকল উন্নয়নশীল দেশ গুলোতেই একই অবস্থা। বিশ্বায়নে ঠিকে থাকতে হলে, ইংরেজি ভাষা শিখতেই হবে। তবে আমার মনে হয় পৃথিবীর একটা মাত্র দেশ বাংলাদেশ, যেখানে ইংরেজী ভাষা শিক্ষা দেওয়ার আগে গ্রামার শিক্ষা দেওয়া হয়। ফলে গ্রামারের যাতাকলে পিষ্ট হয়ে শিক্ষার্থীরা চুরমার হয়ে যায় , কিন্তু ইংরেজী ভাষা আর শিখা হয় না অথচ ভাষার জন্ম হইছে আগে , গ্রামার আসছে পরে ।আপনি যদি এক কোটি গ্রামারটিক্যাল রুল জানুন আর কথা না বলেন, তাহলে এই এক কোটি গ্রামারটিক্যাল রুল না, আরো দুই কোটি জানলেও এই গুলো সব হলো বেকামা মানে অকর্মণ্য জানা। আমরা সবাই ইংরেজীতে কথা বলতে চাই । এমন না যে আমরা ইংরেজী জানি না। আমরা সবাই ইংরেজী জানি কারণ – একটা ছাত্র HSC পর্যন্ত আসতে হলে বাধ্যতামুলক ১৭০০ মার্কের ইংরেজি পড়তে হয়। কিন্তু তারপরেও যদি কেউ বলে যে সে ইংরেজি পারে না, তাহলে এটা এক ধরনের মিথ্যা কথা হবে। তাহলে আমাদের সমস্যা কোথায়?? সমস্যা হলো আমাদের ঘর, সমাজ, চারপাশ আর আমার নিজের দৃষ্টিভঙ্গি। আপনি যদি ভারতের বেঙ্গালুরে যান তাহলে দেখতে পারবেন সেখানে একটা রিক্সাওয়ালা পর্যন্তও ইংরেজি তে কথা বলতে পারে? কারণ কি?? কারণ হচ্ছে তাদের দৃষ্টি ভঙ্গি। তাদের দৃষ্টি তে ইংরেজি একটি ভাষা। তারা সেটা একটা ভাষা হিসেবেই নিয়েছে। তাই যে কেউ কথা বললে সেটা তারা সহজ ভাবেই নেয়। কেউ বলে না যে ইংরেজির পাণ্ডিত্য প্রদর্শন করতে আসছস বা তুই ইংরেজি পারস এই জন্য আমাদেরকে কে জানান দেস, যেমন ভাবে আমাদের দেশে কেউ ইংরেজি তে কথা বললে তাকে তার আশেপাশের মানুষেরা একদম হেনস্থা করে দেয়। অনেক মানুষ গ্র‍্যাজুয়েশন, পোষ্ট গ্র‍্যাজুয়েশন করার পরেও দেখা গেলো যে একটানা ১ দেড় ঘন্টার বেশী শুদ্ধ ইংলিশে কথা বলতে পারে না। এখন প্রশ্ন জাগতে পারে ইংরেজী কি গ্র‍্যাজুয়েশনের মাপকাঠি?? না ইংরেজি গ্র‍্যাজুয়েশনের মাপকাঠি না। কিন্তু আমাদের চারপাশ সেটাকে মাপকাঠি বানিয়ে ফেলেছে। তাই এটাকে ছাড়া এখন গাছতলা থেকে ৩০ তলা পর্যন্ত প্রায় সব কিছুই অচল। তাহলে আমাদের সমস্যাটা কোথায়?? ভার্সিটি শুরুর দিক থেকেই অল্প অল্প এই ইংরেজি শিক্ষতার সাথে জড়িত ছিলাম। আমার ক্ষুদ্র শিক্ষকতার অভিজ্ঞতা ও গবেষণায় আমি চারটা প্রধান কারণ বের করতে পেরেছি। এই চারটা কারণকে ব্যাখ্যা করার চেষ্টা করবো।
……
#প্রথম_কারণ:- Counterfeit Starting:- লেখাটার শুরুতেই এই বিষয়টা তুলে ধরলাম। আমাদের ইংরেজি শিক্ষা শুরুর পদ্ধতিটাই গলদ। ক্লাসে টিচার শুরুই করে গ্রামার দিয়ে, ভাষা দিয়ে নয়। তাই ছোট বেলা থেকেই শিক্ষার্থীদেরকে এইরকম একটা মন মানষিকতা তৈরী করে দেয়া হয় যে ইংরেজি ভাষা মানেই গ্রামার। যার কারণে দেখা যায় ইংরেজি গ্রামার শিখতে শিখতে শিক্ষার্থীরা চুরমার হয়ে যায় কিন্তু ইংরেজি ভাষা আর শেখা হয় না। অথচ পৃথিবীতে ভাষা আসছিলো আগে, গ্রামার আসছিলো পরে ভাষা কে, অনুসরণ করার জন্য। কিন্তু আমরা তার উলটাটা করি। ছোট বেলায় দেখতাম একটা জিনিস (এখন আছে কি না জানি না এই গুলো) এমনকি ভার্সিটিতে ভর্তি হওয়ার পরেও দেখেছি, আমাদের সমাজের কতিপয় শিক্ষিত মানুষ রাস্তাঘাটে, হাটে বাজারে কিংবা অন্য যেকোন স্থানে, হঠাৎ করে এসে বলতো ” বলতো রোগী আসিবার পুর্বে ডাক্তার মারা গেলো, কিংবা মুরগী আসার আগে শিয়াল পালিয়ে গেলো ” এই গুলো কোন Tense??? এই সমস্ত লোকদের দৃষ্টি কেউ যদি এই গুলোর উত্তর দিয়ে দিতে পারে তাহলে সেই ছাত্রটা ইংরেজীতে ভালো। কিন্তু এই লোকটাকে যদি বলেন আপনি ৫ প্রকার sentence এর Definition, Formation, Translation সহ at a stretch পাচ মিনিট ইংরেজিতে লেকচার দেন। দেখবেন এই পাচ মিনিটে কমসে কম উনার ৫ গ্লাস পানি খেতে হবে। কারণ কি? কারণ হচ্ছে উনার জ্ঞান ঐ Tense আর কয়েকটা মুখস্থ Translation পর্যন্ত সীমাবদ্ধ। এর বাইরে আর নাই। কিন্তু উনি যে ক্ষতিটা করলেন সেটা হলো ঐ যে ছাত্রটাকে জিজ্ঞেস করলেন, মুরগী আসার আগেই শিয়াল পালিয়ে গেলো এটা কোন Tense, আর By chance স্টুডেন্ট টা যদি উত্তর দিতে না পারলো, তখন সে মনে মনে ধরে নেয় যে ইংরেজি এতো কঠিন, আমার দ্বারা মনে হয় শেখা সম্ভব না। তার পুরো মনোবলটা এখানেই ভেঙ্গে দেয়া হয়। এটাই হলো শুরুর সমস্যা।

#দ্বিতীয়_সমস্যা: Mental vacillation – মানসিক দ্বিধা দ্বন্দ:- মনের মধ্যে সব সময় একটা দ্বিধাজনক অবস্থা, একটা ফোভিয়া কাজ করা, যে আমি ইংরেজি তে কথা বলবো, কিংবা ইংরেজিতে লিখবো যদি ভুল হয় মানুষে আমাকে নিয়ে হাসবে। উপহাস করবে, মকিং করবে ইত্যাদি ইত্যাদি… এই সমস্যা দূর করার জন্য আমি বলবো আপনার দৃষ্টি ভঙ্গিটা এভাবে একটু পরিবর্তন করুন। ভাবুন যে, যার সাথে আমি কথা বলবো তার তিন অবস্থা হতে পারে। হয় সে আমার থেকে বেশী জানে, না হয় আমার সমান জানে, না হয় আমার থেকে কম জানে। যদি তিনি আমার থেকে বেশী জানেন তাহলে আমি যদি ভুল করি উনি আমাকে শুধরে দেবেন। এটা আমার জন্য একটা প্লাস পয়েন্ট কারণ মানুষ তো ভুল থেকেই শিখে – Learning through mistake. আর যদি সে আমার সমান জানে তাহলে তো সে আমার ভুল ধরতেই পারবে না। আবার হাসবে কিভাবে। কারণ আমি যতটুকু জানি সেও ততটুকু জানে। আমার ভুল হলে এই ভুলটাই তার কাছে ঠিক মনে হবে। তাই ভয় পাওয়ার কি আছে?? আর যে আপনার চেয়ে কম জানে সে তো আপনার কোন ভুল ধরারই সাহস পাবে না হাসাহাসি তো দূরের কথা। এরপরেও একদল আছে আপনাকে নিয়ে সমালোচনা করবে, টিজ করবে, বলবে যে আপনি ইংরেজির পাণ্ডিত্য দেখান মানুষ কে জানান যে আপনি ইংরেজী জানেন, তা মানুষের কাছে শো অফ করতেছেন, , আপনাকে নিয়ে মজা নিবে, ফান করবে, গসিপ করবে ইত্যাদি ইত্যাদি…… এদের চিন্তা বাদ দেন। কারণ মনে রাখবেন পৃথিবীতে সব মানুষ তিন ধরনের মৌলিক কণিকা দিয়ে সৃষ্টি যথা Electron, Proton আর Neutron, ঐ যে ব্যাক বাইটাররা অদের শরীরে আরেক ধরণের বিশেষ কনিকা এক্সট্রা আছে যেটার নাম Moron. তাই এরা জন্মগত নির্বোধ। অন্যের সমালচোনায় অরা ব্যাস্ত থাকতে ভালোবাসে। অরা এই ঘুনে ধরা সমাজ ব্যাবস্থার ভাইরাস, ডুবার মধ্যে আবদ্ধ কচুরিপানার মতো থেমে গেছে, তাই আপনার কোন উন্নতি অগ্রগতি ওদের পছন্দ হয় না। আপনাকেও ওরা কোন না কোনভাবে থামিয়ে দিতে চায়। সুতরাং এদের কথায় কান দিয়ে থেমে যাবেন না। আপনি থেমে গেলেই ওরা সফল, সফলতার দিকে আপনার যাত্রা ওদের রাতের ঘুম নষ্ট হওয়ার ঔষধ। ওদের কথায় কান দিবেন না। ওদের প্রতি কোন Antipathyও দেখাবেন না, কোন Sympathyও দেখাবেন না। ওদের প্রতি শুধু এক শব্দ ব্যবহার করুন জাস্ট Ignore. ওদের কে যত Ignore করবেন আপনি তত নিরাপদ। এটা শুধু ইংরেজী শিখার ক্ষেত্রে নয়, জীবনের প্রত্যেকটা ক্ষেত্রে একই নিয়ম । মনে রাখবেন জীবনের সফলতার পথটা অনেক কাদা যুক্ত, আপনি কাদায় হাটবেন আর যদি ভাবেন যে পায়ে কাদা লাগবে না – সেটা তো হতে পারে না। এই চিন্তা করলে তো আপনি সময় মতো গন্তব্যস্থলে পৌছাতে পারবেন না। সুতরাং নির্বোধেরা কি বললো না বললো সেদিকে না থাকিয়ে আপনার লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যান।

#তৃতীয়_কারণ:- Poor Lexis – শব্দভান্ডার অত্যন্ত দুর্বল: আসলে আমাদের অধিকাংশ শিক্ষার্থীদের ভোকাবুলারি অত্যন্ত দুর্বল। দেখা গেলো ইন্টারমিডিয়েট পর্যন্ত শুধু পরীক্ষা পাসের জন্য কিছু শব্দার্থ শিখা হয়। এরপর পরে ভার্সিটি তে উঠার পর নিজের মেজর সাব্জেক্টের চাপে অনান্য পড়াশুনার করার সুযোগ হয় না, প্রায় ভুলে যায়। ভোকাবুলারি তো অনেক দুরের কথা। কিন্তু আপনাকে সুযোগ করে নিতে হবে। কারণ ভাষা আসবে তো শব্দের মাধ্যমে। এখন আমি শব্দই জানলাম না ভালো করে, তাহলে আমি নিজেকে প্রকাশ করবো কিভাবে। আর রাইটিংস এর ক্ষেত্রে ভোকাবুলারি একটা পাওয়ার টনিকের মতো কাজ করে। কেউ যদি একটা ট্রান্সলেশন কিংবা প্যারাগ্রাফ Casual word দিয়ে লিখে আর আরেকজনে সেইম জিনিসটা একটু High frequency Word দিয়ে করে তাহলে মধ্যে মার্কের ব্যবধান কমপক্ষে ২ থেকে ৩ ভেরি করবে। আর কম্পিটিটিভ এক্সামে দুই থেকে তিন মার্কের পার্থক্য বিশাল কিছু। যেমন ধরুন একটা বাক্য কেউ কোন একজন লিখলো – Political crisis is the main obstacle to the
economic growth of a country, সেইম বাক্যটা অন্য একজনে লিখলো ” Political turmoil is the chief impediment to the economic aggrandizement of a country– তাহলে দেখুন একই অর্থ কিন্তু এরপরেও আপনি ধরে নিন প্রথমটা তে যদি কেউ ২ পায় দ্বিতীয়টাতে সে পাবে ৪। তাই শব্দ ভান্ডার বাড়ানোর কোন বিকল্প নেই। আপনি ১০০ টা গ্রামারটিক্যাল নিয়ম জানেন কিন্তু একটা শব্দও জানেন না, আপনি এক মিনিটও কথা বলতে পারবেন না। কিন্তু আপনি ১০০ টা শব্দ জানেন কিন্তু একটাও গ্রামারটিক্যাল রুল জানেন না, আপনি কমপক্ষে ৫ মিনিট হলেও কথা বলতে পারবেন। তাই আবারো বলছি শব্দ ভান্ডার ভাড়ানোর কোন বিকল্প নাই।

#চতুর্থ_কারণ:- Not that much sincere to learn English- ইংরেজী শেখার প্রতি ততটা আন্তরিক না। আসলে আমরা সবাই বলি আমি ইংরেজি শিখতে চাই, আমি ইংরেজি শিখতে চাই….. কিন্তু এই বলাটা আমাদের ঠোট পর্যন্তই সীমাবদ্ধ। আসলে মন থেকে আমরা আন্তরিক না। যার কারণে আমরা মানুষের কাছে শুধু সাজেশনই চেয়ে বেড়াই, কিন্তু সেই মোতাবেক কাজ আর করি না। কিন্তু আমরা যে সময়টা মানুষের কাছ থেকে পরামর্শ চেয়ে বেড়াই এই সময়টা যদি টেবিলে বসে পড়াশুনা করতাম। তাহলে আমার মনে আমাদের অনেকেই ইংরেজী শিখে এর উপর একটা বই পর্যন্ত লিখে ফেলতে পারতো, কিন্তু আমরা সে কাজ টা করি না। তবে মনে রাখতে হবে শিখতে হলে আন্তরিক হতে হবে, বিষয়টাকে ভালবাসতে হবে। কারণ ভালবাসা আর আন্তরিকতা সেটা যেকোন বিষয়ের প্রতিই হোক না কেন, সেটাকে অর্জন সহজ করে দেয় । আর এই ভালোবাসা আর আন্তরিকতা আসবে চারটা P এর মাধ্যমে I believe that. আর সে গুলো হলো
Passion – তীব্র আবেগ/ চাওয়া।
Patience – ধৈর্য্য।
Practice – অনুশীলন।
Prayer – দোয়া।
এই চারটা জিনিসের কম্বিনেশন যার মধ্যে আছে, পৃথিবীর যেকোন জিনিসেই সে অর্জন করতে পারবে। পাশাপাশি এটাও মনে রাখতে হবে অনুশীলনের ক্ষেত্রে ধারাবাহিতা বিশাল একটা ফ্যাক্টর। প্রতিদিন ১০ মিনিট অনুশীলন করা, সপ্তাহে একদিন ১০ ঘন্টা প্র‍্যাক্টিস করার চেয়েও কার্যকরী। যদি একা একা পড়তে ভালো না লাগে, তাহলে ফ্রেন্ডদের সাথে গ্রুপ স্টাডি করেন, যদি সেখানেও ভালো না লাগে, তাহলে পারলে কোন কোচিং গিয়ে ইংরেজী শিখেন (বি:দ্র:- আমি ইংরেজী শিখার জন্য কোন কোচিং এ কখনো যাই নাই তবে অনেক কোচিং এর বই কিনে পড়েছি ব্যক্তিগত ভাবে) । তারপরেও বসে থাকবেন না। যারা বাসায় একা একা পড়েন আমি তাদের ইংরেজী শিখার জন্য নিচে ছোট একটা রুটিন দিলাম। এটা অনুসরণ করুন বেশী না শুধু একমাস মাস। এর পর পার্থক্যটা নিজেই বুঝুন। প্রতিদিন যেভাবে ইংরেজীর প্রস্তুতি সমৃদ্ধ করবেন।

১. নতুন ভোকাবুলারি কমপক্ষে ১০ টা ।
২. Idioms and Phrase ১০ টা।
৩. Appropriate preposition ১০ টা।
৪. Group verb কমপক্ষে ১০ টা।
৫. Sentence making structure ৫ টা।
৬. Translation কমপক্ষে ২ টা।
৭. Grammatical Rule কমপক্ষে ৫ টা।
এক থেকে দেড় ঘন্টার বেশী লাগবে না। তবে Consistency ম্যানটেইন করা খুব জরুরী। Per idem দেখবেন আপনি খুব Adroit হয়ে যাচ্ছেন ।

ইনশাআল্লাহ জব হবেই হবে। আল্লাহ আমাদের সবাইকে কামিয়াব করুন।


বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষা প্রস্তুতিঃ বাংলা

অভিজিৎ বসাক
বিসিএস ( প্রশাসন)
৩৩তম বিসিএস

বিসিএস পরীক্ষার প্রথম চ্যালেঞ্জ হলো প্রিলিমিনারি পরীক্ষা। কিন্তু আপনি যদি একটু টেকনিক অবলম্বন করে, সঠিক পরিকল্পনা করে পড়াশুনা করেন, তাহলে খুব অল্প সময়েই ভাল মার্ক পাওয়া সম্ভব।

বাংলা সাহিত্য: বাংলা থেকে সাধারণত দুই ধরনের প্রশ্ন করা হয়। ১. বাংলা ভাষা ও ব্যাকরণ ২. বাংলা সাহিত্য । বিগত কয়েক বছরের প্রশ্নগুলো খেয়াল করলেই দেখতে পাবেন যে- ভাষা ও ব্যাকরণের থেকে সাহিত্য অংশ থেকেই বেশি প্রশ্ন দেওয়া হচ্ছে। তাই সাহিত্য অংশের জন্য বেশি সময় রাখতে হবে।

সাহিত্য অংশে সবচেয়ে বেশি প্রশ্ন হয়- গ্রন্থের নাম ও সেসব গ্রন্থের চরিত্র, মধ্যযুগের সাহিত্য, বিভিন্ন কবি ও সাহিত্যিকের উক্তি ও উদ্ধৃতি, রবীন্দ্রনাথের সাহিত্য, বিভিন্ন বাংলা পত্রিকা ও ম্যাগাজিনের নাম, বিভিন্ন রচনার ধরণ(কোনটি কবিতা, কোনটি উপন্যাস ইত্যাদি), রবীন্দ্র-পূর্ববর্তী সাহিত্য, বাংলাদেশের সাহিত্য, নাটকের উৎপত্তি ও বিকাশ, মহান ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ সাহিত্য ইত্যাদি থেকে। এই অংশগুলো থেকে প্রচুর প্রশ্ন থাকলেও আমাদের আরও কিছু বিষয় থেকে মাঝে মাঝেই প্রশ্ন আসে। যেমন- বাংলা সাহিত্যের প্রাচীন যুগ, আধুনিক যুগ, বাংলা গদ্যের বিকাশ, প্রবন্ধের উৎপত্তি, ছন্দ প্রকরণ, বাংলা গান, বাংলা অভিধান ইত্যাদি। তবে পড়া শুরু করার আগে অবশ্যই বিগত বছরের প্রশ্নগুলো একবার করে দেখে নেবেন। আর যদি সেগুলো বুঝে বুঝে সমাধান করতে পারেন তাহলে আরও ভাল হয়।

কোন বই থেকে পড়বেন ? বাংলা সাহিত্যের জন্য ভাল প্রস্তুতি নিতে ড. হুমায়ুন আজাদের লেখা- “ লাল নীল দীপাবলি” বইটিকে ভালমতো পড়তে পারেন। এই বইটিতে লেখক বাংলা সাহিত্যের শুরু, ক্রমবিকাশ ও পরিণতি সম্পর্কে একদম বিস্তারিত আলোচনা করেছেন। বইটিতে বিভিন্ন লেখকের উল্লেখযোগ্য বিভিন্ন সাহিত্যের রচনার সময়ও উল্লেখ করা আছে। বাংলা সাহিত্যের প্রচুর তথ্য খুব গুছিয়ে দেয়া আছে। এছাড়াও স্কুল এবং কলেজে আমরা যে বাংলা পাঠ্যপুস্তকগুলো পরেছি সেগুলো একটু করে দেখে নিতে হবে। তবে অষ্টম শ্রেণী থেকে দ্বাদশ শ্রেণী পর্যন্ত বাংলা বইগুলোকে খুব ভালমতো পড়ে নিতে হবে। বিশেষ করে কবি ও লেখক পরিচিতি অংশটুকু খুব ভালমতো পড়তে হবে। লেখক পরিচিতিটুকু পাঠ্য বই থেকে পড়লে সহজেই বুঝতে পারবেন। তাই পাঠ্যপুস্তক আবশ্যিক। এছাড়াও বিভিন্ন ধরণের গাইড বই, জব সল্যুশন, ভাষা ও সাহিত্য জিজ্ঞাসা(লেখক-সৌমিত্র শেখর), কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স ইত্যাদি ছাড়াও বিভিন্ন কবি ও সাহিত্যিকের জন্মজয়ন্তী ইত্যাদি সময়ে প্রকাশিত বিভিন্ন ম্যাগাজিন থেকে বিভিন্ন প্রয়োজনীয় তথ্যগুলো পড়তে পারেন।

কিভাবে পড়বেন? বাংলা সাহিত্য আসলে বিশাল এক অধ্যায়। এই বিশাল সাহিত্য ভাণ্ডারের সব তথ্য মনে রাখা আসলে প্রায় অসম্ভব। তাই আপনাকে বুঝতে হবে কোনটি বেশি গুরুত্বপূর্ণ আর কোনটি অপেক্ষাকৃত কম। যেমন- আপনারা খেয়াল করলেই দেখবেন শুধুমাত্র রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উপরই প্রতি বছর বেশ কয়েকটি প্রশ্ন থাকে। সুতরাং রবীন্দ্রনাথ সম্পর্কে খুব ভালমতো পড়ে ফেলতে হবে, যেন এক নম্বরও বাদ না পড়ে। অর্থাৎ আপনি ইচ্ছেমত বা ভাল লাগার উপর সময় না দিয়ে বেছে বেছে কোন অংশ থেকে বেশি প্রশ্ন হয় সেই অংশগুলো একদম ভালমতো পড়তে হবে। প্রচুর কবি ও সাহিত্যিকের সাহিত্যকর্ম মনে রাখতে গিয়ে অনেকেই অসুবিধায় পরেন। আসলে এ নিয়ে ভয় পাবার কিছুই নেই। যে জিনিসগুলো আপনার ভাল লাগে না কিন্তু খুব গুরুত্বপূর্ণ সেগুলোকে বার বার পড়তে থাকুন। দেখবেন এমনিতেই মনে থাকা শুরু করেছে। আমাদের মস্তিষ্কের কাজই হলো- পরিচিত কিছুকে মনে রাখা। আপনার অপরিচিত বলেই ঐ বিষয়টা মনে থাকছে না। কিন্তু যখন বার বার পড়বেন তখন ঠিকই মস্তিষ্কের কাছে সেটা পরিচিত হয়ে যাবে।

সাহিত্য আসলে আমাদের জীবনের সাথে জড়িয়ে আছে। আমাদের জীবনের বিভিন্ন উপাদান, দুঃখ, হাসি, বেদনা ইত্যাদির গল্প নিয়েই সাহিত্যিকরা তাদের উপন্যাস/গল্প/কবিতা সৃষ্টি করেন। বিভিন্ন বিখ্যাত সাহিত্যকর্ম সম্পর্কে যদি আগে থেকেই কিছুটা ধারণা থাকে তাহলে সাহিত্যের বিভিন্ন বিষয় পড়ে মজা পাওয়া যায়। আর এই মজা পাওয়াটাই কিন্তু খুব কাজে আসে। আপনি যদি কোন কিছুতে মজা না পান, তাহলে নিশ্চিত থাকতে পারেন যে- সেখানে আপনার মনোযোগ থাকবে না। আর মনোযোগ না থাকলে কোনকিছুতেই আপনি ভাল করতে পারবেন না। তাই কিছু বিখ্যাত সাহিত্য বিষয়ে ধারণা নিয়ে নিন দেখবেন সাহিত্য ও সাহিত্যিকদের জীবন ও কর্ম নিয়ে তথ্য মনে রাখতে আর বিরক্তি লাগছে না। মধ্যযুগের সাহিত্য থেকে অনেক প্রশ্ন আসে। মধ্যযুগে মূলত বিভিন্ন দেব-দেবী ও ধর্মীয় বিষয় নিয়েই সাহিত্য রচিত হয়েছে। সহজে মনে রাখার জন্য বিভিন্ন মঙ্গল কাব্য, এগুলোর লেখক সময় ইত্যাদি নিয়ে একটি ছকের মত তৈরি করে ফেলতে পারেন। যেন এই ছক দেখলেই মধ্যযুগের সাহিত্য সম্পর্কে সবকিছু একবার ঝালাই করে নিতে পারেন। বিভিন্ন মঙ্গলকাব্য ও একই রকম নামের লেখকদের নিয়ে অনেক সময়ই প্যাচ লেগে যায়। কিন্তু আপনি যদি একটি ছকের মধ্যে তাদের জায়গা দিতে পারেন তাহলে এদের মধ্যে পার্থক্যগুলো আপনার কাছে খুব ভালমতো পরিচিত হয়ে যাবে।

মনে রাখার একটি সহজ উপায় হলো- কোন কিছুর সাথে তুলনা দিয়ে বা কোন একটি ছড়ার মত করে মিলিয়ে মনে রাখা। যদিও এই পদ্ধতিটি অনেকেই পছন্দ করেন না, তবে প্রথমদিকে মস্তিষ্ককে পরিচিত করানোর জন্য এই পদ্ধতি প্রয়োগ করতে পারেন। এতে আপনার সময় কম লাগবে। এভাবে বিভিন্ন ধরণের কৌশল কাজে লাগিয়ে আপনাকে কম সময়ের মধ্যে বেশি তথ্য মনে রাখতে হবে। এজন্য কখনো হয়ত ছক তৈরি করা লাগতে পারে, আবার কখনো হয়ত বিখ্যাত একটি সাহিত্যকর্ম পড়েও দেখা লাগতে পারে।

লক্ষ্য স্থির করে পড়াশুনা চালিয়ে যান। সফলতা আসবেই। আজ এ পর্যন্তই থাক। সবাই ভাল থাকবেন।

লেখা বিষয়ে কোন পরামর্শ থাকলে আমার ইনবক্সে যোগাযোগ করতে পারেন। ফেইসবুক আইডিঃ Avizit Basak

“Don’t spend time beating on a wall, hoping to transform it into a door. ” ― Coco Chane


বি দ্রঃ লেখাটাতে শুধু আমার নিজের আইডিয়া অনুযায়ী ধারণা দেয়া হয়েছে। আপনি আপনার মত করেও প্রস্তুতি নিতে পারেন। সফল হবার জন্য যে প্রস্তুতি দরকার, সেটা সম্পন্ন করাটাই মুখ্য কাজ।আর ছোটখাটো বা অনিচ্ছাকৃত কোনও ভুল থাকলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন দয়া করে।

বিসিএস পরীক্ষায় ভাল করার কৌশলঃ আন্তর্জাতিক বিষয়াবলী

অভিজিৎ বসাক
বিসিএস ( প্রশাসন)
৩৩তম বিসিএস

প্রিলিমিনারি পরীক্ষায় ভাল করার জন্য প্রশ্নের মান-বণ্টনের বিষয়টি মাথায় রাখতে হয়। প্রস্তুতি নেবার শুরুতেই কতটুকু সময় নিয়ে আপনি এই বিষয়ে প্রস্তুতি নেবেন তা ঠিক করে নিন। এরপর বিগত বছরের প্রশ্নগুলো ভালমতো দেখে নিতে হবে। এতে প্রশ্নের ধরণ সম্পর্কে আপনার একটি ধারণা তৈরি হয়ে যাবে। আন্তর্জাতিক বিষয়াবলীতে তুলনামূলক কম নম্বর থাকলেও প্রচুর তথ্য মাথায় রাখতে হয়। ফলে অনেক সময় পরীক্ষার হলে প্রশ্নের উত্তর নিয়ে দ্বিধা-দ্বন্দ্বের মধ্যে পড়তে হয়।

তাই অনেকগুলো বিষয় হালকা-ভাবে না শিখে, তুলনামূলক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়গুলো ভালমতো শেখা উচিত। বৈশ্বিক ইতিহাস ও সভ্যতা অংশটুকু নবম দশম শ্রেণীর- “বাংলাদেশ ও বিশ্ব-পরিচয়” এবং “বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্ব সভ্যতা” বইদুটি থেকে পড়তে পারেন। তবে এই দুই বইয়ের সবটুকু কিন্তু আপনার পড়ার প্রয়োজন নেই। এই বই দুটি থেকে সিলেবাসে যে যে টপিক আছে সেটুকু শিখে ফেলতে হবে। সাথে একটি ভাল গাইড বইও রাখতে পারেন। গাইড বইয়ে বিভিন্ন তথ্য কম্পাইল করা আছে। ফলে পুনরায় পড়ার ক্ষেত্রে সুবিধা হবে।

বিগত বছরের প্রশ্ন ভাল করে লক্ষ্য করে দেখবেন- মানব সভ্যতার ইতিহাসে কিছু গুরুত্বপূর্ণ ঘটনা ও ব্যক্তিত্ব আছে যেগুলো থেকে প্রায়ই প্রশ্ন করা হয়। যেমন- সভ্যতার বা স্থানের ক্ষেত্রে- মেসোপটেমিয়া, মিশরীয় সভ্যতা, হরপ্পা-মহেঞ্জোদারো, হোয়াংহো নদী, নীল নদ ইত্যাদি ; ব্যক্তিত্বের ক্ষেত্রে নেপোলিয়ন, অ্যালেকজান্ডার, ইত্যাদি। এসব তথ্যগুলো সবার প্রথমে শিখে নেবেন। এরপর প্রস্তুতির অগ্রগতির উপর নির্ভর করে যত বিষয় কাভার করা যায় সে চেষ্টা করতে হবে।

বিশ্বের সাম্প্রতিক ও চলমান ঘটনাপ্রবাহের জন্য ভাল একটি মাসিক কারেন্ট ম্যাগাজিন থেকে শিখতে পারেন। যেগুলো বেশি গুরুত্বপূর্ণ মনে হয়, সেগুলোকে লাল বা সবুজ কালি দিয়ে মার্ক করে রাখতে পারেন। এগুলো নোট করলে সময় নষ্ট হয়। তাই নোট না করাই ভাল। এর পাশাপাশি, এই ধরণের বিষয়গুলোর সাথে আপ টু ডেট থাকার জন্য আপনি পত্রিকা বা ভাল দু তিনটি অনলাইন নিউজ পোর্টাল সাবস্ক্রাইব করে রাখতে পারেন। এখন দেখবেন অনলাইন নিউজ পোর্টালগুলো ডেক্সটপ নোটিফিকেশনের ব্যবস্থাও রেখেছে। ফলে আপনি চাইলে খুব সহজেই এসব বিষয়ে খবর রাখতে পারবেন। ডয়েচ ভেল বাংলা, বিবিসি বাংলার মত ভাল কিছু পোর্টাল বাংলাতেই আছে। আর এই পোর্টালগুলো বিশেষ বিশেষ সাম্প্রতিক ইস্যু নিয়ে পয়েন্ট আকারে ফিচার করে। এসব ফিচারে ৫ মিনিট চোখ বুলালেই আপনি বিষয়টি মাথায় রাখতে পারবেন। এদের ওয়েবপোর্টাল ছাড়াও, এমন দু তিনটি বিদেশি বাংলা পোর্টালের ফেসবুক পেজ ফলো করে রাখতে পারেন। এতে ফেসবুকে লগিন করলেও ফিডে এই বিষয়গুলো চোখে পড়বে।

আঞ্চলিক ও আন্তর্জাতিক ব্যবস্থা ও ভূ-রাজনীতি অংশে মূলত বিভিন্ন মহাদেশের বিভিন্ন অংশ, ভূমিরূপ, ভৌগলিক উপনাম, সরকার ব্যবস্থা, পুরাতন নাম-নতুন নাম, উপজাতি, এগুলো থেকেই বেশি প্রশ্ন হয়ে থাকে। বিভিন্ন মহাদেশের বিখ্যাত বন্দর, স্থাপত্য, কোন দেশ কোনটি উৎপাদনে সেরা, কোন মহাদেশের সবথেকে বড়/ছোট শহর, কোন দেশ কোন দেশের উপনিবেশ ছিল, কোন অঞ্চলের বিশেষ উপজাতি এই ধরণের প্রশ্নই বেশি আসে। তবে এক্ষেত্রে সাম্প্রতিক ইস্যু খুব বড় একটি বিষয়। আপনার জানেন যে- বর্তমানে রোহিঙ্গা ইস্যু একটি আলোচিত বিষয়। খেয়াল করে দেখবেন- ইতিমধ্যেই প্রতিযোগিতামূলক পরীক্ষায় রোহিঙ্গাইস্যু নিয়ে প্রশ্ন এসেছে। এরপর চীনের উইঘুর সম্প্রদায়ের উপর চীন সরকার কিছু নিষেধাজ্ঞা দেয়। ফলে পৃথিবীর বড় বড় সংবাদমাধ্যমগুলো এটা নিয়ে নিউজ করে। এবং আপনি খেয়াল করলে দেখবেন এর ফলে বিগত কয়েকটি পরীক্ষায় উইঘুর সম্প্রদায় নিয়ে প্রশ্ন হয়েছে।ফলে আন্তর্জাতিক বিষয়াবলীতে ভাল করতে হলে- পৃথিবীর সাম্প্রতিক ঘটনাপ্রবাহের উপর একটু নজর রাখলেই আপনি অনেকখানি এগিয়ে থাকবেন।

আন্তর্জাতিক নিরাপত্তা ও আন্তঃ-রাষ্ট্রীয় ক্ষমতা সম্পর্ক অংশটুকু ভাল একটি সাধারণ জ্ঞানের বই থেকে শিখতে পারেন। এই অংশে আসলে প্রশ্ন করার মত প্রচুর উপাদান রয়েছে। ফলে এই অংশে ভাল করতে হলে আপনাকে অনেক পরিশ্রম করতে হবে। ইতিহাসের বিভিন্ন বিখ্যাত যুদ্ধ, গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিভিন্ন বিরোধপূর্ণ অঞ্চল- যেমন ভারত-পাকিস্তান-তিব্বত-চীনের মধ্যে যে বিরোধপূর্ণ অঞ্চল রয়েছে সেগুলো, বিশ্বযুদ্ধের সময় ব্যাবহার করা বিভিন্ন সামরিক ঘাটি, বিশ্বের বিখ্যাত গোয়েন্দা সংস্থাসমূহ, বিভিন্ন দেশের সীমান্তরক্ষী বাহিনী, বিভিন্ন দুর্ধর্ষ গেরিলা সংগঠন, বিভিন্ন যুদ্ধবিরতি চুক্তি, ঐতিহাসিক সনদ ইত্যাদি থেকেই বেশি প্রশ্ন হয়ে থাকে।আন্তর্জাতিক সংগঠনগুলোর মধ্যে সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ হলো জাতিসংঘ। তাই সবার প্রথমে জাতিসংঘ বিষয়ক জিনিসগুলো শিখে নেবেন। জাতিসংঘের উৎপত্তি, বিশেষায়িত সংস্থা, বিভিন্ন উদ্যোগ, ঘোষণা ইত্যাদি বেশ গুরুত্বপূর্ণ। বিভিন্ন রাজনৈতিক ও সামরিক জোট থেকেও প্রায়ই প্রশ্ন হয়। অর্থনীতিক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে বিশ্বব্যাংক, IDB, IMF এগুলো বেশি গুরুত্বপূর্ণ। অর্থনৈতিক জোটের মধ্যে BRICS তুলনামূলক অনেক নতুন জোট। BRICS খুব গুরুত্বপূর্ণ একটি সংগঠন। তাই এটি থেকে প্রশ্ন আসার সম্ভাবনা বেশি। এছাড়াও G-8, G-20, ওপকও বেশ গুরুত্বপূর্ণ।

বিভিন্ন আন্তর্জাতিক বাণিজ্য চুক্তি থেকেও প্রায়ই প্রশ্ন হয়। এগুলোর পাশাপাশি অন্যান্য কিছু আলোচিত সংস্থা থেকেও প্রশ্ন হয়ে থাকে। প্রতিটি অধ্যায় শুরুর আগে একটি সাধারণ ধারণা নিয়ে নিতে পারলে সহজে পরিকল্পনা করতে পারবেন। সঠিক পরিকল্পনা নিয়ে, লক্ষ্য স্থির করে সময়কে কাজে লাগাতে থাকুন। সফলতা আসবেই।

“It’s a lie to think you’re not good enough. It’s a lie to think you’re not worth anything.” ― Nick Vujicic

লেখা সংক্রান্ত যেকোনো পরামর্শের জন্য আমার ফেসবুক inbox এ লিখতে পারেন। Facebook ID: Avizit Basak

বি দ্রঃ লেখাটাতে শুধু আমার নিজের আইডিয়া অনুযায়ী ধারণা দেয়া হয়েছে। আপনি আপনার মত করেও প্রস্তুতি নিতে পারেন। সফল হবার জন্য যে প্রস্তুতি দরকার, সেটা সম্পন্ন করাটাই মুখ্য কাজ।আর ছোটখাটো বা অনিচ্ছাকৃত কোনও ভুল থাকলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন দয়া করে।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরির প্রস্তুতি


মোঃ হামিদ পারভেজ
সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি)
দৌলতখান সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ভোলা।

আসসালামু আলাইকুম, আশা করি আপনারা ভাল আছেন। কিছুদিন পরেই শুরু হবে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা। এবার এত বেশি প্রার্থী পরীক্ষায় অংশ নিবে যে একসাথে সবার পরীক্ষা নেওয়া সম্ভব হবে না। তাই অঞ্চলভিত্তিক আলাদাভাবে পরীক্ষা নেওয়া হবে।

আপনারা জানেন বর্তমানে দেশের শিক্ষিত বেকারদের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন একটি চাকরি। কারন একটি চাকরির সাথে জড়িয়ে আছে আপনার জীবনের অনেককিছু। আপনাদের মধ্যে যারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিবেন তারা কিভাবে প্রস্তুতি নিবেন আজ তা নিয়ে লিখছি।

এই পরীক্ষার মোট নম্বর ১০০, এর মধ্যে লিখিত পরীক্ষার নম্বর ৮০ আর মৌখিক পরীক্ষার নম্বর ২০। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে আপনাকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য ডাকা হবে। লিখিত পরীক্ষা নেয়া হবে এমসিকিউ পদ্ধতিতে। বিষয় গুলো হচ্ছে বাংলা, গণিত, ইংরেজি ও সাধারণ জ্ঞান। প্রতিটি বিষয় থেকে ২০টি করে মোট ৮০ টি নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি প্রশ্নের মান ১। প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ নম্বর কাটা যাবে। অর্থাৎ চারটি উত্তর ভুল হলেই প্রাপ্ত নম্বর থেকে ১ নম্বর কাটা যাবে।

আপনাকে প্রতিটি বিষয়ের জন্যই আলাদাভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। আপনি যদি ৮০ এর মধ্যে ৭০+ নম্বর পান তাহলে আপনি সেইফ জোনে থাকবেন। তাই প্রস্তুতি নিতে হবে ভালভাবে। কোন অবহেলা করা যাবেনা। কারন আপনাকে কয়েক লক্ষ প্রার্থীর সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবে আর একটি চাকরির সাথে আপনার জীবন ও ভবিষ্যৎ জড়িত।

কি কি পড়বেন ও কিভাবে পড়বেন-
বাংলাঃ

প্রথমেই আসি বাংলা নিয়ে। বাংলা অংশে ব্যাকরণের ওপর বেশি জোর দিতে হবে। অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির বোর্ড প্রণীত ব্যাকরণ বইয়ের সব অধ্যায় উদাহরণসহ ভালোভাবে পড়তে হবে। জানতে হবে কবি-সাহিত্যিকদের সাহিত্যকর্ম ও জীবনী সম্পর্কে। এসএসসি বোর্ড বইয়ের লেখক পরিচিতি বা সাহিত্যিক পরিচিতি অংশ পড়লে অনেকটা সহায়ক হবে। ব্যাকরণ থেকে ভাষা, বর্ণ, শব্দ, সন্ধি বিচ্ছেদ, কারক, বিভক্তি, উপসর্গ, অনুসর্গ, ধাতু, সমাস, বানান শুদ্ধি, পারিভাষিক শব্দ, সমার্থক শব্দ, বিপরীত শব্দ, বাগধারা, এককথায় প্রকাশ থেকে প্রশ্ন আসে। সাহিত্য অংশে গল্প বা উপন্যাসের রচয়িতা, কবিতার লাইন উল্লেখ করে কবির নাম থেকে প্রশ্ন আসতে পারে। এই সব গুলো বিষয় যে কোন গাইডে গুছিয়ে দেওয়া আছে। সেখান থেকে পড়তে পারেন।

ইংরেজিঃ
ইংরেজি গ্রামারের Right forms of verb, Tense, Preposition, Parts of Speech, Voice, Narration, Spelling, Sentence Correction- থেকে প্রশ্ন আসে। Advance Learners by Chowdhury and Hossain বা অন্য যে কোন গ্রামার বই থেকে গ্রামারের এই টপিকস গুলো উদাহরণসহ পড়ুন। মুখস্থ করতে হবে Phrase and Idoims, Synonym, Antonym। ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদও পড়তে হবে। এজন্য ২০১৫-১৮ সালের বিভিন্ন সরকারি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান করতে পারেন।

গণিত :
এই অংশে মার্কস পাওয়া তুলনামূলক ভাবে সহজ। প্রতিদিন ২-৩ ঘণ্টা গণিত প্রাকটিস করা দরকার। পাটিগণিতের পরিমাপ ও একক, ঐকিক নিয়ম, অনুপাত, শতকরা, সুদকষা, লাভক্ষতি, ভগ্নাংশ থেকে প্রশ্ন আসে। বীজগণিতের সাধারণ সূত্রাবলী থেকে প্রশ্ন থাকে। মুখে মুখে ও সূত্র প্রয়োগ করে সংক্ষেপে ফল বের করার প্র্যাকটিস করতে হবে। যাতে প্রশ্ন দেখামাত্রই সূত্র প্রয়োগ করে ফল বের করা যায়। জ্যামিতির জন্য ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, বর্গক্ষেত্র, রম্বস, বৃত্ত ইত্যাদির সাধারণ সূত্র ও সূত্রের প্রয়োগ প্রাকটিস করবেন। মাধ্যমিক পর্যায়ে পাঠ্যবই যেমন অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির গণিত বই অনুসরণ করলে ভালো হবে। এছাড়া যে কোন গাইড বইয়ের গণিত অংশটুকু ভাল ভাবে করলেই হবে।

সাধারণ জ্ঞানঃ
বাংলাদেশ বিষয়াবলী থেকে প্রশ্ন বেশি আসে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের শিক্ষা, ইতিহাস, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ, ভূপ্রকৃতি ও জলবায়ু, সভ্যতা ও সংস্কৃতি, বিখ্যাত স্থান, বাংলাদেশের রাষ্ট্র ব্যবস্থা, অর্থনীতি, বিভিন্ন সম্পদ, জাতীয় দিবস থেকে প্রশ্ন আসতে পারে।

আর আন্তর্জাতিক অংশে বিভিন্ন সংস্থা, দেশ, মুদ্রা, রাজধানী, দিবস, পুরস্কার ও সম্মাননা, খেলাধুলা থেকে প্রশ্ন থাকে।
আর সাম্প্রতিক বিষয়ের জন্য মাসিক কারেন্ট এ্যাফেয়ার্স পড়তে পারেন।

সাধারণ বিজ্ঞান থেকে বিভিন্ন রোগব্যাধি, খাদ্যগুণ, পুষ্টি, ভিটামিন থেকে প্রশ্ন আসতে পারে।

কম্পিউটার ও আইসিটি থেকেও প্রশ্ন থাকে। আপনি কম্পিউটার ও আইসিটির বেসিক বিষয় গুলো ভালভাবে আয়ত্ব করবেন।

বিজ্ঞান, আইসিটি ও কম্পিউটার এর জন্য ২০১৫-১৮ সালের বিভিন্ন পরীক্ষায় আসা প্রশ্ন গুলো ভালভাবে পড়লে বেশ কিছু কমন পেতে পারেন।

এইভাবে পড়লে আশা করি আপনি প্রিলিতে ভাল নম্বর পাবেন। তবে আপনি চাইলে যিনি আরো ভাল জানেন বা নিজের পরামর্শ অনুযায়ী প্রস্তুতি নিতে পারেন। তবে যেভাবেই নেন না কেন আপনাকে পড়তে হবে পরিশ্রম করতে হবে। ৩০ বছর যে চাকরি করে আপনার জীবন চলবে সেই চাকরির জন্য অন্তত দৈনিক ১০ ঘণ্টা করে পড়ালেখা করুন।

পড়ুন, পরিশ্রম করুন, প্রার্থনা করুন এবং পড়ুন। আপনি যদি ভালভাবে পড়েন সেটা কোন না কোন জবে ঠিকই কাজে লাগবে। পড়ালেখা কখনো বৃথা যায় না। কোন না কোন ভাবে এর সুফল আপনি পাবেনই। ভাল প্রস্তুতির মাধ্যমেই ভাল পরীক্ষা দেওয়া যায়। আর পরীক্ষা ভাল হলে জব হওয়াটা সহজ। যারা নেগেটিভ কথা বলবে তাদের থেকে দূরে থাকুন। ভাল থাকবেন। আল্লাহ সবার কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দিন।

মোঃ হামিদ পারভেজ
সহকারী শিক্ষক (ইংরেজি)
দৌলতখান সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়, ভোলা।

স্বয়ংক্রিয়ভাবে মেধাতালিকা অনুযায়ীই শিক্ষক নিয়োগ

সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় পদ্ধতিতে মেধাতালিকা অনুযায়ী বেসরকারি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানে শিক্ষক নিয়োগ করা হবে। এ ব্যাপারে প্রভাব বিস্তার ও অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই।

তাই অহেতুক তদবির না করতে নিয়োগপ্রত্যাশীদের আহ্বান জানিয়েছেন বেসরকারি শিক্ষক নিয়োগ ও প্রত্যয়ন কর্তৃপক্ষের (এনটিআরসিএ) চেয়ারম্যান ড. এসএম আশফাক হুসেন।

রোববার ‘নিয়োগ প্রার্থীদের প্রতি অনুরোধ’ শিরোনামে প্রকাশিত এক বিজ্ঞপ্তিতে এই আহ্বান জানিয়ে ড. হুসেন বলেন, নিয়োগপ্রত্যাশীরা আবেদনের শেষদিন থেকেই বিভিন্ন প্রভাবশালী ব্যক্তির মাধ্যমে প্রভাবিত করার চেষ্টা করছেন। কিন্তু নিয়োগের সুপারিশ প্রণয়নের কার্যক্রমটি সম্পূর্ণ স্বচ্ছ এবং মনুষ্য প্রভাবমুক্ত কম্পিউটারচালিত স্বয়ংক্রিয় প্রক্রিয়া।

যেখানে মানুষ চাইলেও কোনো প্রভাব বিস্তার করতে পারবেন না। মেধাতালিকাক্রমে নিয়োগের সুপারিশ করা হবে এবং তা প্রার্থীরা নিজে দেখতে পারবেন। তাই এখানে অনিয়মের কোনো সুযোগ নেই। বিজ্ঞপ্তিতে সবশেষে ‘প্লিজ হেল্প আস টু হেল্প ইউ’ উল্লেখ করে আরও বলা হয়, নিয়োগে সামান্যতম অনিয়মের সুযোগ নেই। কেবল যোগ্যতমরা নিয়োগের সুপারিশ পাবেন, আমরা তার প্রতিশ্রুতি দিচ্ছি।

তদবির নিয়োগের কাজকে বিলম্বিত করবে, কিন্তু প্রভাবিত করতে পারবে না। তাই ফল দ্রুততম সময়ে প্রকাশের নিমিত্তে কর্মকর্তাদের সহযোগিতা করার আহ্বান জানিয়েছে এনটিআরসিএ।

উল্লেখ্য, প্রায় ২ বছর পর সারা দেশের বেসরকারি স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসায় প্রায় ৪০ হাজার শূন্যপদে নিয়োগের লক্ষ্যে সার্কুলার জারি করা হয়। প্রায় ৩১ লাখ প্রার্থী আবেদন করেছেন। তাদের কেউ পছন্দের জায়গায় নিয়োগ চান, কেউবা চান যে কোনো স্থানে যে কোনো মূল্যে নিয়োগ। এমন নানা প্রত্যাশা থেকে বর্তমানে তদবির প্রক্রিয়া মহাসমারোহে এগিয়ে চলছে।

Source: jugantor.com

প্রাথমিকের শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষা ১ ফেব্রুয়ারি

আগামী ১ ফেব্রুয়ারি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ‘সহকারী শিক্ষক’ নিয়োগের পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

এমসিকিউ পদ্ধতির লিখিত পরীক্ষা নিতে ইতিমধ্যে সার্বিক প্রস্তুতি গ্রহণ করেছে প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এ ছাড়া-পরবর্তী দুই মাসের মধ্যে মৌখিক পরীক্ষার শেষ করা হবে।

প্রাথমিক শিক্ষা অধিদফতরের মহাপরিচালকের ড. মো. আবু হেনা মোস্তফা কামাল যুগান্তরকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

এবার প্রাথমিকে সহকারী শিক্ষক নিয়োগ পরীক্ষায় ২৪ লাখের বেশি চাকরিপ্রত্যাশী আবেদন করেছেন।

সারা দেশে ১২ হাজার আসনের বিপরীতে তারা এ ভর্তিযুদ্ধে বসবেন।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, গত বছরের ডিসেম্বর মাসে নিয়োগ পরীক্ষা শুরু হওয়ার কথা থাকলেও নানা কারণে তা পিছিয়ে যায়। আগামী ১ ফেব্রুয়ারি লিখিত পরীক্ষা আয়োজনের লক্ষ্যমাত্রা নিয়ে প্রস্তুতি শেষ করা হয়েছে।

এ ছাড়া-পরবর্তী দুই মাসের মধ্যে মৌখিক পরীক্ষা শেষ করার চিন্তা-ভাবনা রয়েছে বলে জানা গেছে।

আগামী সপ্তাহে মন্ত্রণালয়ে নিয়োগসংক্রান্ত সভা বসার কথা রয়েছে। সেখানে এ বিষয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত হবে। লিখিত পরীক্ষার পর নতুন করে আরও ১০ হাজার শিক্ষক নিয়োগ কার্যক্রম শুরু হবে সূত্রে জানা গেছে।

জানা গেছে, বর্তমানে সারা দেশে প্রায় ৬৪ হাজার ৮২০ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। তার মধ্যে প্রায় ১২ হাজার সহকারী শিক্ষক শূন্য রয়েছে। এ কারণে নতুন করে আরও ১২ হাজার সহকারী শিক্ষক নিয়োগের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়।

পুরনো নিয়োগ বিধিমালা অনুসরণ করে নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। তার আলোকে নারী আবেদনকারীদের ৬০ শতাংশ কোটায় এইচএসসি বা সমমান পাস ও পুরুষের জন্য ৪০ শতাংশ কোটায় স্নাতক বা সমমান পাস চাওয়া হয়।

লিখিত পরীক্ষায় আসনপ্রতি তিনজনকে (একজন পুরুষ ও দুই নারী) নির্বাচন করা হবে। মৌখিক পরীক্ষার পর চূড়ান্ত ফল প্রকাশ করা হবে।

প্রার্থীরা dpe.teletalk.com.bd ওয়েবসাইট থেকে প্রবেশপত্র ডাউনলোড করতে পারবেন। এ ছাড়া ওএমআর শিট পূরণের নির্দেশাবলি এবং পরীক্ষাসংক্রান্ত অন্যান্য তথ্য ওয়েবসাইটে (www.dpe.gov.bd) পাওয়া যাবে।

Source: jugantor.com

বিসিএস পরীক্ষায় ভাল করার কৌশলঃ ইংরেজি

আজকে কথা বলা যাক ইংরেজি গ্রামার নিয়ে। মূলত এই অংশে অনেকেই ভাল ইংরেজি পারা স্বত্তেও প্রত্যাশিত মার্ক তুলতে পারেন না। এর কারণ হিসেবে বলা যায়, নিজেকে একটু ছাড়িয়ে যাওয়ার চেষ্টা না করা বা আরও একটু সতর্কভাবে প্রস্তুতি না নেয়া।

Clause নিয়ে লিখব আজ। বলা হয়ে থাকে Clause পারেন তো ইংরেজি পারেন! তবে এটা না বললেই নয় যে, Clause থেকেই বিসিএস প্রিলিতে প্রায় ২/৩ মার্ক বরাদ্দ থাকে। তাই আজকে Clause নিয়ে আলোচনা করা হবে এবং প্রায় ২০০০ শব্দের পোষ্ট এটি। শেয়ার করে রাখতে পারেন যেন সময় নিয়ে পড়তে পারেন। আজকে দেয়া হল ১ম পর্ব।

প্রথমেই দেখা যাক, বাক্য কয় প্রকার। মনে রাখবেন গঠনের উপর ভিত্তি করে বাক্য কে ভাগ করা হয়েছে 3 আগে। 1. simple sentence. 2. compound sentence. 3. complex sentence. মূলত Clause ভাল করে পারলেই এই বাক্যগুলোর উপর খুব ভালো ধারণা হয়ে যাবে Clause আপনার। তাই আমরা Clause উপর ভিত্তি করেই আজকে এই তিনটি বাক্যের ধরন নিয়ে কথা বলব।

প্রথমে কথা বলব simple বাক্য নিয়ে। এই বাক্য গঠন করতে আমাদের লাগবে Independent clause. আপনি বলতে পারেন, Independent clause কাকে বলে? Independent clause হল সেই clause যার শেষে চাইলে একটি ফুলস্টপ দিয়ে এটিকে বাক্যকে পরিবর্তন করা যায়। যেমন নিচের বাক্যটি দেখুন। I like flower but he likes reading. এবার খেয়াল করুন, I like flower এবং he likes reading এই দুইটি অংশ নিয়ে একটি বাক্য তৈরি করা হয়েছে। এবার আপনি যদি এদের পরে ফুলস্টপ বসান, এরা কিন্তু বাক্য হয়ে যাবে। I like flower. He likes reading. তাই বলা যায় যে I like flower but he likes reading. এই বাক্য দুটি Independent clause রয়েছে। এবার তাহলে simple sentence এর আসল রূপ বলি। এই বাক্য কেবল ১টি মাত্র Independent clause থাকবে। এর বেশী হলে কিন্তু হবে না। যেমন নিচের বাক্যগুলো দেখা যাক। 1. Avi is a good boy. 2. It is very beautiful. 3. I want to be a teacher. এখানে প্রতিটি বাক্যে ১টি করে Independent clause রয়েছে। তাই এরা সবাই simple sentence.

এবার যদি এমন হয় যে একাধিক Independent clause থাকে একটি বাক্য, তখন সেই বাক্যকে আমরা কি বাক্য বলব? তখন সেই বাক্যকে বলা হয় compound sentence. তবে মাথায় রাখতে হবে Independent clause গুলোর মধ্যে একটি conjunction(and, but, so, yet, as a result, nonetheless, nevertheless etc) থাকবে। যেমন নিচের বাক্যগুলো দেখুন। 1. I love playing but he loves reading 2. He has worked hard, so he has succeeded. এখানে কিন্তু বাক্যগুলোতে একাধিক independent clause রয়েছে। তাই এরা প্রত্যেকেই compound sentence. তবে এই conjunction ব্যবহারের বেশ কিছু নিয়ম আছে। আমি সেই দিকে যাচ্ছি না। এগুলোর জন্য একটু কষ্ট করে the principles of fearless writing level 1 বইটি দেখতে পারেন। কারণ এই পোষ্টটি লিখতে গিয়ে এই বই থেকে আইডিয়া নেয়া হয়েছে। আমি এখানে কেবল প্রিলির জন্য সংক্ষেপে আলোচনা করে দিয়েছি।

এবার আমরা আলোচনা করব complex sentence নিয়ে। ইংরেজি বাক্যের জন্য সবচেয়ে দরকারি হল এই structure টি। এর জন্য প্রথমেই জেনে নিতে হবে যে এই বাক্যে dependent clause/subordinate clause থাকবে। তাই আগে জেনে নিতে হবে dependent clause/subordinate clause কাকে বলে। আগের মত করে বলব যে এই clause পরে একটি ফুলস্টপ দিলেই তা বাক্যে রূপান্তর হবে না। যেমন নিচের বাক্যটি দেখুন। I know the man whom you love. এই বাক্যের independent clause = I know the man whom you love কে কিন্তু আলাদা একটি clause হিসেবে চিহ্নিত করা যায় এবং খেয়াল করুন এর পর ফুলস্টপ দিলে = whom you love. দিলেই বাক্যে রূপান্তর হচ্ছে না। তাই এটি independent clause নয় বরং এটি একটি dependent clause/subordinate clause আর এই dependent clause/subordinate clause যে বাক্যেই থাকবে, তাকেই বলা হয় complex sentence. এবার জানতে হবে, dependent clause/subordinate clause কত প্রকার। 1. adjective clause/relative clause 2. adverb clause. 3. noun clause. এই ৩টি সম্পর্কে ভাল ধারণা থাকেলেই হবে। এই ৩টি কেই নানা ভাগে ভাগ করে আমরা nominal clause/restrictive/non-restrictive clause এ ভাগ করেছি।

এবার চলুন, adjective/adverb/noun clause নিয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা যাক। প্রথমেই কথা বলব একটু পিছন থেকে। অর্থাৎ noun clause নিয়ে। এর আগে বলে নেয়া উচিত যে noun বাক্যের যেখানে বসে, সেখানেই noun clause ও বসতে পারে। যেমন আমরা জানি noun বসে বাক্যের subject/object/complement/object of preposition হিসেবে। এবার তাহলে এটি বলা যায় যে noun clause ও এই জায়গা তে বসে থাকে। যেমন নিচের বাক্যগুলো দেখুন। I love you. It is known to you. That I love you is known to you. এখানে বাক্যে subject ছিল It এবং It দিয়ে আপনি কিন্তু I love you কেই বুঝিয়েছেন। তাই It কেটে নিয়ে I love you কে বসিয়েছেন। তাই এখানে I love you নিজেই সাবজেক্ট। কিন্তু I love you একটি clause. তাই এটিকে বলা হয় যে এখানে subject এর অবস্থানে বাক্যে একটি noun clause রয়েছে। এবার নিচের মত করে চেষ্টা করুন, এবং object পজিশনে একটি noun clause খুঁজে বের করুন। I wanted to be a teacher. My father knows it. My father knows that I wanted to be a teacher. আশা করি বুঝতে পারছেন noun clause কাকে বলে।

এবার নিচের বাক্যগুলো দেখুন এবং noun clause গুলো খুঁজে বের করুন। 1. I know whom you love. 2. that he is brilliant is known to us. 3. who did it is known to me. 4. I know he is a good boy. 5. I know where you live. 6. I know when he will come. আশা করি বুঝতে সমস্যা হয়নি । তবে ৪ নং বাক্যতে দেখুন, একটি that থাকলে ভাল হত, I know that he is a good boy. মনে রাখবেন, object পজিশনে noun clause থাকলে that না দিলেও চলে। আর আরেকটি কথা না বললেই নয়। clause এর শুরুতে যে who/whom/which/that/when/where ইত্যাদি দেখতে পারছেন, এদের বলা হল clause marker. যদিও বিভিন্ন বইয়ে বিভিন্ন নামে ডাকা হয়।
লক্ষ্য স্থির রেখে এগিয়ে চলুন। সাফল্য আসবেই।আজ এপর্যন্তই থাক। সবাই ভাল থাকবেন।

লেখা বিষয়ে কোন পরামর্শ থাকলে আমার ইনবক্সে যোগাযোগ করতে পারেন। ফেইসবুক আইডিঃ Avizit Basak

“Don’t spend time beating on a wall, hoping to transform it into a door. ” ― Coco Chane

বি দ্রঃ লেখাটাতে শুধু আমার নিজের আইডিয়া অনুযায়ী ধারণা দেয়া হয়েছে। আপনি আপনার মত করেও প্রস্তুতি নিতে পারেন। সফল হবার জন্য যে প্রস্তুতি দরকার, সেটা সম্পন্ন করাটাই মুখ্য কাজ।আর ছোটখাটো বা অনিচ্ছাকৃত কোনও ভুল থাকলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন দয়া করে।

বিসিএস পরীক্ষায় ভাল করার কৌশলঃ গণিত

গণিত নিয়ে আমি সব সময় মনে করি, যে প্রিলির সময় গণিত রিটেনটা মাথায় নিয়ে পড়তে পারলে ভাল হয়। কিন্তু ৩৮ তম লিখিত প্রশ্ন দেখে একটু ভ্যাবাচ্যাকা খেয়েছিলাম। তখন বুঝতে পারলাম, গতানুগতিক প্রশ্নের প্যাটার্ন থেকে কিছুটা আলাদা হয়েছে। তাই আপনার প্রস্তুতিতে আসবে আরো কিছু পরিবর্তন।

চলুন, আজকে গণিত নিয়ে কিছু কথা বলা যাক। প্রিলি ও লিখিত মিলিয়ে অনেকটা মার্ক থাকবে এই সেকশনে। বলা হয়ে থাকে, ভাল মার্ক পেতে বিশাল ভূমিকা পালন করে থাকে এই গণিত । খুব ভাল পরীক্ষা দিয়েও কাঙ্খিত ক্যাডার না পাওয়ার একটি প্রধান কারণ হয়ে দাঁড়ায় গনিতে ভাল করতে না পারা। আর ৩৮ এর লিখিত প্রশ্ন দেখে এটাই মনে হয়েছে যে ম্যাথ প্রশ্নে হয়ত আরো বৈচিত্র্য আসতে পারে। আর তাই প্রস্তুতি নিতে হবে আরো জোরালো ভাবেই।

গতানুগতিকভাবে আপনাকে ক্লাস ৭,৮,৯ এর ম্যাথ এর উপর ভাল দখল তো থাকতে হবেই। এর কোন বিকল্প আমি দেখি না। পারমুটেশন, কম্বিনেশন সম্পর্কিত সমস্যাগুলো ভালো করে জানতে হবে। জ্যামিতির জন্য ৯ম শ্রেণীর বই থেকে উপপাদ্যগুলো পড়তে হবে। তবে অনুশীলনী থেকে প্রশ্ন হতে পারে তাই গুরুত্বপূর্ণ অনুশীলনী সংক্রান্ত সমস্যাগুলো সমাধান করতে হবে। এগুলো ভাল করে দেখবেন যেহেতু বিসিএস এর প্রশ্নে প্রতিবছর কিছু ভেরিয়েশন দেখা যাচ্ছে। যেমন ৩৮ এ লিখিত তে একটা প্রশ্ন ছিল কো অরডিনেট থেকে। তাহলে আপনি এখন কি করবেন?

আমি মনে করি, এই ক্ষেত্রে যা করতে হবে তা হল সবার চাইতে একটু এগিয়ে থাকা। যেমন ধরুন, আপনি প্রফিট এন্ড লস পড়ছেন, এবার খেয়াল করুন, বাজারের সব বইয়ে মোটামুটি এই ধরনের ম্যাথ আছে। তাই আপনি চাইলে একটু ভিন্নতার জন্য কয়েকটা বই হাতে নিয়ে এই ধরনের সমস্যাগুলো দেখতে পারেন। এতে করে আপনার প্রস্তুতিতে অনেক ভিন্নতা আসবে।বিসিএসসহ অন্যান্য চাকুরির পরীক্ষায়ও কাজে আসবে।

কিংবা আপনি ধরুন, জ্যামিতি পড়ছেন, দেখবেন, যে প্রিলির জ্যামিতি গুলো কেবল বেসিক ভাল থাকলেই পারা যায়। খুব একটা কঠিন বিষয় থেকে প্রশ্ন হয় তা কিন্তু নয়। আবার যদি আপনি লিখিত এক্সামের দিকে তাকান, দেখবেন, বৃত্ত থেকে একটা প্রশ্ন প্রায়ই আসে। হতে পারে, আপনি জ্যামিতিতে একটু দুর্বল। তাহলে সব যদি না পড়তে পারেন, তবে চাইলে কেবল বৃত্তের উপপাদ্যগুলো ভাল করে পড়ে নিন। তাহলেই তো কিছুটা ব্যাক আপ পেয়ে গেলেন। এভাবেই আপনাকে আপনার দুর্বলতা গুলো খুঁজে খুঁজে কমিয়ে নিতে হবে।
অনেকের ক্ষেত্রে দেখা যায়, যে বীজগনিতের প্রতি একটা ভয় থেকেই যায়। কিন্তু খেয়াল করলে দেখবেন, যে বীজগণিত থেকে প্রশ্ন আসবে, তা কিন্তু আমরা ৮ম বা ৯ম শ্রেণীর বইতে পড়ে এসেছি। তাই এড়িয়ে না গিয়ে একটু কষ্ট করে পড়ে নিলেই হচ্ছে।

আবার আপনি যদি ত্রিকোণমিতি এর দিকে তাকান, দেখবেন, প্রতিবছর এই জায়গাতে প্রশ্নে ভেরিয়েশন হচ্ছে যদিও সমাধানগুলো খুব সহজ কিন্তু এক্সাম হলে ধরতে পারাটা খুব কঠিন হয়ে যায়। তাহলে কি করতে পারবেন? আপনি ৯ম শ্রেণীর বই নিন। এখানে যা আছে তাই ভালো করে পড়ুন। এতে বেসিক ভালো হবে এবং এক্সাম হলে সমাধান করাটা সহজ হবে।

দেখুন, প্রফিট এন্ড লস, ধারা, শতকরা থেকে যে ম্যাথ গুলো আসে, এগুলো কিন্তু খুব একটা কঠিন হয় না। তাই এগুলো কোনভাবেই মিস করা যাবে না। তাই গণিত নিয়ে কাজ করার আগে, আপনি গণিতের কোন অংশ ভাল পারেন, তা জেনে নিন, এবং পরিকল্পনা সাজিয়ে নিন।

গনিতের জন্য “আমাকে পারতেই হবে” এই কথাটা মনে রাখাটা খুব জরুরী। কোনভাবেই হাল ছাড়া যাবে না। আরেকটি কথা, যাই পড়বেন, তা একেবারে বেসিক থেকে পড়বেন।

গণিতের প্রস্তুতি নিয়ে ধারাবাহিকভাবে খুব শীঘ্রই লিখব। লেখাগুলোতে বিস্তারিতভাবে সবকিছু দেয়ার চেষ্টা করব।

“Don’t spend time beating on a wall, hoping to transform it into a door. ” ― Coco Chane

লেখা সংক্রান্ত যেকোনো পরামর্শের জন্য আমার ফেসবুক inbox এ লিখতে পারেন। Facebook ID: Avizit Basak

বি দ্রঃ লেখাটাতে শুধু আমার নিজের আইডিয়া অনুযায়ী ধারণা দেয়া হয়েছে। আপনি আপনার মত করেও প্রস্তুতি নিতে পারেন। সফল হবার জন্য যে প্রস্তুতি দরকার, সেটা সম্পন্ন করাটাই মুখ্য কাজ।আর ছোটখাটো ভুল থাকলে ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন দয়া করে।

অভিজিৎ বসাক 
বিসিএস ( প্রশাসন) 
৩৩তম বিসিএস

বিসিএস প্রিলির প্রস্তুতিঃ টু টেবিল মেথড

লেখাটা মূলত যারা প্রথমবার বিসিএস দিচ্ছেন তাদের উদ্দেশ্যে; অনেক জায়গায় বলেছি, তবুও যারা মিস করেছেন তাদের জন্য….

প্রয়োজনীয় উপকরণঃ
১. বিসিএস প্রিলি ও রিটেনের সিলেবাস
২. ভাইভার কমন টপিকের তালিকা (যেকোন ক্যাডারই বলতে পারবেন)
৩. বিগত প্রিলিগুলোর প্রশ্ন, বিশেষ করে ৩৫-৩৮তম

কার্যপ্রণালীঃ
ক. প্রথম টেবিল প্রস্তুতিঃ
১. তিনটি কলাম হবেঃ প্রিলি, রিটেন, ভাইভা
২. প্রত্যেক বিষয়ের জন্য আলাদা Row হবে
৩. সিলেবাস অনুযায়ী প্রত্যেক বিষয়ের টপিকগুলোর পূর্ণ তালিকা ও বরাদ্দকৃত নম্বর প্রত্যেক কলামে লিখতে হবে (যেমন- বাংলা ব্যাকরণে সন্ধি, ধ্বনি, সমাস ইত্যাদি)
৪. এবার মেলাতে হবে কোন টপিকগুলো দুই/তিন কলামেই আছে; এই টপিকগুলো ভালভাবে শেষ করতে হবে কারণ এখন ভালভাবে পড়লে রিটেন-ভাইভাতেও কাজে দিবে
৫. এরপর বিগত সালের প্রশ্ন অনুসারে স্টার দিতে হবে টপিকগুলোতে; যত বেশি এসেছে তত বেশি স্টার।

খ. দ্বিতীয় টেবিল প্রস্তুতিঃ
১. তিনটি কলাম হবেঃ পারি, পারিনা কিন্তু পড়লে পারব, পড়লেও পারব না
২. এবার শুধুমাত্র প্রিলির সিলেবাস অনুযায়ী প্রত্যেক টপিক স্ব স্ব কলামে লিখতে হবে; সাথে বরাদ্দকৃত নম্বরও লিখতে হবে
৩. প্রথম কলামের টপিকগুলো নিয়মিত প্র‍্যাকটিস এবং দ্বিতীয় কলামের টপিকগুলো ভালভাবে শিখতে হবে
৪. এরপরও যদি ১৬০+ প্রস্তুতি সম্পন্ন না হয়, তবে ৩য় কলামের টপিকগুলোর সকল বিগত সালের প্রশ্ন মুখস্থ (যেহেতু উপায় নাই)

ফলাফলঃ
প্রথম টেবিল থেকে আপনি বিসিএসের সম্পূর্ণ সিলেবাস এবং কোন কোন টপিক গুরুত্বপূর্ণ ও আগে/ভালভাবে শেষ করতে হবে তা বুঝতে পারবেন। আর দ্বিতীয় টেবিল থেকে জানতে পারবেন নিজেকে, নিজের দুর্বলতা ও সক্ষমতাকে; ফলে দিনে কতক্ষণ আপনাকে কি কিভাবে পড়তে হবে সেটা নিজেই ঠিক করতে পারবেন।

সতর্কতাঃ
১. টেবিল বানানোর সময় আলসেমি করা যাবে না; ভালভাবে সিলেবাস ঘেঁটে দেখতে হবে
২. বিগত সালের প্রশ্ন না দেখা বোকামি
৩. প্রথম টেবিল চাইলে কয়েকজনে গ্রুপ করে বানাতে পারেন, কিন্তু দ্বিতীয় টেবিল অবশ্যই নিজে একা বানাবেন
৪. খালি টেবিল বানালেই হবে না, সে অনুযায়ী প্রস্তুতিও নিতে হবে; টেবিলগুলো জাস্ট আপনার প্রস্তুতির পরিকল্পনামাত্র।
সবার জন্য শুভকামনা রইল!

রহমত আলী শাকিল
পররাষ্ট্রে ১ম, ৩৭তম বিসিএস (সুপারিশপ্রাপ্ত)

বিসিএস প্রিলিমিনারির প্রস্তুতি নির্দেশনা

বিসিএস পরীক্ষার ধাপগুলোর মাঝে, আমার মতে, প্রিলিতে পাশ করাই সবচেয়ে কঠিন। কিন্তু মজার ব্যাপার হল, এই প্রিলির মার্ক কিন্তু মোট নম্বরে যোগ হয় না। অর্থাৎ শুধু পাশ করলেই হবে, কত পেয়ে পাশ করলেন, তা ব্যাপার না।

আমি মোট ২টা প্রিলি দিয়েছি (৩৭তম ও ৩৮তম); দুটোতেই কোনরকমে উৎরে গিয়েছি। আমার এক্সপেরিয়েন্স বলে যে, প্রিলিতে ১১০+ মোটামুটি সেইফ মার্ক্স। এখন এই ১১০ নিশ্চিত করতে হলে, আপনি কতগুলো দাগাবেন বা কতটুকু সিলেবাসে বেশী জোর দিবেন তা শেষ পর্যন্ত আপ্নাকেই ঠিক করতে হবে; আর এই জন্য আগের বছরের প্রশ্নগুলো সল্ভ করার কোনো বিকল্প নেই (বিশেষ করে ৩৫তম-৩৮ তম এর প্রশ্ন)। আগের বছরের প্রশ্নগুলো দেখলে আরেকটা লাভ হবে। আপনি বুঝতে পারবেন যে এখন আর বিসিএসে কোন দেশের কি রাজধানী/ কোন দেশের কি মুদ্রা– এই ধরনের প্রশ্ন খুব একটা আসে না। এরকম ছোট বিষয়গুলো বিশ্লেষণ করে আপনি নিজেই নিজের স্ট্র্যাটেজি তৈরি করতে পারবেন।

আমার স্ট্র্যাটেজি ছিল ইংরেজি ও গণিতে (যেহেতু আমি বিজ্ঞানের ছাত্র) ভালো মার্ক্স আনা এবং মিনিমাম ১৬০ টা দাগানো। আপনার প্রস্তুতি যদি মোটামুটি ভালো থাকে তাহলে আমি মনে করি, একটু বেশী দাগানো ভালো। ধরেন আপনি ৪০ টা একটু এডুকেটেড গেস (মানে ৪ টা অপ্সানের মধ্যে আপনি কমিয়ে ২টায় নিয়ে আসতে পেরেছেন) করলেন; সেই ক্ষেত্রে ১৫ টাও যদি আপনার সঠিক হয়, তাহলে আপনি সব কেটেকুটেও ২.৫ মার্ক্স পাবেন।

বর্তমানে প্রিলি পরীক্ষা হয় ২০০ মার্ক্সে। মোট ২০০ টি এম,সি,কিউ প্রশ্ন থাকে, সময় থাকে ২ ঘন্টা। প্রতিটি শুদ্ধ উত্তরের জন্য ১ মার্ক পাবেন; কিন্তু ভুল উত্তরের জন্য বাড়তি ০.৫ মার্ক কাটা যাবে। অর্থাৎ একেবারে আন্দাজে দাগানোর চেয়ে খালি রেখে আসা ভালো।

২০০ মার্ক্সের মানবন্টনটা নিম্নরূপঃ
বাংলা- ৩৫
ইংরেজি- ৩৫
বাংলাদেশ- ৩০
আন্তর্জাতিক- ২০
ভূগোল, পরিবেশ, দুর্যোগ – ১০
বিজ্ঞান- ১৫
কম্পিউটার- ১৫
গণিত- ১৫
মানসিক দক্ষতা- ১৫
এথিক্স, মুল্যবোধ, সুশাসন- ১০

বাংলা-
বাংলার সিলেবাসের ২টা পার্ট- একটা সাহিত্য ভিত্তিক, আরেকটা হল ব্যাকরণ/ভাষা ভিত্তিক।
বাংলা সাহিত্যের সময়কালকে ৩ ভাগে ভাগ করা হয়- আদি/প্রাচীণ যুগ, মধ্য যুগ ও আধুনিক যুগ।
এই তিনের মধ্যে প্রথম ২ ভাগের সিলেবাস তুলনামুলক কম। এই পি,ডি,এফ টা (https://www.dropbox.com/…/Bangla%20LIterature%20by%20Dream-…)পড়লে একটা ভালো আইডিয়া চলে আসবে। সাথে “লাল নীল দীপাবলী” বইটিও অনেক কাজের, গল্পের মত করে লিখা।
আধুনিক যুগের ইনপুট/অাউটপুট রেসিও খুবই বাজে। অর্থাৎ, অনেক পড়ে গেলেও দেখা গেল এমন সব লেখক/কবি/বই এর নাম দিল, যা আপনি জীবনেও শুনেন নাই। কিন্তু তাই বলে তো আর একেবারে বাদ দিয়ে যাওয়া যাবে না। আমি মনে করি, বাজারে এভেইলেবেল একটা ডাইজেস্ট অন্তত পড়ে যাওয়া ভালো।

ব্যাকরণ পার্টের জন্য, ৯ম-১০ম শ্রেণীর ২য় পত্র বোর্ডের বইটা বেশ ভালো। সাথে একটা ডাইজেস্ট।

তারমানে সব মিলিয়ে পড়তে হবেঃ
১। যে কোন একটা প্রিলি ডাইজেস্ট
২। বাংলা ২য় পত্র বোর্ডের বই (৯ম-১০ম)
৩। মোজাহিদ ভাইয়ের পি,ডি,এফ
৪। লাল নীল দীপাবলী ( হুমায়ুন আজাদ)

ইংরেজি-
এইখানেও ২টা পার্ট- একটা সাহিত্য ভিত্তিক, আরেকটা হল ব্যাকরণ/ভাষা ভিত্তিক।

সাহিত্য অংশটায় একটু জোর দেওয়া বেশ লাভজনক, কারণ পপুলার সাহিত্যকর্ম থেকে অনেক প্রশ্ন আসে। আমি যেইটা করেছিলাম তা হল, ABC of English Literature (নীলক্ষেতে গেলেই পাবেন) বইটিতে একটা তালিকা আছে নান লেখক ও তাদের সাহিত্যকর্মের- আমি সেই তালিকা ঝাঁরা মুখস্ত করে ফেলেছিলাম। আজকাল শুনেছি আরো অনেক সাজানো বই এসেছে, আপনি নীলক্ষেতে গিয়ে একটু ঘেটে দেখতে পারেন। Quotations এর জন্য English for Competitive Exams নামক বইটা পড়েছিলাম। সীমিত সংখ্যক কোটেশন, কিন্তু বিখ্যাত সবগুলোই আছে ঐ বইয়ে।

ভোকাবুলারির জন্য ম্যাগুসের ফ্ল্যাশকার্ডের (https://drive.google.com/…/0B2uC_mK1Zj0tNHc1UGZSSmtwW…/view…) কমন ওয়ার্ড গুলো মোর দেন এনাফ। যারা জি,আর,ই-এর প্রস্তুতি নিয়েছেন তারা অন্য যে ওয়ার্ড লিস্ট পড়েছেন, তা পড়লেই অনেক।

বাকী অংশের জন্য যে কোনো একটা স্টান্ডার্ড গ্রামার বই যথেষ্ঠ। সাথে প্র্যাক্টিস করার জন্য English for Competitive Exams বইটা বেশ কাজের।

বাংলাদেশ বিষয়াবলি-

সিলেবাসে মোট ৯টি টপিক আছে। এক এক করে বলছিঃ

বাংলাদেশের জাতীয় বিষয়াবলীঃ
* মূলত প্রাচীনকালের বাংলার ইতিহাস হতে শুরু করে বর্তমান কাল পর্যন্ত ইতিহাস।
* প্রথমেই ডাইজেস্ট টা পড়ে ফেলতে হবে।
* এরপরে ১৯৪৭-১৯৭১ এর ইতিহাস ডিটেইলসে পড়তে হবে (৯ম-১০ম শ্রেণীর বোর্ডের বই ভালো সোর্স; ১) বাংলাদেশ ও বিশ্বপরিচিতি এবং ২) ইতিহাস– এই ২ বোর্ডের বই )
* সিলাবাসের প্রতিটা সাব-টপিক (১৯৪৭-১৯৭১) আলাদা আলাদা করে পড়তে হবে। প্রতিটির উইকি ও বাংলাপিডিয়া পেইজ দেখা যেতে পারে।
* উপরের গুলো সব শেষ হলে প্রাচীনকাল, মুঘল আমল ও ব্রিটিশ পিরিয়ড নিয়ে গভীরে পড়া যেতে পারে (৯ম-১০ম শ্রেণীর বই )। সংক্ষিপ্ত ওভারভিউয়ের জন্য এই ২টি পেইজ দেখা যেতে পারে-
১) https://en.wikipedia.org/wiki/History_of_Bengal
২) https://en.wikipedia.org/wiki/History_of_Bangladesh

বাংলাদেশের কৃষিজ সম্পদ
* ডাইজেস্ট
* নতুন সব ফল/শস্যের নাম থেকে প্রশ্ন আসে; বিগত ৬ মাসের কারেন্ট আফেয়ার্স পড়লেই হবে (কারেন্ট আফেয়ার্সের শুরুতেই অনেকগুলো এম,সি,কিউ আর এক-কথায়-উত্তর থাকে। সাধারণত ঐগুলো পড়লেই চলে)

বাংলাদেশের জনসংখ্যা, আদমশুমারী, উপজাতি
* ডাইজেস্ট
* কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স (বিশেষত ঐ বছরের ইকনমিক রিভিউ নিয়ে যেই সংখ্যায় আলোচনা করা হয়েছে। কারো আগ্রহ থাকলে ইকনমিক রিভিউ-টাই ডিরেক্ট পড়া যেতে পারে; ফিনান্স মিনিস্ট্রির ওয়েবসাইটে পাওয়া যাবে। কিন্তু মনে রাখা উচিত, প্রিলির জন্য ব্রেডথ ইস মোর ইম্পরট্যান্ট দেন ডেপথ। মানে বেশী গভীরে না গিয়ে; আগে সব কভার করতে হবে। )
* ৮ম শ্রেণীর বোর্ডের বইয়ের ১১তম অধ্যায় পড়া যেতে পারে। কারণ আদিবাসীদের নিয়ে কমপক্ষে ১টি প্রশ্ন আসার হার বেশী।

বাংলাদেশের অর্থনীতি
* ডাইজেস্ট
* কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স (শুরুর এম,সি,কিউ আর এক-কথায়-উত্তর)
* ঐ বছরের ইকনমিক রিভিউ-এর সম্পর্কিত অংশ

বাংলাদেশের শিল্প ও বাণিজ্য
* ডাইজেস্ট
* কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স (শুরুর এম,সি,কিউ আর এক-কথায়-উত্তর)
* ঐ বছরের ইকনমিক রিভিউ-এর সম্পর্কিত অংশ

বাংলাদেশের সংবিধান
* শুরুর থেকেই ডিটেইলসে পড়া ভাল। কারণ রিটেনে ভালো কাজে দেয়।
* ডাইজেস্ট থেকে ইতিহাসটা পড়ে নিতে হবে।
* এরপরে চাপ্টার( ১১ টি) ও অনুচ্ছেদ-গুলোর( ১৫৩ টি) শিরোনাম মুখস্ত করে ফেলতে হবে।
* সংশোধনী গুলো ভালো ভাবে পড়তে হবে (সময়কাল, প্রেক্ষাপট, মূলকথা)।
* তফসিল-গুলোর মূলকথা পড়ে ফেলতে হবে।

বাংলাদেশের রাজনৈতিক অবস্থা
* ডাইজেস্ট
* কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স (শুরুর এম,সি,কিউ আর এক-কথায়-উত্তর। বিগত ৬ মাসে কোন নির্বাচন হয়ে থাকলে তা একটু দেখে নিতে পারেন।)

বাংলাদেশের সরকার ব্যবস্থা ও অন্যান্য (জাতীয় অর্জন/পুরস্কার/খেলাধুলা ইত্যাদি)
* বাংলাদেশের সংবিধান (সরকার ব্যবস্থা)
* ৯ম-১০ম শ্রেনীর পৌরনীতি বইয়ের ৫ম-৯ম অধ্যায়
* ডাইজেস্ট
* কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স (শুরুর এম,সি,কিউ আর এক-কথায়-উত্তর)
* মুক্তিযুদ্ধ-ভিত্তিক স্থাপনা সমূহ (কোথায় অবস্থিত, স্থপতি কে)

আন্তর্জাতিক বিষয়াবলি-
* সবার আগে আন্তর্জাতিক নানা সংগঠনসমূহ নিয়ে পড়ে ফেলতে হবে ( ডাইজেস্ট থেকে পড়লেই এনাফ)
* বিগত ৬ মাসের কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স এবং কারেন্ট ওয়ার্ল্ড (২ টিই)
* ডাইজেস্ট থেকে নানা দেশ ও শহর কি নামে পরিচিত ( যেমন ঢাকা রিকশার শহর), কোন প্রণালী কথায় অবস্থিত তা দেখে ফেলতে হবে
* ডাইজেস্টে আরো অনেক কিছু আছে (ইতিহাস/মুদ্রা/রাজধানী)– চোখ বুলানো যেতে পারে; কিন্তু ইনপুট/আউটপুট রেসিও ভালো না।
* নানা কারেন্ট ইস্যু নিয়ে ইউটিউবের সামারি ভিডিও গুলো বেশ উপকারী (Vox, The Economist, TRT news, BBC etc)

ভূগোল, পরিবেশ
* বাংলাদেশের ম্যাপ (সীমানা, গুরুত্বপুর্ণ স্থাপনা, নদী, পর্যটন আকর্ষণ ইত্যাদি) খুব ভালো করে দেখতে হবে [ ভালো হয় নীলক্ষেত থেকে বি,সি,এস এর জন্য বিশেষায়িত ম্যাপ কিনে নিলে]
* ডাইজেস্ট
* এই পি,ডি,এফ টি পড়ে ফেলবেন
* বিগত ৬ মাসের কারেন্ট অ্যাফেয়ার্স (শুরুর এম,সি,কিউ আর এক-কথায়-উত্তর)
* এই পি,ডি,এফ টিও দেখতে পারেন

সাধারণ বিজ্ঞান
* ইনপুট/আউটপুট রেসিও ভালো না।
* শুধু ডাইজেস্ট পড়াটাই ভালো।
* সাথে সময় থাকলে ৯ম-১০ম শ্রেনীর সাধারণ বিজ্ঞান বইটি পড়া যেতে পারে।

কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তি
* “ইজি”-র একটা বই আছে বাজারে। ঐটাই যথেষ্ট মনে হয়েছে।

গাণিতিক যুক্তি ও মানসিক দক্ষতা
* আগের বছরের প্রশ্নগুলো সল্ভ করে ফেললেই একটা আইডিয়া চলে আসবে।
* সময় থাকলে ডাইজেস্ট দেখা যেতে পারে।

নৈতিকতা মুল্যবোধ ও সুশাসন
* অনেকগুলো প্রশ্নই কমন সেন্স থেকে উত্তর করা যায়।
* নওলেজ বেসড যেসব প্রশ্ন আসে, সেইগুলোর ইনপুট/আউটপুট রেসিও ভালো মনে হয় নাই।
* সময় থাকলে ডাইজেস্ট দেখা যেতে পারে।

ওয়ালিদ মোহাম্মদ মুকু
৩৭তম বিসিএসে পররাষ্ট্র ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত (২য় স্থান)

গণিতে ভালো করার জন্য পরামর্শ

সাধারণ গণিত বিসিএস পরীক্ষার অন্যতম অংশ। প্রিলিমিনারিতে ১৫ নম্বর বরাদ্দ আছে। যার তিনটি অংশ; পাটিগণিত, বীজগণিত ও জ্যামিতি। অনেকেই গণিতকে ভয় পান। কেউবা একটি অংশ পারলেও অন্য অংশে ভালো করেন না। অর্থাৎ পাটিগণিত পারল কিন্তু বীজগণিত কম বোঝেন। এমন অবস্থা দেখেছি। সাধারণ গণিতে সহজে ভালো করার জন্য নিচের বিষয়গুলো অনুসরণ করা যেতে পারে।

ক) গণিতের ভিত্তি ধরতে হবে বোর্ডের গণিত বইগুলোকে। বিশেষ করে সপ্তম, অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির বইগুলো।
খ) গণিত চর্চা শুরু করতে হবে নিচের শ্রেণি থেকে ওপরের শ্রেণি পর্যন্ত। যেমন প্রথমে সপ্তম, পরে অষ্টম ও তারপর নবম-দশম শ্রেণি।
গ) বোর্ড বইগুলো সমাধান করার সময় কঠিন অঙ্কগুলো মার্ক করে রাখবেন। পরের বার করার সময় শুধু ওই মার্ক করাগুলো করলেই হবে। ঘ) গণিতের বিভিন্ন অংশের সূত্রগুলো ভালো করে পড়ে নেবেন। প্রয়োজনে একটা নোট তৈরি করে নেবেন। অনেক সময় সূত্র থেকেও দু-একটি প্রশ্নের উত্তর করা যায়।
ঙ) কিছু অধ্যায় তুলনামূলকভাবে একটু বেশি গুরুত্ব দিয়ে করতে হবে। যেমন সুদকষা, শতকরা, লাভ ও ক্ষতি, বর্গমূল, উৎপাদক, সূচক, ধারা, সেট ইত্যাদি।
চ) জ্যামিতি অংশটি বোর্ডের বই থেকে না পড়লেও চলবে। কারণ, প্রিলিমিনারিতে জ্যামিতির খুব গভীর থেকে প্রশ্ন হয় না বা করার সুযোগও থাকে না। তাই এই অংশের জন্য একটা গাইড অনুসরণ করলেই হবে।
ছ) গণিতের যে অংশটি ভালো করে পারেন, তা যেন আয়ত্তে থাকে খেয়াল রাখবেন। অন্য অংশটি কম পারলেও যেন তা কাভার করা যায়।
জ) অনুশীলন ব্যতীত গণিতে ভালো করা যায় না। তাই প্রতিদিন এক থেকে দেড় ঘণ্টা সময় গণিত অনুশীলন করার জন্য বরাদ্দ রাখুন।
ঝ) বিগত বছরের গণিত প্রশ্নগুলো ভালো করে সমাধান করে নেবেন।
ঞ) কিছু গণিত শর্টকাটে করবেন। কারণ, আপনি সব সময় বিস্তারিত করার সময় পাবেন না। তবে সব আবার শর্টকাট করতে যাবেন না।
ট) অতি কঠিন মাত্রার গণিত বিশেষ করে জিআরই, জিম্যাট থেকে অনুশীলন করার প্রয়োজন নেই। প্রিলিমিনারিতে গণিতে এত কঠিন প্রশ্ন হয় না।
ঠ) গণিতে বেশি দুর্বল হলে বন্ধুদের নিয়ে গ্রুপ স্টাডি করতে পারেন। এ ক্ষেত্রে গণিতে দক্ষ বন্ধুকে বেছে নিন।
ড) যদি বিশেষ কোনো অধ্যায় যেমন সময় ও স্রোত এর গণিত আয়ত্ত করতে না পারেন, ছেড়ে দিন। ওই অধ্যায় থেকে প্রশ্ন না-ও আসতে পারে।
ঢ) গণিতের কোনো অংশকে সহজ মনে করে এড়িয়ে যাবেন না। সমান গুরুত্ব দেবেন। না হলে দেখা যাবে পরীক্ষার হলে গিয়ে আর মেলাতে পারছেন না।
ণ) মাঝে মাঝে নিজেকে যাচাই করার জন্য কিছু অধ্যায় ধরে পরীক্ষা দেবেন। এটা আপনার করণীয় ঠিক করতে সাহায্য করবে।
ত) একটা আশার কথা হলো, গণিতের একটা সীমানা আছে। মৌলিক নিয়মগুলো ভালো করে জানলে কমনসেন্স দিয়ে অনেক ম্যাথ সমাধান করা সম্ভব।
মানসিক দক্ষতা অংশে ১৫টি প্রশ্ন থাকবে। একটা কথা মনে রাখতে হবে, বাংলা, ইংরেজি, সাধারণ জ্ঞান, চিত্র, গণিত, মনস্তাত্ত্বিক বিষয় ও কমনসেন্স-বিষয়ক প্রশ্ন হয়ে থাকে এ অংশে। অর্থাৎ এটাও প্রিলির মধ্যে আরেকটা ছোটখাটো প্রিলি। আপনি যদি অন্যান্য অংশে ভালো করে প্রস্তুতি নেন, তবে মানসিক দক্ষতা অংশেও ভালো করবেন। তারপরেও কিছু প্রস্তুতি আলাদা করে নেবেন। যেমন
ক) প্রথমে বিগত প্রিলিমিনারির প্রশ্নগুলো পড়ে নেবেন।
খ) ২৭তম বিসিএস থেকে সর্বশেষ অনুষ্ঠিত বিসিএস লিখিত পরীক্ষার মানসিক দক্ষতার প্রশ্নগুলো পড়ে ফেলবেন। বুঝে বুঝে পড়বেন। অনেকেরই জানা আছে, লিখিত পরীক্ষায় ৫০টি এমসিকিউ টাইপ প্রশ্ন হয়।
গ) এতে মানসিক দক্ষতা সম্পর্কে আপনার একটা পূর্ণাঙ্গ ধারণা হয়ে যাবে। এগুলো পেতে একটা গাইড সংগ্রহ করে নেবেন। ওরাকল হতে পারে।
ঘ) কিছু বিষয় একটু ভালো করে পড়বেন। যেমন বাংলা বানান, ইংরেজি বানান, অ্যানালজি, সিরিজ, দূরত্ব নির্ণয়-বিষয়ক সমস্যা, চিত্রভিত্তিক সমস্যা বিন্যাস ও সমাবেশ, শূন্যস্থান পূরণ, বছর নির্ণয় ইত্যাদি।
ঙ) অনুশীলন করার সময় প্রশ্নের প্যাঁচটা বোঝার চেষ্টা করুন। তাড়াহুড়ো করে না বুঝে অধ্যায় বা বই শেষ করতে যাবেন না। এতে তেমন লাভ হবে না।

বোর্ডের বইগুলো যদি মনোযোগ দিয়ে শেষ করতে পারেন, তবে গণিত-ভীতি অনেকাংশেই কমে যাবে। কারণ, এই বইগুলোতে গণিতের মৌলিক বিষয় আলোচনা করা হয়েছে, যা উপেক্ষা করে ভালো করা যাবে না। তা ছাড়া এই বইগুলো লিখেছেন গণিতের খ্যাতিমান অধ্যাপকেরা। দেখা যায়, তাঁরাই হয়তো প্রশ্ন তৈরি করেন। তাই সঠিকভাবে আজ থেকেই হোক গণিত ও মানসিক দক্ষতার চর্চা। নিশ্চয়ই ভালো কিছু হবে।

শাহ মো. সজীব
৩৪তম বিসিএসে প্রশাসন ক্যাডার দ্বিতীয়

অলসদের জন্য বিসিএস টিপস

আপনি যদি মতো অলস, আকাইম্যা, ঘুমকাতুরে, ব্যর্থ, সাপ্লিখাওয়া ও ব্যাকবেঞ্চার হয়ে থাকেন তাহলে এই পরামর্শ গুলো আপনার বিসিএস পরীক্ষার জন্য কাজে লাগবে।

পর্ব ১: লাইফস্টাইল
আপনি যদি সিরিয়াস, কর্মঠ ও ভালো ছাত্র হয়ে থাকেন তাহলে এই লেখা আপনার জন্য নয়। কিন্তু আপনি যদি আমার মতো অলস, আকাইম্যা, ঘুমকাতুরে, ব্যর্থ, সাপ্লিখাওয়া ও ব্যাকবেঞ্চার হয়ে থাকেন তাহলে এই পরামর্শ গুলো আপনার বিসিএস পরীক্ষার জন্য কাজে লাগবে।
১. প্রথমেই কোচিং করার পরিকল্পনা বাদ দেন। আপনি যেহেতু অলস তাই জ্যাম ঠেলে কোচিং যাওয়া আসা, ক্লাস করা এসব আপনার পোষাবে না। তার চেয়ে বরং যে সময়টা রাস্তায় কাটাতেন সেই সময়টা ঘুমিয়ে কাটান। আর ক্লাসের সময়টা বাসায় বসে একটু পড়েন।
২. কোন স্ট্রিক্ট রুটিন করার দরকার নাই। কারন অলস মানুষ হিসেবে আপনি দেরিতে ঘুম থেকে উঠেন। নাস্তা খান দুপুরে, ভাত খান বিকালে। আপনার কোন কিছুরই ঠিক ঠিকানা নাই। তাই স্পেসিফিক রুটিন করলে ফলো করতে পারবেন না। ব্যর্থ হবেন। তাতে মন খারাপ হবে। হতাশা আসবে।
৩. পড়ায় সিরিয়াস হতে যেয়ে বিনোদন মূলক কাজকর্ম থেকে দূরে থাকবেন না। তাহলে মানসিক চাপ বাড়বে। বাংলাদেশের খেলা মিস দেওয়া যাবে না। বিকালে আপনার মতো আকাইম্যা বন্ধুদের সাথে আড্ডা দিবেন। একটু ঘুরাঘুরি করবেন। ‘হাওয়া বদল’, ‘আশ্চর্য প্রদীপ’, ‘ভুতের ভবিষ্যত’ বা ‘আয়নাবাজি’ মতো বিনোদনমূলক চলচ্চিত্রগুলো দেখবেন। তবে হিন্দি সিরিয়াল দেখবেন না। মাথা নষ্ট হয়ে যাবে।
৪. পরীক্ষায় পাস করতে হবে এই চিন্তা বাদ দেন। আপনি সাপ্লিখাওয়া স্টুডেন্ট। ব্যর্থতা আপনার নিত্য সংগী। তাই পাস করতেই হবে এই চিন্তা করে মনের উপর চাপ বাড়ানোর দরকার নাই। ফুরফুরে থাকেন, নিজের মতো পড়েন। তারপর পাস করে গেলে লোকজন বলবে “পোলাডা যে জিনিয়াস এইডা কিন্তু আমি আগেই জানতাম”।
৫. আপনার বাসার লোকজন যেমন আব্বা, আম্মা, ভাইবোন সবাই আপনাকে বলবে “ওমুক বাড়ির আক্কাস মিয়ার পোলা মুকলেস জীবনে কত কিছু কইরা ফেলাইলো, তুই ঘুমাইয়া ঘুমাইয়া জীবনটা শেষ কইরা দিলি”। এসব কথা শুনার সাথে সাথে বইটা বন্ধ করে মনে মনে ভাববেন আপনি মুকলেস না। আপনি হচ্ছেন আপনি। আপনি বেশি ঘুমান মানে আপনি বেশি এনার্জেটিক। তাই সফলতার পিছনে না দৌইড়া নিজের উপর বিশ্বাস রাখেন। আর পরীক্ষার আগের ছয় মাস থেকে আত্মীয়স্বজন থেকে দূরে থাকেন।

পর্ব ২: শুরুটা করবেন কিভাবে?
আমাদের মত অলসদের প্রধান সমস্যা কোন কাজ শুরু করা। আমরা অনেক অনেক পরিকল্পনা করি। তারপর ভাবি ঘুম থেকে উঠেই কাজ শুরু করবো। তারপর ঘুমিয়ে ঘুমিয়ে টায়ার্ড হয়ে আবার ঘুমিয়ে রেস্ট নেই। তাই আজকের প্রধান আলোচনা কিভাবে পড়া শুরু করবেন। প্রথমেই বলে নেই আমি আপনাকে পড়ার টেকনিক শেখাবো না। সেটা সম্ভবও না। সবারই নিজস্ব টেকনিক আছে। আমি শুধু আপনাকে কয়েকটা কাজের কথা বলবো যেগুলো করলে আপনি বিভিন্ন ঝামেলা থেকে বেঁচে যাবেন।

১. আপনি নিশ্চয়ই বিভিন্ন সাজেশন, বড় ভাইয়ের হ্যান্ড নোট, বিভিন্ন কোচিং সেন্টারের লেকচার শিট, পেপারকাটিং এসব জোগার করে ফেলেছেন? এগুলো খুবই গুরুত্বপূর্ন। সবগুলোকে একটা বস্তায় ভরুন। তারপর ফেরিওয়ালার কাছে বিক্রি করে সেই টাকায় আইসিক্রম খান। fb/BDGovernmentJobs
২. প্রফেসর, ওরাকল, এমপিথ্রি, এস্যুরেন্স ইত্যাদি বিভিন্ন প্রকাশনীর বই একসেট করে এবং ডাইজেস্ট, এসএসসি ও এইচএসসি’র বোর্ডের বই, হুমায়ুন আজাদের লাল নীল দীপাবলী এসব কেনা হইছে? হয় নাই? কন কি? তাড়াতাড়ি যান। তারপর দোকানে যেয়ে সবগুলা নাম মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলে দেন। মনে রাখবেন আপনি অলস কিন্তু আঁতেল না। তারপর বেছে বেছে প্রতি সবাজেক্টের যেই বইটা আপনার কাছে সহজ লাগে সেটা কিনেন। কঠিন বই পড়ার কোন অতিরিক্ত সুবিধা নাই। আর যদি ইতিমধ্যে সবধরনের বইয়ের পাহাড় জমানো হয়ে যায় তাহলে দরকারী গুলো বাছাই করেন। আর বাকিগুলা আগের মতো বস্তায় ভরে বিক্রি করে সেই টাকায় কটকটি খান। মোটামোটা দুই একটা বই আলাদা রাখেন। কেন পরে বলতেছি।
৩. এতক্ষনে নিশ্চই জ্ঞানীগুনীরা আপনারে পরামর্শ দেওয়া শুরু করছে যে বিসিএস এ চান্স পেতে হলে ১২-১৩ ঘন্টা পড়াশোনা করতে হয়। কেউ কেউ নাকি ১৫ ঘন্টাও পড়ে। এইরকম পরামর্শ দিতে আসলে আগে সরাইয়া রাখা মোটা বইগুলা থেকে একটা তুলে তার মাথায় বাড়ি মারেন। কারন সে চাপাবাজ। হয় সে কখনোই বিসিএসে পাস করে নাই আর না হয় আপনাকে নার্ভাস করাই তার উদ্দেশ্যে।
৪. এখন কয়ঘন্টা পড়বেন? শুরুর ৫দিন কোন পড়াশোনার দরকার নাই। ঘুম, বিনোদন, খাওয়া দাওয়ার পর যে সময় পাবেন তা থেকে একঘন্টা সময় বের করে বইগুলো একটু ঘাটাঘাটি করুন। প্রতিটা পাতা উল্টিয়ে উল্টিয়ে দেখুন। কোন কিছু মুখস্ত করবেন না। শুধু টপিকগুলোর উপর চোখ বুলান। ২৪ ঘন্টায় মাত্র একঘন্টা সময় দিচ্ছেন, তাই সাবধান এই একঘন্টায়, নো মোবাইল, নো ফেসবুক, নো টিভি, নো আইপিএল, নো সানিলিওন, নো ফুশুর ফুশুর উইথ গার্লফ্রেন্ড/বয়ফ্রেন্ড। এই একঘন্টা শুধু অখন্ড মনযোগ।
৫. প্রথম পাঁচ দিনের পর দ্বিতীয় পাঁচ দিন দুইঘন্টা করে পড়বেন। এর মাঝে প্রতি আধাঘন্টায় ৫ মিনিট বিরতি দিবেন। তবে উঠবেন না। তার পরের পাঁচদিন তিন ঘন্টা। এভাবে ২৫ দিন পর আপনি দৈনিক ৬ ঘন্টা পড়াশোনার একটা রুটিনে পৌছবেন। তারপর আর বাড়নোর দরকার নাই। পরীক্ষার একমাস আগে পর্যন্ত আপনি এই ৬ ঘন্টার রুটিন চালিয়ে যাবেন। তবে এই ছয় ঘন্টা একটানা করার দরকার নাই। দুইঘন্টা পর পর ব্রেক নিবেন। অথবা সকালে তিনঘন্টা ও রাতে তিনঘন্টা এভাবেও পড়তে পারেন সেটা আপনার ইচ্ছা। কিন্তু যেভাবেই হোক দিনে ছয় ঘন্টা পড়তে হবে। ৬ ঘন্টার কোটা পুরন হওয়ার পর আপনি স্বাধীন। তারপর ফেসবুক, ক্রিকেট, সানিলিওন, দীপিকা, শাকিব, অপু সব চালাতে পারবেন।

পর্ব ৩: দ্য ম্যাজিক বুক
প্রথমে একটা গল্প দিয়ে শুরু করি। গ্রামের এক সহজসরল লোক তার দজ্জ্বাল বউয়ের জ্বালায় অতিষ্ঠ হয়ে ঠিক করলো, আর না, এবার সে পরিবার ছেড়ে সন্ন্যাসী হয়ে যাবে। সেই পরিকল্পনা মতো এক রাতে নদীর ঘাটে যেয়ে নৌকায় চড়ে বসলো। সারারাত স্রোতের বিপরীতে নৌকা চালালো। সকাল বেলা দেখে নতুন এলাকাটা যেনো কেমন চেনা চেনা লাগে। গ্রামের এক মহিলা নদী থেকে পানি নিয়ে আসলো। তো সেই লোক সেই গ্রাম্য বধুকে জিজ্ঞেস করে “এটা কোন ঘাটগো মা”। মহিলা তার দিকে কতক্ষন তাকিয়ে থেকে বললো “ওরে মিনসে, তুই এখানে, আর সারারাত আমি খুজে মরছি। এখন আবার বউকে মা ডাকা হচ্ছে। গাজা, ভাং খেয়েছিস নাকি সারারাত?”। ততক্ষনে সেই লোক খেয়াল করলো, সে সারারাত নৌকা বেয়েছে ঠিকই, কিন্তু খুটির সাথে যে দড়ি দিয়ে নৌকা বাধা ছিলো সেটা খুলতেই তার মনে নেই।
যাকগে সেই বোকা লোকের কথা। আপনারা এখন বলুন আপনাদের কি কখনো এমন হয় নি, যে সারাদিন বই নিয়ে বসে আছেন। খাওয়া নাই, নাওয়া নাই কিন্তু দিন শেষে দেখা গেলো তেমন কিছুই পড়া হয় নাই। ঘুরেফিরে কয়টা পাতাতেই আটকে আছেন? আসলে এমন হয় কারন আপনি বই নিয়ে বসে ছিলেন ঠিকই, কিন্তু মনোযোগ ছিলো অন্যদিকে। যাদের এমন হয় তাদের জন্যই এই টিপস ‘দ্য ম্যাজিক বুক’। ম্যাজিক বুক কোন বই না। এটা একটা খাতা। সেটা বানাবেন আপনি নিজেই এবং নিজের জন্যই। কেমন হবে সেই ম্যাজিক বুক কৌশল দেখে নিন।

১. প্রথমেই একটা খাতা বানাবেন। সেটা ভালো মানের হার্ডকাভারের নোট বুক হলেই ভালো হয়। সস্তা জিনিস হলে গুরুত্ব এমনিতেই কমে যাবে। নোট বুকের প্রথম পাতায় সুন্দর করে যে পরীক্ষার জন্য প্রিপারেশন নিচ্ছেন সে পরীক্ষার নাম লিখেন।
২. তার পরের পৃষ্ঠায় যতগুলো সাবজেক্ট আছে, সবগুলোর নাম লিখেন। প্রতিটা সাবজেক্টের পাশে সে সাবজেক্টের যেসব বই কিনেছেন তার নাম লিখেন।
৩. তারপর যেকোন একটা পছন্দের সাবজেক্ট বাছাই করেন। পরের পৃষ্ঠায় সেই সাবজেক্টের নাম লিখে তার নিচে সেই সাবজেক্ট রিলেটেড গুরুত্বপূর্ন চ্যাপ্টার গুলোর নাম লিখেন।
৪. এবার আপনার আসল কাজ শুরু। প্রথমেই যেকোন একটা চ্যাপ্টার বাছাই করেন। বাছাই করে সে চ্যাপ্টারের কি কি টপিক আছে সেটার একটা লিস্ট তৈরী করেন। লিস্টটা গুরুত্বপূর্ন। টপিক বড় হলে সেটাকে কয়েক ভাগে ভাগ করে নেন। যেমন: জাতিসংঘ টপিকটা বড়। আপনি ভাগ করবেন এভাবে, জাতিসংঘ-১, জাতিসংঘ-২, জাতিসংঘ-৩। এমন ভাবে ভাগ করবেন যাতে একটা ভাগ/টপিক পড়তে বড়জোর ২০-২৫ মিনিট সময় লাগে।
৫. এখন ঠিক করেন আপনি প্রতিদিন অন্তত ৫টা টপিক পড়বেন। শুরুতে ১০ মিনিট টপিকটা রিভিশন দিবেন। তার পরের ১০ মিনিটে ভালো করে বুঝার চেষ্টা করেন। পরের ৫-১০ মিনিট আপনি সেই অংশটা ভালো করে রিভিশন দেন। এই পুরো ৩০ মিনিট হচ্ছে আপনার একটা লুপ। এই তিরিশ মিনিট অখন্ড মনযোগ দিতে হবে। এই সময় অবশ্যই আপনি ক্যান্ডিক্রাশ, সিওসি, ফেসবুক, আইপিএল, সানি লিওন, গার্লফ্রেন্ড/বয়ফ্রেন্ড ইত্যাদি থেকে দূরে থাকবেন। ৩০ মিনিট শেষ হওয়ার পর অবশ্যই এই টপিকটা পড়া বন্ধ করবেন ও পরবর্তী টপিকে যাবেন।
৬. প্রতিটা টপিক পড়া শেষ হওয়ার পর লিস্টে সেটার পাশে বড় করে গোল কিরে চিহ্ন দিবেন। যখনই আপনার মনে হবে ধুর কিছুই তো পড়া হলো না তখনই সেই লিস্টের দিকে তাকাবেন। সেই লিস্টের বড় বড় গোল করে দাগানো চিহ্নগুলোই আপনাকে মনে করিয়ে দিবে আপনার কিছু না কিছু পড়া হচ্ছে। প্রতিদিন ৫ টা করে টপিক পড়লেও তিরিশ দিনে আপনার ৫ গুন ৩০ = ১৫০ টা টপিক পড়া হবে। ১৫০ টা বিষয়ে জ্ঞান নেহাত ফেলনা নয়।
৭. শুরুতে যদি আপনি দৈনিক ৫ টা করে টপিক পড়ার অভ্যাস করতে পারেন দেখবেন আস্তে আস্তে সেই সংখ্যাটা বেড়ে ১০ এ চলে যাবে। যখন আপনি দৈনিক ১০ টা করে টপিক পড়তে পারবেন তখন আপনি প্রতি মাসে ১০ গুন ৩০ = ৩০০ টা টপিক পড়বেন। চিন্তা করা যায় !!!
৮. সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ন কথা প্রতিদিন একবার এই খাতাটাতে চোখ বুলাবেন। দেখবেন বিভিন্ন টপিকের পাশে গোলগোল চিহ্ন দেওয়ার একটা নেশা পেয়ে বসবে। এটা একধরনের সেলফ মোটিভেশনের কাজ করবে। (চলবে)

ডা: কামরুল হাসান রাহাত
বিডিএস (ঢাকা ডেন্টাল কলেজ)
৩৫ তম বিসিএস (স্বাস্থ্য)

এক তরুণী মায়ের বিসিএস ক্যাডার হওয়ার গল্প

উম্মে হাবিবা ফারজানা, একজন মা এবং একজন বিসিএস ক্যাডার কর্মকর্তা। পাহাড়সম প্রতিবন্ধকতা পেরিয়ে তিনি আজ সফল। তার এ সফলতার পেছনে অনুপ্রেরণা তিনি নিজেই। প্রায় চার বছর পড়ালেখা থেকে বিচ্ছিন্ন থাকার পরও শুধু দৃঢ় মনোবল আর পরিশ্রমের কারণেই সফল এই তরুণী।

৩৭তম বিসিএসের মাধ্যমে প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত হয়েছেন ফারজানা। এস এম মাহবুবুর রহমান ও বিলকিস খানম দম্পতির বড় সন্তান ফারজানা ছোট থেকেই ছিলেন দৃঢ়চেতা ও আত্মবিশ্বাসী। বরিশালের পিরোজপুরে পৈত্রিক বাড়ি হলেও বাবার চাকরিসূত্রে বেড়ে ওঠা চট্টগ্রামে। সেখানে নৌবাহিনী স্কুল এন্ড কলেজ থেকে ২০০৫ সালে এসএসসি ও ২০০৭ সালে এইচএসসি সম্পন্ন করেছেন তিনি।

এইচএসসি পাশের পর ভর্তি হন দেশের সর্বোচ্চ বিদ্যাপীঠ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগে। ক্যাম্পাসের রঙিন দিনগুলোর স্বাদ বুঝে উঠতে না উঠতেই অনার্স দ্বিতীয় বর্ষে পড়াকালেই মা-বাবার ইচ্ছায় বেসরকারী কর্মকর্তা মো: মনিরুল ইসলামের সঙ্গে বিবাহ বন্ধনে আবদ্ধ হন। মাত্র উনিশ বছর বয়সে বিয়ের পরে সাংসারিক বাস্তবতায় রঙিন জীবন কিছুটা ফ্যাকাসে লাগতে থাকে পড়াশোনা, সংসার, শ্বশুরবাড়ির সবকিছু সামলে হাপিয়ে উঠতে উঠতে। তবে একসময় আত্মবিশ্বাস দিয়ে জয় করেন সবকিছু।

মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষার সময় আট মাসের গর্ভবতী ছিলেন হাবিবা। কন্যার জন্মের পরই শুরু হয় তার প্রকৃত জীবন সংগ্রাম। সন্তান হবার পরে প্রায় কারো সাহায্য ছাড়াই একা বড় করে তুলতে থাকেন মেয়ে মানহা ইসলাম শাইরাকে। সেসময়টা সবকিছু সামলে প্রচণ্ড মানসিক চাপের মধ্য দিয়েও সন্তানের উপর প্রভাব পড়তে দেননি তিনি।

ফারজানার বিসিএস পরীক্ষায় অংশ নেবার পেছনে অনুপ্রেরণা তিনি নিজেই। রাষ্ট্র, সমাজ, পরিবারের প্রতি দায়বদ্ধতা সর্বোপরি একজন সচেতন নাগরিক হিসেবেই তার সিভিল সার্ভিসে যোগ দেয়ার ইচ্ছা। সেজন্য চলমান জীবন সংগ্রামের মধ্যেই নিজেকে নতুন করে গুছিয়ে চার বছর পর শুরু করেন পরীক্ষার প্রস্তুতি।

বিসিএসের প্রস্তুতির সময় স্বামী মো: মনিরুল ইসলামের অবদানকে স্মরণ করেছেন বার বার। সংসার সামলে ফারজানার পড়ার সময় ছিলো খুব কম। তাই রাত সাড়ে এগারোটা থেকে শুরু করে অনেক রাত পর্যন্ত চলতো তার প্রস্তুতি। এভাবেই অংশ নেন ৩৭তম বিসিএসে। এটাই ছিলো তার প্রথম বিসিএস। প্রিলিমিনারি পরীক্ষার সময় চিকেন পক্সে আক্রান্ত হন ফারজানা ও তার মেয়ে। অসুস্থ অবস্থায়ই পরীক্ষায় অংশ নেন তিনি। মেধাবী ফারজানা সফল হন বিসিএস প্রিলিমিনারি পরীক্ষায়।

লিখিত পরীক্ষার অাগে পড়ালেখার সুযোগ পেয়েছেন মাত্র দেড় মাস। সেসময় স্বামী-মা ও বোনের কাছ থেকে বেশ সহযোগিতা পেয়েছেন তিনি। লিখিত পরীক্ষায় সফলতার পর ভাইভাতেও সফল হন ফারজানা। সুপারিশপ্রাপ্ত হন বিসিএস প্রশাসন ক্যাডারে। তার এ সফলতায় আপ্লুত তার পরিবার ও স্বজনরা। আর নিজস্ব পরিচিতি তৈরি হওয়ায় আপ্লুত ফারজানাও।

নারীদের উদ্দেশ্যে প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত উম্মে হাবিবা ফারজানা বলেন, ‘সফলতার জন্য নারীদের সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন আত্মবিশ্বাস। আমি মানুষ, আমি একটা আলাদা সত্ত্বা। আমাকে আমার লক্ষ্যে পৌঁছতে হবে। আর এজন্য যা সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন তা হলো পরিশ্রম। সে বিষয়ে কখনোই পিছপা হওয়া যাবে না।’

আত্মবিশ্বাসই সফলতার মূলমন্ত্র উল্লেখ করে বিসিএস পরীক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন: ‘থেমে গেলে চলবে না। ধৈর্য্য ধরে এগিয়ে যেতে হবে, বিশ্বাস রাখতে হবে। যে সময়টা পাওয়া যায় তার পুরোটা সঠিক ব্যবহার করতে হবে। কাজে লাগাতে হবে। আর পড়াশোনা চলাকালে সব রকম ডিভাইস থেকে দূরে থেকে একাগ্রচিত্তে যতটুকু সময় পড়ার, সে সময়টা পুরোপুরি পড়লে সফলতা আসবেই।’

Source: Channel i

আসুন হতাশা দূর করে একটু অনুপ্রাণিত হই

আপনারা যারা বিসিএস বা বিভিন্ন, চাকুরীর পরীক্ষার জন্য প্রস্তুতি নিচ্ছেন, আপনারা অনেক সময় আপনাদের বন্ধুদের বা পরিচিত দের পড়াশুনা দেখে বা তাদের কথা শুনে হতাশ হয়ে যান, ভাবেন তারা এত পড়াশুনা করছে আপনি হয়তো পিছিয়ে আছেন, আপনি হয়তো পরীক্ষার জন্য প্রস্তুত হতে পারবেন না, এমন কি মাঝে মাঝে তারা হয়তো আপনাকে এমন দুই একটা প্রশ্নকরে যার উত্তর আপনি যানেন না, ফলে আপনার মধ্যো একটা ভয় কাজ করতে শুরু করে, আমি কি পারবো??? এমন চিন্তা আপনাকে গ্রাস করে, তাহলে আপনাকে বলছি শুনুন :
১)বিসিএস ক্যাডার হতে হলে আপনাকে সব জানতে হবে এমনটা কখনো ভাববেন না, তবে যত বেশি সম্ভব জানার চেষ্টা করুন।
২) অন্যরা কি ভাবে পড়ছে এটা নিয়ে চিন্তা করবেন না, আপনি তো আপনিই, আপনি নিজের মত করে চেষ্টা করুন।
৩)বিসিএস ক্যাডার হওয়া স্বপ্ন পূরনে দীর্ঘ প্রচেষ্টা প্রয়োজন, তাই ১ বার ব্যার্থ হলেও হাল ছাড়বেন না, চেষ্টা চালিয়ে যান।
৪)যেসব বন্ধুরা ২ পাতা বই পড়ে নিজেকে পন্ডিত ভাবে তাদের এড়িয়ে চলুন, এরা নিজেরাও কখনো পারবে না আবার আপনাকেও পারতে দেবেনা।

আমার এক স্যার একদিন আমাকে বলেছিল ওই যে লাইব্রেরির ওই এসির মধ্যো শত শত শিক্ষার্থী দেখছো, ওদের মধ্যো মাত্র
১ ভাগ পড়ছে,
১ভাগ গল্প করছে,
১ ভাগ প্রেম করছে।
সুতরাং যারা সারাদিন লাইব্রেরী তে পড়ে থাকে তাদের দেখে হতাশ না হয়ে তুমি তোমার মত পড়তে থাকো।

আমি আমার অনেক বন্ধু, বড় ভাই, ছোট ভাই কে দেখেছি তারা এত বেশি পড়েছে যে, সেই পড়া তাদের কনো কাজেই আসেনি, হাটতে হাটতে, বাসে বসে, খেতে বসে, এমন কি টয়লেটে বসেও পড়াশুনা করতো, বিভিন্ন চাকরির পরীক্ষা দিয়ে বের হয়ে বলতো দোস্ত ফাটিয়ে দিয়েছি পরীক্ষা, অথচ ফলাফল তারা এখনো পরীক্ষা তে ফাটিয়েই যাচ্ছে।

আরে ভাই আপনি তো মানুষ রোবট নয় আপনার সবকিছুরই প্রয়োজন আছে, সারাদিন গাধার মত না পড়ে রুটিন করে প্রতিদিন প্রতিটা বিষয় মাত্র ১ ঘন্টা করে পড়ুন,
ইনশাল্লাহ সফলতা আসবে।


সৈয়দ আবিদ হাসান
প্রশাসন ক্যাডার(৩৬তম বিসিএস)

বিসিএস রিটেন সম্পর্কিত নিজের কয়েকটি অভিজ্ঞতা

আমি ৩৮ বিসিএসে আপনাদের সহযোদ্ধা ছিলাম। ৩৭ তম আমার প্রথম বিসিএস ছিল, কাঙ্ক্ষিত ক্যাডার পাওয়াতে এবার আর অংশগ্রহণ করবো না। অনেকে আমার কাছে রিটেন বিষয়ক বিভিন্ন অভিজ্ঞতা জানতে চেয়েছেন।নতুন পরীক্ষার্থীদের পরামর্শ দানের মত কোন যোগ্যতা আমার তৈরি হয়নি, তবে আমি যে কাজগুলো করেছি তা শেয়ার করতে পারি।


১। পরীক্ষায় যে কলম দিয়ে লিখব, তার ১০টা কলম ১ সপ্তাহ আগেই চালু করে রেখেছিলাম।
২। হাত দুটোকে খুব যত্নে ও সাবধানে রাখতাম, কোন ভাবেই যাতে ইনজুরি না হয়। অনেক সময় নখ এর সামান্য কোনা ভাঙলেও অনেক ব্যাথা হয়, যা লিখতে সমস্যা সৃষ্টি করতে পারে।
৩।ঘুমের সময়টা আগেই প্রাকটিস করে নিয়েছি। সকাল ৭টা থেকে বিকেল ৫টা, এর মধ্যে বিছানায় শোয়া বা তন্দ্রা যাওয়া আগে থেকেই পরিহার করেছি, যাতে “দেহঘড়ি”র রিদমের কারনে ঐ সময়ে পরীক্ষার মধ্যে ঘুমের অনুভূতি না আসে।
৪।পরীক্ষা শুরুর আগেই যা মনে আসে ১০-১৫ মিনিট লিখে হলে ঢুকেছি হাত চালু করার জন্য। না হলে দেখা যায়, প্রথম ৩০ মিনিট হাতের জড়তা ভাঙতে কেটে যায়, লেখা আগাতে চায় না।
৫।প্রশ্ন হাতে পেয়ে না দেখেই প্রথমে সৃষ্টিকর্তার কাছে সাহায্য চেয়ে প্রশ্নপাঠ করেছি। পুরোটা প্রশ্ন একবার পড়ে কমন গুলো মার্ক করেছি, আনকমন গুলোর জন্য কি লেখা যায় মনে মনে ভেবে নিয়েছি।
৬। লেখা শুরুর আগে প্রতিটি প্রশ্ন ৩-৪ বার করে পড়ে সঠিক
ভাবে উদ্ধার করতে চেষ্টা করেছি, প্রশ্নে কি চাওয়া হয়েছে। অনেক সময় তাড়াহুড়া করতে গিয়ে আমরা পুরো প্রশ্ন না পড়েই লিখতে শুরু করি, যার ফলে উত্তর “টু দা পয়েন্ট” হয় না।
৭।আনকমন প্রশ্ন লেখার আগে ১-২ মিনিট ভেবে নিয়েছি, পয়েন্ট সাজিয়ে নিয়েছি মনে মনে, কি ভাবে গুছিয়ে লেখা যায়। এরপর লিখা শুরু করেছি। আমার কাছে মনে হয়েছে, এতে উত্তর অনেক সুন্দর করে লেখা হয়, যার ফলে নম্বর বেশি আসে।আমার বাংলা, ইংরেজি একটা রচনাও কমন আসেনি। আমি রচনা লিখার আগে ১০ মিনিট ধরে ভেবে পয়েন্টগুলো রাফ করে নিয়েছিলাম।
৮। ডাটা-চার্ট নিয়ে চিন্তা করার বেশি প্রয়োজন নেই। যদি মনে করেন, প্রশ্নের উত্তর বেশি ছোট হয়ে যাচ্ছে নম্বর অনুপাতে, তবে তথ্য গ্রাফ- চার্ট আকারে উপস্থাপন না করে লিটারেচার আকারে লিখুন। রচনার ক্ষেত্রে ডাটা- চার্ট এর শব্দ গননা করা হয় না।
৯। সর্বোপরি, বানানের দিকে খুব বেশি নজর দিতে হবে। PSC এর নিয়ম অনুযায়ী ৩ টা ভুল বানানের জন্য ১ নম্বর কাটা হয়। অনেক ভালো পরীক্ষা দিয়েও অনেকের আশানুরূপ ফলাফল হয় না শুধু বানান ভুলের জন্য।
এই কয়েক দিনে পড়তে গিয়ে বাংলা ও ইংরেজি যে বানানটা কঠিন মনে হবে লিখে প্রাকটিস করুন।
সবার জন্য অনেক শুভকামনা। দেখা হবে বিজয়ে, ইনশাআল্লাহ।


উম্মে হাবিবা ফারজানা
প্রশাসন ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত,
৩৭ তম বিসিএস।

সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরির প্রস্তুতি

আসসালামু আলাইকুম, আশা করি আপনারা ভাল আছেন। বর্তমানে দেশের শিক্ষিত বেকারদের জন্য সবচেয়ে বেশি প্রয়োজন একটি চাকরি। কারন একটি চাকরির সাথে জড়িয়ে আছে আপনার জীবনের অনেককিছু। চাকরি প্রার্থীদের মধ্যে যারা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরি করতে চান তারা কিভাবে প্রস্তুতি নিবেন আজ তা নিয়ে লিখছি।

এই পরীক্ষার মোট নম্বর ১০০, এর মধ্যে লিখিত পরীক্ষার নম্বর ৮০ আর মৌখিক পরীক্ষার নম্বর ২০। লিখিত পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হলে আপনাকে মৌখিক পরীক্ষার জন্য ডাকা হবে। লিখিত পরীক্ষা নেয়া হবে এমসিকিউ পদ্ধতিতে। বিষয় গুলো হচ্ছে বাংলা, গণিত, ইংরেজি ও সাধারণ জ্ঞান। প্রতিটি বিষয় থেকে ২০টি করে মোট ৮০ টি নৈর্ব্যক্তিক প্রশ্ন থাকবে। প্রতিটি প্রশ্নের মান ১। প্রতিটি ভুল উত্তরের জন্য ০.২৫ নম্বর কাটা যাবে। অর্থাৎ চারটি উত্তর ভুল হলেই প্রাপ্ত নম্বর থেকে ১ নম্বর কাটা যাবে।
আপনাকে প্রতিটি বিষয়ের জন্যই আলাদাভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে। আপনি যদি ৮০ এর মধ্যে ৭০+ নম্বর পান তাহলে আপনি সেইফ থাকবেন। তাই প্রস্তুতি নিতে হবে ভালভাবে। কোন অবহেলা করা যাবেনা। কারন আপনাকে কয়েক লক্ষ প্রার্থীর সাথে প্রতিযোগিতা করতে হবে আর একটি চাকরির সাথে আপনার জীবন ও ভবিষ্যৎ জড়িত।

কি কি পড়বেন ও কিভাবে পড়বেন-
বাংলাঃ প্রথমেই আসি বাংলা নিয়ে। বাংলা অংশে ব্যাকরণের ওপর বেশি জোর দিতে হবে। অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির বোর্ড প্রণীত ব্যাকরণ বইয়ের সব অধ্যায় উদাহরণসহ ভালোভাবে পড়তে হবে। জানতে হবে কবি-সাহিত্যিকদের সাহিত্যকর্ম ও জীবনী সম্পর্কে। এসএসসি বোর্ড বইয়ের লেখক পরিচিতি বা সাহিত্যিক পরিচিতি অংশ পড়লে অনেকটা সহায়ক হবে। পিএসসি নির্ধারিত ১১ জন সাহিত্যিক সম্পর্কে পড়বেন। ব্যাকরণ থেকে ভাষা, বর্ণ, শব্দ, সন্ধি বিচ্ছেদ, কারক, বিভক্তি, উপসর্গ, অনুসর্গ, ধাতু, সমাস, বানান শুদ্ধি, পারিভাষিক শব্দ, সমার্থক শব্দ, বিপরীত শব্দ, বাগধারা, এককথায় প্রকাশ থেকে প্রশ্ন আসে। সাহিত্য অংশে গল্প বা উপন্যাসের রচয়িতা, কবিতার লাইন উল্লেখ করে কবির নাম থেকে প্রশ্ন আসতে পারে।
এই সব গুলো বিষয় বিসিএস প্রিলিমিনারি ডাইজেস্ট বই থেকে বা অন্য যে কোন গাইডে গুছিয়ে দেওয়া আছে। সেখান থেকে পড়তে পারেন।

ইংরেজিঃ ইংরেজি গ্রামারের Right forms of verb, Tense, Preposition, Parts of Speech, Voice, Narration, Spelling, Sentence Correction- থেকে প্রশ্ন আসে। Advance Learners by Chowdhury and Hossain বা অন্য যে কোন গ্রামার বই থেকে গ্রামারের এই টপিকস গুলো উদাহরণসহ পড়ুন। মুখস্থ করতে হবে Phrase and Idoims, Synonym, Antonym।
ইংরেজি থেকে বাংলা অনুবাদও পড়তে হবে। এজন্য ২০১৫-১৮ সালের বিভিন্ন সরকারি নিয়োগ পরীক্ষার প্রশ্ন সমাধান করতে পারেন। বিসিএস প্রিলিমিনারি ডাইজেস্ট বইয়ের ইংরেজি অংশটুকু ভালভাবে পড়তে পারেন।

গণিত : এই অংশে মার্কস পাওয়া তুলনামূলক ভাবে সহজ। প্রতিদিন ২-৩ ঘণ্টা গণিত প্রাকটিস করা দরকার। পাটিগণিতের পরিমাপ ও একক, ঐকিক নিয়ম, অনুপাত, শতকরা, সুদকষা, লাভক্ষতি, ভগ্নাংশ থেকে প্রশ্ন আসে। বীজগণিতের সাধারণ সূত্রাবলী থেকে প্রশ্ন থাকে। মুখে মুখে ও সূত্র প্রয়োগ করে সংক্ষেপে ফল বের করার প্র্যাকটিস করতে হবে। যাতে প্রশ্ন দেখামাত্রই সূত্র প্রয়োগ করে ফল বের করা যায়। জ্যামিতির জন্য ত্রিভুজ, চতুর্ভুজ, বর্গক্ষেত্র, রম্বস, বৃত্ত ইত্যাদির সাধারণ সূত্র ও সূত্রের প্রয়োগ প্রাকটিস করবেন। মাধ্যমিক পর্যায়ে পাঠ্যবই যেমন অষ্টম ও নবম-দশম শ্রেণির গণিত বই অনুসরণ করলে ভালো হবে।
ডাইজেস্ট থেকে গণিত অংশটুকু ভালভাবে বুঝে শেষ করবেন।

সাধারণ জ্ঞানঃ বাংলাদেশ বিষয়াবলী থেকে প্রশ্ন বেশি আসে। এক্ষেত্রে বাংলাদেশের শিক্ষা, ইতিহাস, ভাষা আন্দোলন ও মুক্তিযুদ্ধ, ভূপ্রকৃতি ও জলবায়ু, সভ্যতা ও সংস্কৃতি, বিখ্যাত স্থান, বাংলাদেশের রাষ্ট্র ব্যবস্থা, অর্থনীতি, বিভিন্ন সম্পদ, জাতীয় দিবস থেকে প্রশ্ন আসতে পারে।

আর আন্তর্জাতিক অংশে বিভিন্ন সংস্থা, দেশ, মুদ্রা, রাজধানী, দিবস, পুরস্কার ও সম্মাননা, খেলাধুলা থেকে প্রশ্ন থাকে।
আর সাম্প্রতিক বিষয়ের জন্য মাসিক কারেন্ট এফিয়ার্স পড়তে পারেন।

সাধারণ বিজ্ঞান থেকে বিভিন্ন রোগব্যাধি, খাদ্যগুণ, পুষ্টি, ভিটামিন থেকে প্রশ্ন আসতে পারে।

কম্পিউটার ও আইসিটি থেকেও প্রশ্ন থাকে। আপনি কম্পিউটার ও আইসিটির বেসিক বিষয় গুলো ভালভাবে আয়ত্ব করবেন।

বিজ্ঞান, আইসিটি ও কম্পিউটার এর জন্য ২০১৫-১৮ সালের বিভিন্ন পরীক্ষায় আসা প্রশ্ন গুলো ভালভাবে পড়লে বেশ কিছু কমন পেতে পারেন।

উপরের পরামর্শ গুলো শুধু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের জন্যই নয়। যে কোন সরকারি ও স্বায়ত্তশাসিত প্রতিষ্ঠানের ২য় শ্রেণি চাকরির জন্যও প্রযোজ্য। এইভাবে পড়লে আশা করি আপনি প্রিলিতে ভাল নম্বর পাবেন। তবে আপনি চাইলে যিনি আরো ভাল জানেন বা নিজের পরামর্শ অনুযায়ী প্রস্তুতি নিতে পারেন। তবে যেভাবেই নেন না কেন আপনাকে পড়তে হবে পরিশ্রম করতে হবে। ৩০ বছর যে চাকরি করে আপনার জীবন চলবে সেই চাকরির জন্য অন্তত ৩০ দিন দৈনিক ১৬ ঘণ্টা করে পড়ালেখা করুন। শুধুমাত্র সরকারি জবের পেছনে না ছুটে বিভিন্ন স্বায়ত্তশাসিত ও বেসরকারি জবের জন্যও চেষ্টা করুন।

পড়ুন, পরিশ্রম করুন, প্রার্থনা করুন এবং পড়ুন। আপনি যদি ভালভাবে পড়েন সেটা ওই জবে কাজে না লাগলেও অন্য কোননা কোন জবে ঠিকই কাজে লাগবে। পড়ালেখা কখনো বৃথা যায়না। কোননা কোন ভাবে এর সুফল আপনি পাবেনই। ভাল থাকবেন। আল্লাহ সবার কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করে দিন।

মোঃ হামিদ পারভেজ
এক্স অফিসার, এসবিএল
বর্তমানে বিসিএস ননক্যাডারে সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়ে কর্মরত।

দিনমজুর বাবার ছেলে বিসিএস ক্যাডার

ঘরে দরজা ছিল না। ঘরের ফাঁকা জায়গা ঢেকে রাখতে হয়েছে নারিকেল পাতা দিয়ে। ঘরে ছিলো না চেয়ার-টেবিল কিংবা চৌকি। মেঝেতেই করতে হয়েছে পড়াশোনা। ভালো জামা-কাপড় পরিধান ছিলো স্বপ্নের মতো। প্রতিবেশির ছেলের লুঙ্গি পরে প্রথম স্কুলে যাওয়া তার। ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার কালাদহ ইউনিয়নের বিদ্যানন্দ গ্রামের দিনমজুর বাবার ছেলে ফখরুল আলমের শৈশব-কৈশোর কেটেছে এভাবেই।

তবে এগুলো এখন অতীতের কথা। দিনমজুর বাবার এই ছেলে এখন বিসিএস ক্যাডার। ৩৬তম বিসিএসে শিক্ষা ক্যাডারে সুপারিশকৃত হয়েছেন। দারিদ্র্যপীড়িত অতীত ভুলে ময়মনসিংহের ফুলবাড়িয়া উপজেলার কালাদহ ইউনিয়নের বিদ্যানন্দ গ্রামে দারিদ্র্যপীড়িত ফখরুল। মা-বাবা মুখে ফুটিয়েছেন হাসি।

ফুলবাড়িয়া উপজেলার বিদ্যানন্দ গ্রামে ফখরুল আলমের পুরোনো বাড়িটি এখন বহাল তবিয়েতই আছে। অদম্য এই যুবকের জীবনযুদ্ধের সাক্ষী হয়ে আছে এই বাড়িটি। অভাব অনটনের সংসারে চার ছেলে মেয়ে থাকলেও একজনকে পড়ালেখা করানোর সুযোগ করে দিতে পেরেছিলেন ফখরুলের বাবা। ভাগ্যবান সেই সন্তান হলেন একমাত্র ছেলে ফখরুল। নিজেরা কম খেয়ে-কম পরে ছেলের পড়ার খরচ যুগিয়েছেন মা-বাবা।

ফখরুল তার সেই অতীতের স্মৃতি বর্ণনা করে বলেন, ‘আমার বয়স সতেরো হওয়া পর্যন্ত ঘরে কোনো দরজা ছিলো না। বাঁশ আর নারিকেল পাতা দিয়ে আব্বা ঢাকনা টাইপের কিছু একটা বানিয়ে দিয়েছিলেন। রাতে ওটাকে দরজা হিসেবে ব্যবহার করতাম আমরা। যে ঘরের দরজাই নেই, সেখানে চেয়ার-টেবিলে বসে পড়ার চিন্তা তো সুখকল্পনা মাত্র। মেজেতে ঝুঁকে পড়তে পড়তে ঘাড়ে ব্যথা করতো আমার। আর পারছিলাম না। কলেজে ভর্তি হওয়ার পর আব্বা বাজার থেকে ৬০ টাকা দিয়ে একটা চেয়ার কিনে দিছিলেন।’

প্রথম হাইস্কুলে যাওয়ার কথা মনে পড়ে আজকের এই শিক্ষা ক্যাডারে সুপারিশকৃত ফখরুল আলমের। তিনি বলেন, ‘পরিবারের অবস্থা এতই শোচনীয় ছিলো যে, স্কুলে পরে যাওয়ার মতো একটা ভাল লুঙ্গিও ছিল না আমার। মা পাশের বাড়ির মেম্বারের ছেলের একটা লুঙ্গি এনে দিয়েছিলেন। সেই লুঙ্গি পরেই ৬ষ্ঠ শ্রেনীতে ক্লাস করতে গেছি।’

এতদূর আসার পেছনে ফখরুল সবচেয়ে বেশি কৃতিত্ব বাবাকে দিয়ে বলেন, ‘কারো অবদানের কথা বলতে গেলে অবশ্যই বাবার কথা বলতে হবে। উনি কোনোদিন একশো টাকা দিয়ে একটা লুঙ্গি কিনে পড়তে পারেননি। কখনো বাবাকে নতুন জামা পড়তে দেখিনি। উনি যা কিছু করেছেন সব আমার জন্যই করেছেন। পড়াশুনার ব্যপারে সবসময় উৎসাহ দিতেন আমাকে।’

ছেলের এগিয়ে যাওয়া খুব কাছ থেকে দেখেছেন বাবা ফজলুল হক ও মা মনোয়ারা বেগম। ভাবতেন, বড় হয়ে তাদের ফখরুল একদিন মুখ উজ্জল করবে সবার। ভেজা কণ্ঠে মা মনোয়ারা বেগম বললেন, ‘মুরগি যে ডিম পাড়তো সেগুলো ছেলেমেয়েদের খাওয়াতে পারতাম না। সেগুলো দিয়ে বাচ্চা ফুটিয়ে তারপর সেগুলো বিক্রি করে ওর পড়ার খরচ দিতাম। আমার সন্তানদের ভালো খাবার দিতে পারিনি কখনো। তার বাবা গমের বিনিময়ে রাস্তার কাজ করতো আর সে গমের আটা দিয়ে তৈরী রুটি সকালে খেয়ে স্কুলে যেত আবার স্কুল থেকে ফিরে এসে সেই রুটি খেতো।’

বৃষ্টির রাতে ঘরের চালা বেয়ে পানি পড়তো। ছেলে মেয়েদের নিয়ে ঘরের এক কোণে রাত টাকাতেন মনোয়ারা বেগম ও ফজলুল হক। দারিদ্র্যপীড়িত সংসারে বড় দুই মেয়েদের পড়াশুনা করাতে না পেরে অল্প বয়সেই বিয়ে দেন পাশের গ্রামের কৃষক পরিবারে। ছোট মেয়ে সোমা আক্তার মাধ্যমিক পাশ করার পর তাকেও বিয়ে দেওয়া হয়। পরিবারের অভাব অনটন নিরসনে আয়রোজগারে লাগাতে ছেলেকে গার্মেন্টসে পাঠাতে বলেছিলেন প্রতিবেশীরা। সে কথায় কান না দিয়ে ছেলের পড়াশুনার খরচ যোগাতে হাসি মুখে নিজের সাধ্যমতো চেষ্টা চালিয়ে যেতে থাকেন ফজলুল হক।

সেই কষ্টসাধ্য প্রচেষ্টার সফলতায় মুগ্ধ ফজলুল হক বলেন, ‘সারাদিন কাজ করে বাড়িতে আসার সময় ছেলের জন্য দুই টাকা দিয়ে রুটি কিনে নিয়ে আসতাম। অনেক দূরে হাই স্কুলে যাওয়া আসা করতো তাকে একটি সাইকেলও কিনে দিতে পারিনি। অনেক কষ্ট করে ছেলে ঢাকা ভার্সিটিতে পড়ছে। এখন চাকরিও পাইছে। আল্লাহর কাছে আমি শুকরিয়া আদায় করি।’

বিদ্যানন্দ সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় থেকে শিক্ষা জীবন শুরু করে জনতা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে এসএসসি, ফুলবাড়ীয়া ডিগ্রী কলেজ থেকে এইচএসসি পাশ করেন অধম্য এই যুবক। এরপর ভর্তিহন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামীক স্ট্যাডিজ বিভাগে।

গত বছরের ১৭ জুলাই কৃষি ব্যাংকে যোগদানের পর আর্থিক সচ্ছলতা ফিরে আসে পরিবারে। এখন আর তার বাবাকে কাজ করতে হয় না। ইতিমধ্যে পরিবারের জন্য নিজ বাড়িতেই একটি পাকা ঘর নির্মাণ কাজ শুরু করেছেন ফখরুল।

জীবনযুদ্ধে জয়ী অদম্য ফখরুল আলম বলেন, দারিদ্রতা কোন সমস্যা নয়, মনের ইচ্ছা আর সৎ উদ্দ্যেশই পারে মানুষকে উচ্চ পর্যায়ে নিতে। যারা দারিদ্রতার জন্য শিক্ষা ক্ষেত্রে পিছিয়ে আছে তাদের জন্য কাজ করতে চান তিনি।

বার বার হেরে যাবার গল্প

দুহাজার তিন সালে সায়েন্স গ্রুপ থেকে আমি এইচ এস সি পাস করি, 3.60 আউট অফ 5 এর ভয়াবহ সিজিপিএ নিয়ে| ঝিনাইদহ ক্যাডেট কলেজের ছাত্র ছিলাম, আন্ত: ক্যাডেট কলেজ প্রতিযোগিতাগুলোর কারণে প্রায় সবাই চিনত| ক্যাডেট কলেজের শেষ এক বছর এক্সট্রা কারিকুলামই শুধু করেছি, কারিকুলামটা আর করা হয়ে ওঠেনি| সায়েন্স বিভীষিকার মত লাগত, বিশেষ করে কেমিস্ট্রি| আমার বড় চাচা কেমিস্ট্রি গোল্ড মেডালিস্ট শিক্ষক, কেমিস্ট্রিকে বাবা বলতেন “পারিবারিক সাবজেক্ট”| সেই কেমিস্ট্রিতে পেলাম বি , ম্যাথে সম্ভবত সি|

এইচ এস সি পরীক্ষার রেজাল্টের পরের দু মাস ছিল রীতিমত নরকসম| সফল কোন আত্মীয়/বন্ধুর মা ফোন করতেন আমার মা কে, দূর থেকে অপরাধীর মত শুনতাম আম্মুর কণ্ঠ- “না ভাবী, আমার ছেলে ভাল করেনাই, পাস করেছে কোনরকম”| টপ টপ করে চোখ বেয়ে পানি পড়ত, আমারও, আম্মুরও- কিন্তু যন্ত্রণার সেটা কেবল শুরু|

ইংরেজিতে কিছুটা ভাল ছিলাম, প্রাণপণ চেষ্টা শুরু করলাম আইবিএ এর জন্যে| দিনে বারো থেকে আঠের ঘন্টা পড়াশোনা, ফলাফল হল অশ্বডিম্ব- লিখিত পরীক্ষাতেই টিকলাম না| আইবিএ রেজাল্টের পর মোটামুটি গৃহবন্দীতে পরিণত হলাম- আত্মীয় স্বজনদের মধ্যে সারাজীবন যাকে তৃতীয় শ্রেনীর গর্ধব বলে জেনেছি, তিনিও আব্বু আম্মুকে ফোন করে জ্ঞান দেয়া শুরু করলেন- আপনার ছেলের কি হবে এখন?

আমাদের সমাজটা কেন জানি ব্যর্থদের প্রতি প্রচন্ড নির্মম| জীবনের কোন একটা লড়াইয়ে আপনি হেরেছেন কি মরেছেন, হায়েনার দল ওত পেতে বসে আছে আপনার দগদগে ঘা তে মরিচগুঁড়ো সহকারে লবন দেবার জন্যে|কেউ একটিবারের জন্যে আপনার ক্ষতবিক্ষত বুকে হাত বুলিয়ে বলবেনা, ” ধুর বোকা, ভেঙে পড়ার কি আছে, এ লড়াই তো শেষ লড়াই না!”

আঁধারের মাঝে আলোকচ্ছটা হয়ে এল আমার আইএসএসবি তে টেকা, তাও সেটা মাত্র কয়েক মাসের জন্যে| বিএমএ যাবার তিন মাসের মধ্যে বুঝতে পারলাম, প্রতিটি পদক্ষেপ নিয়ম মেনে চলা কঠোর এ সেনাজীবনের উপযুক্ত আমি নই| স্বেচ্ছায় চাকুরি ছেড়ে চলে আসার দিন প্লাটুন কমান্ডার মেজর এম বলেছিলেন- You are just a goddamn failure.You have failed here, I can write down in the stamp paper that you will never succeed anywhere in your life.

আর্মিতে যাবার আগে শেষবারের মত জীবনের “রঙ” দেখতে নর্থ সাউথে পরীক্ষা দিয়েছিলাম, ওটাই শেষে ঠিকানা হল| প্রাইভেট ভার্সিটিতে পড়ি শুনে আত্মীয় স্বজনদের মধুর মন্তব্য- “বাপের টাকা আছে দেখে করে খাচ্ছে, নাহইলে তো রাস্তায় ইঁট ভাঙারও যোগ্যতা ছিলনা| জানি তো, আর্মি থেকে লাত্থি মেরে বের করে দিয়েছে!”

নর্থ সাউথের পারফরম্যান্সও তথৈবচ, প্রথম দু সেমিস্টারে ছটা সাবজেক্টের পাঁচটায় ফেইল, আরেকটায় সি মাইনাস| এরপর জোর করে কিছুটা পড়াশোনা করে পাস করলাম সাড়ে তিনের কাছাকাছি সিজিপিএ নিয়ে, আমার ডিপার্টমেন্টের ছাত্রছাত্রীদের তুলনায় যেটা আহামরি কিছুই না| অর্থনীতির ছাত্র,কিন্তু ইংরেজিতে কিছুটা দখল থাকায় চাকুরি হল ইংলিশ ডিপার্টমেন্টে, টিচিং এ্যাসিস্টেন্টের কাজ|

আমার বন্ধুরা একে একে বাইরে পড়তে গিয়েছে , কিন্তু আমার সে যোগ্যতা ছিল না| ঠিক করলাম বিসিএস দেব, বাবার মত সরকারী চাকুরি করব|

“এনেসিউ তে পড়ে বিসিএস? বাবা, ওসব জায়গায় টেকা প্রাইভেটের ছেলেপেলের কম্মো না, যাও বাপের বিজনেসে বসো গিয়ে, নইলে মামা চাচা ধরে দেখ কোন কোম্পানিতে ঢুকতে পারো কিনা| মাল্টিন্যাশনালে ঢোকা তোমার যোগ্যতায় কুলাবে না, দেখলাম তো”

প্রিয় পাঠক, আজকে আপনারা আদর করে আমাকে সুপার কপ ডাকেন| মাত্র পাঁচ বছর আগেই আমাকে প্রতিনিয়ত উপরের কথাগুলো শুনতে হয়েছে|

বিসিএস পরীক্ষার রেজাল্ট হল, ফরেন সার্ভিস পেলাম না| রেজাল্ট খারাপ হয়নি, পুলিশ ক্যাডারের মেধাক্রমে চতুর্থ হয়েছিলাম| তবু জেনে গেলাম, ক্যারিয়ার ডিপ্লোম্যাট হিসেবে কোনদিনও আমি জাতিসংঘে দাঁড়িয়ে লাল সবুজ পতাকার প্রতিনিধিত্ব করতে পারছিনা| বুকের ভেতর লুকিয়ে রাখা পরম মমতায় লালিত স্বপ্নের কি করুণ অপমৃত্যু!

পুলিশ একাডেমিতে যাবার আড়াই মাসের মাথায় হঠাৎ একদিন দুবছর ধরে স্বপ্ন দেখানো মেয়েটি জানালো, পুলিশের চাকুরি করা কারো সাথে বাকি জীবন কাটানো তার পক্ষে সম্ভব না, শি ইজ ডেটিং সামওয়ান এলস|

প্রথম প্রেম ছিল ওটা, ওকে ছাড়া কাউকে কল্পনাও করতে পারতাম না| উফ, কি কষ্ট, কি ভয়াবহ কষ্ট! মনে হত শত শত বিষাক্ত কেঁচো আমার ভেতরের সবটুকু প্রাণ শুষে নিয়েছে!

দুবছর যাকে নিয়ে স্বপ্ন দেখেছি, পুরো স্বপ্নটুকু নিষ্ঠুরের মত ছিঁড়ে ফেলার যন্ত্রণা কেবল আমিই জানি| আমার ল্যাপটপের পাসওয়ার্ড ছিল ওর নামে| হাউমাউ করে দরজা আটকে কি কান্নাটাই না কেঁদেছিলাম ওটা বদলানোর সময়!

মজার ব্যাপার, হৃদয়ঘটিত কষ্টের ঘটনাক্রমে এ ঘটনাটির স্থান প্রথম নয় আমার জীবনে| প্রথমটির গল্প অন্য কোন দিন, যেদিন আমি আরেকটু শক্ত হব তখন|

পুলিশ একাডেমি থেকে পাস আউট করার পর সিলেক্টেড হলাম মাননীয় প্রেসিডেন্ট ও প্রধানমন্ত্রীর দেহরক্ষী বাহিনী স্পেশাল সিকিউরিটি ফোর্সে| সেখানেও যোগ দেয়া হলনা, পুলিশ বিভাগে আমার আইডল বেনজীর স্যার আমাকে নিয়ে এলেন ডিএমপি হেডকোয়ার্টারে| সেখানে কিছুদিন কাজ করার পর গেলাম উত্তরায়, এসি (প্যাট্রোল ) হিসেবে| ফেসবুকের পোকা ছিলাম তখনো, পিএটিসিতে ফাউন্ডেশন ট্রেনিং-এ শেখা “কাইজেন” (KAIZEN) পদক্ষেপ হিসেবে উত্তরাবাসীকে পুলিশি সহায়তা দিতে খুলে ফেললাম ছোট একটা ফেসবুক পেজ|

বাকি গল্পটা আমার পরিচিত অনেকেই জানেন, পুনরাবৃত্তি করে আর বিরক্তি উৎপাদন করছিনা|

এবার মজার কিছু তথ্য দেই:

1) প্লাটুন কমান্ডার ভদ্রলোকের সাথে আরেক জায়গায় দেখা হয়েছিল| বেনজীর স্যারের সাথে গাড়ি থেকে আমাকে নামতে দেখে ভূত দেখার মত চমকে উঠেছিলেন তিনি, আমি মিষ্টি করে একটা হাসি দিয়েছিলাম মাত্র|

2) গত বছর আইবিএ তাদের অভিজাত Brandedge ম্যাগাজিনে আমার একটা সাক্ষাতকার ছাপিয়েছিল| ম্যাগাজিনটা হাতে পেয়ে কেন জানি আনন্দিত হইনি, আইবিএ রেজাল্টে বাদ পড়া রক্তহীন মুখে দাঁড়ানো সেই কিশোরটার মুখ বড্ড চোখ ভিজিয়ে দিচ্ছিল| ম্যাগাজিনে ছাপানো নিজের ছবিটা দেখেও বিশ্বাস করতে পারছিলাম না|

3) জাপানের সেরা ইঞ্জিনিয়ারিং স্কুল Tokyo Institute of Technology এর গেইটে পা রেখে প্রথম যে কথাটি মাথায় এসেছিল তা হচ্ছে, বুয়েটে ভর্তি পরীক্ষা দেবার মত সিজিপিএ আমি এইচ এস সি তে পাইনি|

আমি এমন এক বাবা, যে তার দুমাসের অনাগত সন্তানকে বাঁচাতে পারিনি| কষ্টটা ভুলে থাকি কিভাবে জানেন?

এই আপনাদের নিয়ে|

সবশেষে এই বার বার হেরে যাওয়ার গল্পের ইতি টানছি আমার খুব প্রিয় তিনটি উক্তি দিয়ে:

প্রথমটা “ব্যাটম্যান বিগিন্স” থেকে:

:Why do we fall, Bruce?
:So that we learn to pull ourselves up.

দ্বিতীয়টি দ্য আলকেমিস্ট এর লেখক পাউলো কোয়েলহোর:

“The meaning of life is to fall seven times and get up at eighth”

আর সর্বশেষটা টম হ্যাংক্স অভিনীত মুভি “কাস্ট এ্যাওয়ে” এর:

“I know what I have to do now. I gotta keep breathing. Because tomorrow the sun will rise. Who knows what the tide could bring?”

আমার মত হারু পার্টির স্থায়ী সদস্য যদি হাল না ছেড়ে লড়ে যেতে পারে, আপনি পারবেন না?!

এইটা কোন কথা?!?

সবাইকে শুভেচ্ছা

একজন সফল মানুষের গল্প

ভার্সিটি থেকে শহরে যাবে, কিন্তু স্টেশনে এসে দেখি ট্রেন নাই। নাশকতার আশংকায়, ডেমু ট্রেনটা বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। কি আর করা, মনটা খারাপ হয়ে গেল। হাঁটতে হাঁটতে জিরো পয়েন্টে চলে আসলাম। ভাবলাম, একটু ওয়াইফাই চালাই।
কিছুক্ষন ওয়াইফাই চালানোর পর, হঠাৎ করে পাশেই এক বড় ভাইয়ের দিকে চোখ পড়লো। চোখাচোখিও হল।
ভাইকে, কেমন জানি, চেনা চেনা লাগছে । কথা বলতে ইচ্ছে করলো।
আমি এগিয়ে গিয়ে বললাম, ভাইয়া, আপনাকে চেনা চেনা মনে হচ্ছে।
খুব সাবলীল ভাবেই ভাইয়ের সাথে পরিচিত হলাম।

আয়ান সরকার, ট্যাক্সে আছেন, পোস্টিং চট্টগ্রামেই , ৩৩ তম বিসিএস এ টিকেছেন।
আমি কেমন জানি, একটু লজ্জায় পড়ে গিয়েছিলাম। ভেবেছিলাম উনি এখানকার স্টুডেন্ট হবে।
ধীরেধীরে কথাবার্তা চলতে থাকলো। উনি চবির ০৬-০৭ সেশনের, ল’এর স্টুডেন্ট ছিলেন। বিশ্ববিদ্যালয়ে ২ নং গেটে থাকতেন। ২০১৩ সালে ভার্সিটি থেকে পাশ করে বের হয়ে গেছেন। কি যেন একটা কাজের জন্য আজ ক্যাম্পাসে এসেছেন। তখন আমার মনে পড়লো, আমিও বিশ্ববিদ্যালয় ২নং গেটে ছিলাম, প্রায় ২ বছরের মত। তখন হয়তো, ভাইকে দেখেছিলাম, কিন্তু ওভাবে ফরমালি পরিচিত হয়ে ওঠে নাই।

সুযোগ পেয়ে বিসিএস নিয়ে অনেক প্রশ্ন করলাম। কিভাবে উনি পড়াশুনা করেছেন। বিসিএস উনার স্বপ্ন ছিল কি না।
আমাদের কথা তখন জমে উঠেছে।

আয়ান ভাই বলতে থাকলেন, আমার বিসিএস দেয়াটা ওভাবে আগে থেকে স্বপ্ন ছিল না। অনার্স পরীক্ষা দেওয়ার পর, আমি অ্যাপিয়ার্ড দিয়ে বিসিএস পরীক্ষা দেই। তখন থেকেই ক্যাডার হওয়ার স্বপ্নটা গ্রো করে এবং তখন থেকেই আমি নিয়মিত পড়াশুনা করি।

উনি একটু হাসি দিয়ে বললেন, তুমি গেজ কর তো। আমি তখন কত ঘন্টা পড়াশুনা করতাম। আমি হাসিমুখ করে বললাম ভাই, আপনি যেহেতু শেষ সময়ে এসে প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। তাহলে ১৮/২০ ঘন্টা তো হবেই। উনি বললেন, এতক্ষণ কেউ পড়তে পারে না কি?
আসলে, আমি তখন প্রায় নিয়মিত ১৪ ঘন্টার মত পড়াশুনা করতাম। আমার ভাগ্য ভাল ছিল, হয়ে গেছে। কিন্তু এটাও সত্যি, আমার স্বপ্ন ছিল বিসিএস পুলিশ হওয়ার । তবে এখন যেটা হয়েছে, ভালই হয়েছে। আমি ভাল আছি।
আয়ান ভাই, আমার কথা জিজ্ঞাসা করলো। তোমার ক্যারিয়ার কোন দিকে গড়তে চাও। আমি একটু লজ্জায় পড়ে গেলাম। বললাম ভাই, জীবনে একটাই স্বপ্ন, ক্যাডার হওয়া এবং সেটা ভালভাবেই চেষ্টা করতে চাই।
উনি আন্তরিক ভাবেই বললেন, হ্যা……!

রীক্ষা দিলে ভালভাবেই দিবা। তাহলেই সফলতা পাওয়া যাবে। আমি শুধু একটু হাসি দিলাম,আর মাথা নাড়ালাম।
ভাই, হঠাৎ করেই বললেন, চলো, চা খাওয়া যাক। আমি সুযোগ টা হাতছাড়া করতে চাইলাম না। ভাবলাম, যাক ভালই হল। আরও কিছুক্ষন কথা বলা যাবে। হাঁটতে হাঁটতে পাশের চায়ের দোকানে গেলাম। চায়ের টেবিলে আবার কথা জমে উঠলো।
ভাইকে বললাম, আসলে আমাদের চবির ছেলেমেয়েরা অন্যান্য বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর চেয়ে অনেক পিছয়ে আছে। উনি বললেন, তুমি ঠিকই বলেছে।

এখানকার পরিবেশ টা একটু অন্যরকম।
তবে ক্যারিয়ারের জন্য নিজের পরিবেশ, নিজেকেই তৈরি করে নিতে হবে। অন্য কেউ এটা তৈরি করে দিবে না। আমিও এরকম প্রতিবন্ধকতার সম্মুখীন হয়েছি। কিন্তু সব কিছুকে পিছনে ফেলে এগিয়ে যেতে হবে। তাহলেই সাফল্য পাওয়া যাবে।
উনি নিজের একটা ঘটনা বললেন, দেখ। আমি জীবনে মাত্র ৭ টা ভাইভা পরীক্ষায় অংশগ্রহণ করেছি। বিশ্ববিদ্যালয়ের ৫ টা, বিসিএস, আর একটা জুডিশিয়াল। বিসিএস এ হওয়ার পর জুডিশিয়াল ভাইভাতে গিয়েছিলাম। কিন্তু ক্যাডার জানার পর, আর ওখানে হই নি।

ভাইয়ের যত কথা শুনছি, ততই আরও বেশি মুগ্ধ হচ্ছি।
কথার ফাঁকে এর মধ্যে আমি জেনে গেছি। উনি সুশান্ত দাদার সাথে বিভিন্ন জায়গায় ক্যারিয়ার আড্ডার আয়োজন করেন।
আয়ান ভাইকে বললাম, আমাদের চবিতে তেমন সেমিনার বা ক্যারিয়ার আড্ডা হয় না। এখানে কি একটা ক্যারিয়ার আড্ডার ব্যবস্থা করা যায়?

উনি একটু স্নিগ্ধ হাসি দিয়ে বললেন,
আমারও ইচ্ছা আছে সুশান্ত দাদাকে নিয়ে এখানে একটা ক্যারিয়ার আড্ডা করার। কথাটা শুনে ভালই লাগলো।
আড্ডা জমে উঠায়, চা এ চুমুক দিতে প্রায় ভুলেই গেছিলাম। এভাবে আরও কিছুক্ষন চা এ চুমুক আর আড্ডা চলতে থাকে। কথার মাঝখানে ভাইয়ের ফেসবুক আইডিটা আর মোবাইল নাম্বারটাও নিলাম।
অবশেষে এবার উঠার পালা।
ভাই বললেন, আমি শহরে যাব। ক্যাম্পাসে আসলে আবার দেখা হবে।

ভাইকে বিদায় জানিয়ে, চিরচেনা সেই কাঁটাপাহাড়ের রাস্তার দিকে হাঁটা শুরু করলাম।
সফলদের স্বপ্নগাঁধা আর সাফল্যের কথা শুনতে ভালই লাগে। নিজের ভিতর একধরনের উৎসাহ কাজ করে, অণুপ্রেরণা পাওয়া যায়। যদি অণুপ্রেরণা টুকু সবসময় মাথার ভিতর থাকে। তাহলেই খুব সহজেই সাফল্য লাভ করা যাবে।
আর পৃথিবীতে কাউকে না কাউকে মশাল নিয়ে সামনে এগিয়ে যেতেই হবে । সুশান্ত দাদা, আয়ান ভাই সেই কাজটিই করে যাচ্ছেন। তাদের বিভিন্ন ক্যারিয়ার আড্ডা আয়োজনের মধ্যে দিয়ে।
ভাইয়া, আমাদের নতুন প্রজন্মের জন্য শুভ কামনা করবেন। যেন আমরাও সাফল্য অর্জন করতে পারি।
স্বপ্নের সারথিরা এক হয়ে, বাকি আর সবাইকে সাফল্যের স্বপ্ন দেখাতে পারি,,,,,
-শামসুজ্জোহা বিপ্লব,
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়।

পছন্দের সহজ বিষয়টি পড়া শুরু করুন

ধরেই নিলাম, বিসিএসে আপনি চাকরিটা পাবেন, এর সম্ভাবনা মাত্র ১ শতাংশ। পরীক্ষা তো দেবেনই, নাকি? পরীক্ষা যদি দিতেই হয়, তবে পড়াশোনা না করে দিয়ে কী লাভ? দায়িত্ব নিয়ে বলছি, প্রতিটি বিসিএসে মাত্র ১ শতাংশ সম্ভাবনায় ৭০ শতাংশ লোক চাকরি পান। ওঁরা যদি পান, তবে আপনি কেন পাবেন না? শত ভাগ এফর্ট দিয়ে পড়াশোনা শুরু করে দিন, এই মুহূর্ত থেকেই!

আমার নিজের মতো করে কিছু পরামর্শ দিচ্ছি। এগুলো আপনার মতো করে কাজে লাগাবেন।
১. নিতান্ত প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে বের হওয়া একেবারেই বন্ধ করে দিন।
২. প্রতিদিন পড়াশোনা করুন অন্তত ১৬ ঘণ্টা; চাকরিটা ছাড়া সম্ভব না হলে অন্তত সাত ঘণ্টা। এ সময়টাতে পাঁচ ঘণ্টার বেশি ঘুম একধরনের বিলাসিতা। বিশ্বাস করে নিন, আপনি আপনার প্রতিদ্বন্দ্বীর চেয়ে যত মিনিট কম ঘুমাবেন, ওনার তুলনায় আপনার চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা তত বেশি।
৩. একটা বিষয় পড়তে পড়তে ক্লান্ত হয়ে পড়লে আপনার পছন্দের সহজ বিষয়টি পড়া শুরু করুন।
৪. ফোন রিসিভ করা, ফেসবুকিং, সামাজিকতা কমিয়ে দিন। পড়ার টেবিল থেকে মুঠোফোনটি দূরে রাখুন।
৫. অনুবাদ, অঙ্ক, ব্যাকরণ, মানসিক দক্ষতা প্রতিদিনই চর্চা করুন।
৬. অমুক তারিখের মধ্যে অমুক সাবজেক্ট বা টপিক, যত কষ্টই হোক, শেষ করে ফেলব—এই টার্গেট নিয়ে পড়ুন।
৭. পড়ার সময় লিখে পড়ার তেমন প্রয়োজন নেই; বরং বারবার পড়ুন। প্রশ্ন অত কমন আসবে না, আপনাকে এমনিতেই বানিয়ে বানিয়ে লিখতে হবে।
৮. নম্বর ও প্রশ্নের গুরুত্ব অনুসারে কোন প্রশ্নে কত সময় দেবেন, এটা অবশ্যই ঠিক করে নেবেন।
৯. সব সাজেশন দেখবেন, কিন্তু কোনোটাই ফলো করবেন না। আগের বছরের প্রশ্ন আর কয়েকটা সাজেশন ঘেঁটে নিজের সাজেশন নিজেই বানান।
১০. রেফারেন্স বই কম পড়ে গাইডবই বেশি পড়ুন। পাঁচটি রেফারেন্স বই পড়ার চেয়ে একটি নতুন গাইডবই উল্টেপাল্টে দেখা ভালো।
১১. লিখিত পরীক্ষায় আপনাকে উদ্ধৃতি আর তথ্য-উপাত্ত দিয়ে প্রাসঙ্গিকভাবে প্রচুর লিখতে হবে। বাংলায় গড়ে প্রতি তিন মিনিটে এক পৃষ্ঠা, ইংরেজিতে গড়ে প্রতি পাঁচ মিনিটে এক পৃষ্ঠা—এই নীতি অনুসরণ করতে পারেন।
১২. যে ভাষায় আপনি অতি দ্রুত লিখতে পারেন, সেই ভাষাতে উত্তর করবেন। আমি উত্তর করেছিলাম বাংলায়।
১৩. প্রতিদিনই প্রার্থনা করুন, সবার সঙ্গে বিনীত আচরণ করুন। এটা আপনাকে ভালো প্রস্তুতি নিতে সাহায্য করবে।
১৪. যেগুলো কিছুতেই মনে থাকে না, সেগুলো মনে রাখার অতি চেষ্টা বাদ দিন। অন্য কেউ ওটা পারে মানেই আপনাকেও পারতে হবে, এমন কোনো কথা নেই। আপনি যা পারেন, তা যেন ভালোভাবে পারেন, সেদিকে খেয়াল রাখুন।
১৫. সবকিছু পড়ার সহজাত লোভ সামলান। বেশি পড়া নয়, প্রয়োজনীয় টপিক বেশি পড়াই বড় কথা।
১৬. কারও পড়ার স্টাইল অন্ধভাবে ফলো করবেন না। ফলাফলই বলে দেবে, কে ঠিক ছিল, কে ভুল। ফল বের হওয়ার আগ মুহূর্ত পর্যন্ত আপনি কারও চেয়ে কোনো অংশে কম নন।
১৭. অন্তত তিন-চারটি গাইডবই থেকে উত্তর পড়ুন। পড়ার সময় গোলমেলে আর দরকারি অংশগুলো দাগিয়ে রাখুন, যাতে রিভিশন দেওয়ার সময় শুধু দাগানো অংশগুলো পড়লেই চলে।
১৮. দিনের বিভিন্ন সময়ে ব্রেক নিয়ে ১০-১৫ মিনিট করে অল্প সময়ের জন্য ঘুমিয়ে নিলে দুটো লাভ হয়। এক. রাতে কম ঘুমালে চলে। দুই. যতক্ষণ জেগে আছেন, সে সময়টার সর্বোত্তম ব্যবহারটুকু করতে পারবেন। ও রকম অল্প সময়ের কার্যকর ঘুমকে ‘পাওয়ার ন্যাপ’ বলে।
১৯. অনলাইনে চার-পাঁচটি পেপার পড়ার সময় শুধু ওইটুকুই পড়ুন, যতটুকু বিসিএস পরীক্ষার জন্য কাজে লাগে।
২০. বিসিএস পরীক্ষা হলো লিখিত পরীক্ষার খেলা। বাংলা, ইংরেজি, গণিত, মানসিক দক্ষতা আর বিজ্ঞানে বেশি নম্বর তোলা মানেই অন্যদের চেয়ে অনেকটাই এগিয়ে যাওয়া। এই সময়ে বিসিএস পরীক্ষায় দুর্নীতি, ভাইভাতে স্বজনপ্রিয়তা, সিভিল সার্ভিসের নানান নেতিবাচক দিকসহ দুনিয়ার যাবতীয় ফালতু বিষয় নিয়ে শোনা, ভাবা, গবেষণা করা থেকে নিজেকে বিরত রাখুন।
এ কয় দিনে আপনার প্রচণ্ড মানসিক ও শারীরিক কষ্টের মধ্য দিয়ে যাওয়ার কথা। ও রকমই হলে, আমি বলব, আপনি ঠিক পথে আছেন। আমার অভিজ্ঞতা বলে, পরীক্ষার আগের সময়টাতে যে যত বেশি আরামে থাকে, পরীক্ষার ফল বের হওয়ার পরের সময়টাতে সে ততোধিক কষ্টে থাকে। বেশি পরিশ্রমে কেউ মরে না। যদি তা-ই হতো, তবে আমরা দেখতে পেতাম, পৃথিবীর সব সফল মানুষই মৃত।

-সুশান্ত পাল

সম্মিলিত মেধায় ১ম ,৩০তম বিসিএস।

সাম্প্রতিক সাধারণ জ্ঞানঃ ১৯ মার্চ, ২০১৮

প্রশ্নঃ দক্ষিণ আফ্রিকার নতুন প্রেসিডেন্টের নাম কী?
উত্তরঃ সিরিল রামাফোসা

প্রশ্নঃ ২০১৮ সালে স্বাধীনতা পুরস্কার লাভ করেন কতজন?
উত্তরঃ ১৮জন

প্রশ্নঃ শীর্ষ দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ কোনটি?
উত্তরঃ সোমালিয়া

প্রশ্নঃ আগামী কমনওয়েলথ গেমস অনুষ্ঠিত হবে কোথায়?
উত্তরঃ গোলকোষ্ট , অস্ট্রেলিয়া

প্রশ্নঃ স্টিফেন হকিং কোন রোগে আক্রান্ত ছিলেন?
উত্তরঃ Neurone

প্রশ্নঃ স্টিফেন হকিং মারা যান কবে, কত বছর বয়সে?
উত্তরঃ ১৪মার্চ, ২০১৮। (৭৬ বছর)

প্রশ্নঃ নেপালে বিদ্ধস্ত বিমানটি কোন মডেলের, বিমানের কোড নম্বর কত?
উত্তরঃ US Bangla Airline, Model২১১

প্রশ্নঃ সম্প্রতি আমেরিকার প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প কোন জিনিসকে ব্যান করলেন?
উত্তরঃ bumb -stock devices

প্রশ্নঃ সম্প্রতি কোন মুসলিম দেশ মহিলাদের মিলিটারিতে নিয়োগের সম্মতি দিলো?
উত্তরঃ সৌদি আরব

প্রশ্নঃ চতুর্থ প্রজন্মের (ফোর-জি) টেলিযোগাযোগ সেবা চালু হয় কবে?
উত্তরঃ ১৯ফেব্রুয়ারি (২০১৮)

প্রশ্নঃ সবচেয়ে কম দুর্নীতিগ্রস্ত দেশ?
উত্তরঃ নিউজিল্যান্ড

প্রশ্নঃ ক্রিকেটে সর্বশেষ ওয়ানডে স্ট্যাটাস প্রাপ্ত দেশের নাম কী?
উত্তরঃ নেপাল

প্রশ্নঃ সুখী দেশের তালিকায় বাংলাদেশ কততম?
উত্তরঃ ১১৫তম

প্রশ্নঃ বর্তমান প্রধান বিচারপতি কে এবং কত তম?
উত্তরঃ সৈয়দ মাহমুদ হাসান, ২২ তম।

প্রশ্নঃ শেখ হাসিনা সেনানিবাস কোথায় অবস্থিত?
উত্তরঃ লেবুখালী, পটুয়াখালী

প্রশ্নঃ আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের সর্বকনিষ্ঠ অধিনায়ক কে হলেন?
উত্তরঃ রাশিদ খান (আফগানিস্তান)

প্রশ্নঃ প্রথম কোন শহর শীতকালীন ও গরমকালীন অলিম্পিক আয়োজন করবে?
উত্তরঃ বেজিং

প্রশ্নঃ অস্ট্রেলিয়ার প্রথম নারী প্রধান বিচারপতি হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেন কে?
উত্তরঃ সুসান কাইফেল

প্রশ্নঃ বর্তমানে জাতিসংঘ কর্তৃক স্বীকৃত প্রচলিত মুদ্রার সংখ্যা কত?
উত্তরঃ ১৮০টি ।

প্রশ্নঃ বিশ্বের বৃহত্তম উভচর উড়োজাহাজ, এটি চীনের তৈরি। তার নাম কি?
উত্তরঃ AG600

প্রশ্নঃ 2022 সালের শীতকালীন অলিম্পিক কোথায় অনুষ্ঠিত হবে?
উত্তরঃ বেজিং, চীন

প্রশ্নঃ বর্তমানে বাংলাদেশের মন্ত্রিসভায় টেকনোক্র্যাট মন্ত্রী কতজন?
উত্তরঃ ৪জন

প্রশ্নঃ মহাগ্রন্থ আল কুরআনের আদলে দেশের প্রথম কুরআন ভাস্কর্য কোথায় তৈরি করা হয়?
উত্তরঃ কসবা,ব্রাহ্মণবাড়িয়া। ভাস্কর্যটির উচ্চতা ১৬ ফুট এবং প্রস্থ ৮ ফুট। ঢাবির কামরুল হাসান শিপন এটির ডিজাইন করেন।

প্রশ্নঃ SpaceX এর প্রতিষ্ঠাতার নাম কি?
উত্তরঃ এলন মাস্ক

প্রশ্নঃ দেশের ইতিহাসের সর্বনিম্ন তাপমাত্রা
উত্তরঃ ২.৬ ডিগ্রী,পঞ্চগড়ের তেঁতুলিয়ায়।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশের কোনটিকে ২০১৮ সালের product of the year ঘোষণা করা হয়?
উত্তরঃ ওষুধ

প্রশ্নঃ বাংলাদেশে কোন তারিখে প্রথম মুদ্রার প্রচলন হয়?
উত্তরঃ ১৯৭৩ সালে বাংলাদেশে সর্বপ্রথম ৫, ১০, ২৫ এবং ৫০ পয়সা মূল্যের ধাতব মুদ্রার প্রচলন করা হয়। ( কাগুজে নোট ৪ মার্চ ,১৯৭২)

প্রশ্নঃ বাংলাদেশের Smart Card কোন দেশে তৈরি হয়?
উত্তরঃ ফ্রান্স

প্রশ্নঃ বিশ্বের প্রথম জাদুঘর প্রতিষ্ঠিত হয়েছিলো?
উত্তরঃ মিসরের আলেকজান্দ্রিয়াতে

প্রশ্নঃ বর্তমান অর্থ সচিব কে?
উত্তরঃ মোহাম্মদ মুসলিম চৌধুরী

প্রশ্নঃ বাংলাদেশ পুলিশের নতুন আইজিপির নাম কি?
উত্তরঃ ড. মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী। তিনি দেশের ২৯তম আইজিপি।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ওয়াচ টাওয়ারের নাম কি?
উত্তরঃ জ্যাকব টাওয়ার, এর উচ্চতা ২২৫ ফুট। এটি ভোলা জেলার চরফ্যাশনে অবস্থিত।

প্রশ্নঃ বাংলাদেশের প্রথম ছয় লেনের ফ্লাইওভার কোথায় অবস্থিত?
উত্তরঃ ফেনীর মহিপালে। এর মুল দৈর্ঘ্য ৬৯০ মিটার। উদ্বোধন করা হয় ৪ জানুয়ারি ২০১৮।

প্রশ্নঃ বিশ্বের সর্বশেষ প্রচলিত মুদ্রার নাম কি?
উত্তরঃ South Sdanese Pound(SSP)।

প্রশ্নঃ 2018 বিশ্ব ধর্ম সম্মেলন কোথায় অনুষ্ঠিত হলো?
উত্তরঃ বিহার

Don’t Miss our future updates. Get in touch for next...

New User? Create an Account


Login



Or


Lost Password?

Already have an account? Login


Signup




Or